• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৫৫ পূর্বাহ্ন |

পুলিশ বাহিনীর আলোর দিশা বসিরউদ্দিন

82842_1সিসি ডেস্ক: কে বলে পুলিশ পারে না? এএসপি বসিরউদ্দিন দেখিয়ে দিয়েছেন পুলিশ পারে। বরং রাজনৈতিক দেউলিয়াপনায় প্রশাসনকে দলীয়করণ, আত্মীয়করণ এবং আইনশৃংখলা বাহিনীকে সরকারের ঠেঙ্গারে বাহিনীর মতো ব্যবহার করার মানসিকতা পুলিশ প্রশাসনকে বিকলাঙ্গ করে দিচ্ছে। তারেক সাঈদের মতো কর্মকর্তাদের বিপথগামী করছে। তারপরও আশার আলো তরুণ পুলিশ অফিসার বসিরউদ্দিনের মতো শত শত হাজার হাজার পুলিশ সদস্য রয়েছেন; তারা কাজ করতে চান। দেশের সেবা করতে চান। তিনি দেশবাসী এবং আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন উপরের কর্মকর্তাদের মাজা শক্ত থাকলে তরুণ পুলিশ অফিসাররা পারেন। তারা দায়িত্ব পালনে হুমকি-ধমকি ও বাধা-বিপত্তিকে থোড়াই কেয়ার করেন। সরকার দলীয় এমপি যখন হুংকার দিয়ে বলেন, ‘তুই কী পারবি কর। তোরে আমি দেখে নিব’। বসিরউদ্দিন তখনো ধীরস্থিরভাবে বলেছেন, ‘আমি এখানে দায়িত্ব পালন করতে এসেছি। দায়িত্বটা আমাকে পালন করতে দিন।’ সাবাস বসির!
পুলিশ প্রশাসনের ওপর নানা কারণে আস্থাহীন দেশের মানুষ যেন ২৬ জুন টিভি পর্দায় হিন্দী সিনেমার দৃশ্য দেখলো। হিন্দি সিনেমায় পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যখন মন্ত্রী এমপি এবং ক্ষমতাসীন প্রভাবশালীদের ন্যায় অন্যায় ফরমাস করতে ব্যস্ত। দায়িত্বের কথা ভুলে গিয়ে মন্ত্রী-এমপিদের উচ্ছন্নে যাওয়া পুত্রদের একের পর এক অপরাধ ঢাকা দিতে ব্যস্ত; তখন থানার কোনো নতুন তরুণ অফিসার মন্ত্রীপুত্রকে নাকানিচুবানি খাওয়াচ্ছেন। এ জন্য তাদের ওপরের কর্তাদের ভর্ৎসনাও শুনতে হয়। কাউকে চাকরি হারাতে হয়; আবার কাউকে বদলি করা হয়। পুরস্কৃত হন এমন ঘটনাও আছে। বোম্বের ছবিতে এ ধরনের সাহসী সৎ পুলিশ অফিসার চরিত্রে বেশি অভিনয় করেন অজয় দেবগন, মিঠুন চক্রবর্তী, প্রসেনজিৎ, আমির খান, অক্ষয় কুমাররা। হিন্দী ছবির সে দৃশ্যই যেন দেখলো বাংলাদেশের মানুষ নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের উপ-নির্বাচনের সময়। ঘটনা খুবই ছোট্ট। পুলিশের তরুণ অফিসার এএসপি বসিরউদ্দিন ভোট জালিয়াতি বন্ধ করে ভোটারদের নির্বিঘ্নে ভোট দেয়ার পরিবেশ সৃষ্টি করতে হয়তো পারেন নি। কিন্তু তিনি চাকরি ও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।
নারায়ণগঞ্জের উপনির্বাচনে আইনশৃংখলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে মদনপুর ও ধামকুর ইউনিয়নের নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন বসিরউদ্দিন। মদনপুর ইউনিয়নের কেওঢালা কেন্দ্রে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুস সালাম (নূর হোসেনের মতোই) বলেছেন ‘কাজে বাধা দিলে পুলিশের কেউ এখান থেকে মাথা নিয়ে যেতে পারবে না। যদি আমাকে এখানে কাজ (ব্যালট বাক্সে সিল মারা) করতে দেয়া না হয়, তাহলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কেউ বেঁচে থাকবে না এবং একটাও এখান থেকে যেতে পারবে না। এখানে আমার মতো করে কাজ করতে দিতে হবে।’ কিন্তু বসিরউদ্দিন বাধা দেন। অতঃপর পাশের আসনের আলোচিত সংসদ সদস্য বসিরকে হুমকি দেন। বলেন, আমি শামীম ওসমান বলছি। আমি কাউকে প্লিজ বলি না। প্লিজ, আমি বলছি তুমি কেন্দ্র ছেড়ে দাও, সময় দ্রুত ফুরিয়ে যাচ্ছে, ৪ টার মধ্যে ৭০-৮০ ভাগ ভোট দিতে হবে। তুমি কেন্দ্র ছেড়ে দিয়ে চলে যাও। বসিরের স্পষ্ট জবাব ‘আমি পারবো না। এখন আমার চাকরি নির্বাচন কমিশনের অধীনে। আমি এখানে প্রজাতন্ত্রের চাকরি করতে এসেছি।’ এএসপি বসির আরো জানান, পরবর্তীতে আমাকে ফোনে রেখে তিনি প্রধানমন্ত্রীর এপিএস জনৈক মালেক সাহেবের সাথে কথা বললেন। আমাকে শুনিয়ে তিনি বলছিলেন, ‘আমি শামীম বলছি, মালেক তুমি প্রধানমন্ত্রীকে বলো আমি কি রাজনীতি করবো নাকি করবো না। এরপরও কেন্দ্র ছেড়ে দিতে না চাইলে শামীম ওসমান বলেন, ‘কুত্তার বাচ্চা, শুয়োরের বাচ্চা, বাষ্টার্ড’ তুই কি করবি কর তোকে আমি দেখে নেব।’ বসির জানান, এই ঘটনা তিনি তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন। তারা মোবাইল ফোনে লাউড স্পিকারে শুনেছে। এই ঘটনায় আমি শঙ্কিত। বসির জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডিও করেছেন। ছোট্ট এ ঘটনার ম্যাসেজ অনেক বড়। পুলিশ প্রশাসনে যে এখনো দক্ষ, সাহসী এবং দায়িত্ব পালনে নিবেদিতপ্রাণ অফিসার রয়েছেন তা জাতিকে জানান দিয়েছেন বসিরউদ্দিন। টিভি পর্দায় বসিরের এ বক্তব্য সরাসরি এবং পরবর্তীতে সচিত্র খবর প্রচারের দৃশ্য দেখে বসিরউদ্দিন হয়ে ওঠেন টক অব দ্য কাণ্ট্রি। পর্দার ভিতরে বসিরের ভাগ্যে কি ঘটছে বা কি ঘটতে যাচ্ছে জানা না গেলেও সাধারণ মানুষ বসিরকে নিয়ে আলোচনা করছে।
সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. তুহিন মালিক বলেন, পুলিশ প্রশাসনে বসিরউদ্দিনরা রয়েছেন বলেই বাহিনী টিকে রয়েছে। পুলিশকে তার নিজস্ব দায়িত্ব পালন করতে দিলে তারা দেশে শান্তি-শৃংখলা ফিরিয়ে আনতে পারবেন। সেটা না করে যদি মন্ত্রী জামাতা সাঈদ তারেকদের মতো ব্যক্তিদের আত্মীয়করণ করা এবং প্রভাব খাটিয়ে প্রমোশন দিয়ে ভাড়াটে খুনি বানানোর চেষ্টা হয়, তাহলে পুলিশ বাহিনীর প্রতি মানুষের আস্থা হারিয়ে যাবে।
’৭১-এর ২৫ মার্চ কালো রাত্রিতে রাজারবাগ পুলিশ লাইনে পুলিশ বাহিনীর সাহসী ভূমিকার কথা কে না জানে? তারপরও ক্ষমতাসীনরা আইনশৃংখলা রক্ষাকারী এ বাহিনীকে ইচ্ছামতো ব্যবহার করায় পুলিশ বাহিনীর প্রতি মানুষের আস্থার সংকট সৃষ্টি হয়েছে। নিকট অতীতে প্রথম এ সংকট সৃষ্টি হয় মেধাবী ছাত্র রুবেল হত্যার পর। সেই খুনি এসি আকরাম দীর্ঘদিন জেল খেটে বের হয়েছেন। সর্ষের ভিতর ভূতের মতো আইনশৃংখলা বাহিনীর কিছু সদস্যের অপরাধ কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়া, ক্ষমতাসীনদের ঠেঙ্গাড়ে বাহিনীতে পরিণত হওয়া ইত্যাদি কারণে পুলিশের প্রতি মানুষ ভরসা রাখতে পারছে না। আর জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় চীফ হুইপকে রাজপথে রক্তাক্ত করা, প্রকাশ্য দিবালোকে বিশ্বজিৎকে হত্যার দৃশ্য দেখেও ঘাতকদের নির্বিঘ্নে চলে যেতে দিয়ে পরবর্তীতে ঘটনা উল্টে দেয়ার চেষ্টা করার পুরস্কার হিসেবে পুলিশ পদক পাওয়ার ঘটনা পুলিশ বাহিনীর ইমেজ নষ্ট করেছে। বিশেষ করে আইনশৃংখলা বাহিনীর ওপর ভর করে ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতা গ্রহণ এবং পরবর্তীতে তাদের খুশি রাখতে সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধির ‘চটুল রাজনীতি’ দেশের মানুষ ভালচোখে দেখছে না। সর্বশেষ নারায়ণগঞ্জে সেভেন মার্ডারে ভাড়াটে হিসেবে তারেক সাঈদ, রানাদের স্বীকারোক্তি, ফেনীতে দিনে দুপুরে উপজেলা চেয়ারম্যান একরামকে পুড়িয়ে হত্যার দৃশ্য দেখেও পুলিশের নীরবতা পালন এবং ঢাকার মীরপুরের কুর্মিটোলার কালসীতে উর্দুভাষীদের পুড়িয়ে মারার সময় সন্ত্রাসীদের পক্ষে পুলিশের অবস্থান গ্রহণ দেশের মানুষ ভালভাবে মেনে নিতে পারছে না। এসব কারণে পুলিশ বাহিনীর প্রতি মানুষের বিশ্বাস কমে গেছে। মানুষ মনে করতে শুরু করেছে বাংলাদেশের পুলিশ বাহিনী দলীয়করণ আর আত্মীয়করণে ভরে গেছে। প্রশাসনে সাঈদ তারেকদের জয়জয়কার। কিন্তু বসির উদ্দিন দেশবাসীকে জানিয়ে দিলেন তারাও পুলিশ বাহিনীতে চাকরি করেন। তবে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার ঘটনাটিকে হালকাভাবে নিয়ে দেশবাসীকে হিন্দী সিনেমার গল্পের কথাই স্মরণ করিয়ে দিলেন। ঘটনার পর বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জেলা এসপিকে এ নিয়ে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে তিনি পুলিশ অফিসারকে কুত্তার বাচ্চা, শুয়ারের বাচ্চা, বাষ্টার্ড গলি দেয়া এবং তোকে দেইখা নেব হুমকিকে টুকটাক কথাবার্তা হিসেবে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘ভোটের সময় এধরনের টুকটাক কথাবার্তা হয়। এগুলো এমন কিছু নয়, এগুলোকে তেমন বড় করে দেখার কিছু নেই।’ আসলেই কী তাই? তাহলে অপরাধী, সন্ত্রাসীদের দোষ দিয়ে লাভ কী? বসিরউদ্দিনের সাহসী উচ্চারণ নিয়ে টকশোতে আলোচনার ঝড় উঠেছে। দেশের বুদ্ধিজীবী, সুশীল সমাজ, আইনজীবী সবাই পুলিশ প্রশাসনে বসিরউদ্দিনের মতো সাহসী চরিত্র দেখতে চায়। পুলিশের কর্তাব্যক্তিরা কী পারবেন পুলিশ প্রশাসনে কর্মরত বসিরউদ্দিনদের চলার পথকে সুগম করতে? নাকি ওপর মহলকে খুশি রাখতে এ ধরনের অফিসারদের সাহসকে ‘টুকটাক’ কথা বলে হেলায় উড়িয়ে দিয়ে বড়কর্তারা বসিরউদ্দিনদের চলার পথ থামিয়ে দেবেন? নাকি ওপরের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে পুলিশ বাহিনীতে কর্মরত হাজার হাজার বসিরউদ্দিনদের সামনে এগিয়ে যেতে সহায়তা করবেন? এদের কাজ করার সুযোগ দিলে এরাই জাতিকে আলোর দিশা দেখিয়ে পুলিশ বাহিনীর হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতে পারে। উৎসঃ   Inqilab


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ