• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৩৪ পূর্বাহ্ন |

বাংলাদেশ নিয়ে ভুল করতে চান না মোদি: যুগশঙ্খ

Modiআন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের বাংলাদেশ নীতি অপরিবর্তিত রাখতে চান দেশটির নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। লোকসভা নির্বাচনে জয়লাভের পর থেকে সেই লক্ষ্য নিয়েই এগুচ্ছেন তিনি। এরই মধ্যে প্রতিবেশিগুলোর সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় এবং মৈত্রীর সম্পর্ক জোরদার করারও উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি
মোদির নির্দেশেই দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী তিন দিনের জন্য ঢাকা সফর করেন। সফরকালে সুষমা স্বরাজ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মোদির আমন্ত্রণপত্র পৌঁছে দেন।
প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের মাটিতে গজিয়ে ওঠা উত্তর-পূর্ব ভারতের জঙ্গি ও সশস্ত্র বিচ্ছিন্নতাবাদীদের আস্তানাগুলো গুঁড়িয়ে দেন। সেই সঙ্গে উলফা, এনএলএফটি, এনডিএফবি সহ একাধিক জঙ্গি সংগঠনের বহু সদস্যকে ভারতের হাতে তুলে দিয়ে উত্তর-পূর্ব ভারতকে অনেকটা স্বস্তির জায়গায় এনে দেন তিনি।
আওয়ামী লীগকে ভারতের কংগ্রেস দলের স্বাভাবিক মিত্র বলা হয়। গান্ধী-নেহেরু পরিবারের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পরিবারের সখ্য সাধারণ মানুষেরও জানা। ভারতে লোকসভা নির্বাচনের পর রাজনৈতিক পরিবর্তন নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে এনডিএ সরকার ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশে ভারতের নতুন সরকারের মনোভাব নিয়ে আশঙ্কা তৈরি হয়। এর প্রেক্ষিতেই মোদির নির্দেশে সুষমা স্বরাজ দ্রুত বাংলাদেশে যান।
বাংলাদেশের মাথাব্যথার কারণ কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ’র আমলে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি ও স্থল সীমান্ত চুক্তি কার্যকর না হওয়া। মূলত পশ্চিমবঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তীব্র বিরোধিতায় এই চুক্তি কার্যকর সম্ভব হয়নি। ফলে স্বাভাবিকভাবেই বাংলাদেশ উদ্বিগ্ন এবং যথেষ্ট অসন্তুষ্ট। বাংলাদেশের এই মনোভাব শেখ হাসিনাসহ দেশটির নেতারা সুষমাকে জানিয়েও দিয়েছেন। এমনকি শেখ হাসিনার ঘোর বিরোধী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াও সুষমাকে তিস্তা পানিবণ্টন চুক্তি ও স্থল সীমান্ত চুক্তির রূপায়নের অনুরোধ করেছেন।
ভারতের তরফ থেকে উত্তর-পূর্বের জঙ্গিরা যাতে মদত না পায়, বাংলাদেশ থেকে অনুপ্রবেশ বন্ধ হয় ও ভারতে ট্রানজিট দেয়া হয় তারও অনুরোধ জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে বাংলাদেশিদের ভিসা শিথিল করা নিয়েও কথা হয়েছে।
এদিকে ভারতের নতুন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাজপেয়ী ও আদভানি আমলের ভুল করতে চান না। সেই সময় খালেদা জিয়ার জোটকে ভারত মদত দেয়ায় বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এসে উত্তর-পূর্বের জঙ্গিদের মদত ও আশ্রয় দেয়া শুরু করে। হিন্দু সংখ্যালঘুদের ওপর ব্যাপক আক্রমণ চালানো হয়।
মোদি অতীতের ঘটনা মূল্যায়ন করেই বাংলাদেশ সংক্রান্ত ভারতের বিদেশনীতির কোনো পরিবর্তনের পক্ষপাতী নন। বাংলাদেশের সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে মধুর সম্পর্ক তৈরির পাশাপাশি শেখ হাসিনা কোনোভাবে বিব্রত হন এমন পরিস্থিতি চান না মোদি।
চীন বাংলাদেশে যেভাবে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছে তাতে যথেষ্ট উদ্বিগ্ন মোদি। কংগ্রেসের স্বাভাবিক মিত্র হলেও শেখ হাসিনার আওয়ামী লীগ সরকারের সঙ্গে সুসম্পর্ক চান মোদি। এজন্য তিস্তার পানিবণ্টন, সীমান্ত চুক্তি কার্যকর করার পক্ষে মোদি। ভারতের নতুন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক বার্তা তুলে দিতেই পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের ঢাকা সফর বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষক মহল।  সূত্র: যুগশঙ্খ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ