• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:২৪ পূর্বাহ্ন |

বিদেশে চাকরি দেওয়ার কথা বলে দেহ ব্যবসা

Dorsonঢাকা: ভাল চাকরি দেওয়ার কথা বলে দুবাইয়ে নিয়ে দুই বাংলাদেশি নারীকে দিয়ে জোরপূর্বক দেহ ব্যবসা করানোর অভিযোগ উঠেছে ঢাকার মিনার ট্রাভেলস’র সত্ত্বাধিকারী আনোয়ার হোসেনসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, ঢাকার ফকিরাপুল মিনার ট্রাভেলস’র সত্ত্বাধিকারী আনোয়ার হোসেনের মাধ্যমে ২ লাখ ৮০ হাজার টাকার বিনিময়ে পাচারকারী দেলোয়ার হোসেন, শহিদ হোসেন, মোতালেব হোসেন এবং সাইদ হোসেন গত ৯ জুন কদমতলীর মর্জিনা বেগম ও তার খালোতো বোন রাজিয়া বেগমকে ভাল চাকরি দেওয়ার কথা বলে দুবাই পাঠায়। তারা আরো জানায়, কিছু দিন পর মর্জিনার স্বামী কবির হোসেনও দুবাই যেতে পারবে। আর তারা ওই দেশের নাগরিকত্বও পাবে।

কিন্তু ১১ জুন মর্জিনা তার স্বামীকে মোবাইল ফোনে জানায় অভিযুক্তরা দুবাইতে এক মহিলা দালালের কাছে তাদের বিক্রি করে দিয়েছে। ওই মহিলা তাদের দিয়ে জোর পূর্বক দেহব্যবসা করাচ্ছে।

এ ঘটনা জানাজানি হলে কবির হোসেন পাচারকারী চক্রকে চাপ দিলে তারা কবিরের কাছে থকে ২৫ হাজার টাকা বিমান ভাড়া নিয়ে মর্জিনাকে দেশে ফেরত নিয়ে আসে গত ২৬ জুন।

শনিবার কদমতলী থানার ধোলাইপাড়ের বাসিন্দা মর্জিনা বেগমের স্বামী কবির হোসেন বলেন, গত ২৬ জুন তার স্ত্রী দেশে আসেন। এরপর থেকে তিনি অসুস্থতায় কাতরাচ্ছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এ বিষয়ে মামলা করতে গেলে পল্টন থানা পুলিশ মামলা নিচ্ছেনা বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

মর্জিনার স্বামী কবির জানান, এ জন্য তার সৌদী প্রবাসী এক ভাই শারজার ওই দালাল মহিলাকে ( আফ্রিকান মক্ষী রানী) ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা দিয়েছে।

গত ২৬ জুন মর্জিনা দেশে আসার পর তার শারীরিক অবস্থা খারাপ হওয়ায় স্বামী কবির হোসেন তাকে মিডফোর্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। তবে তার শারীরিক অবস্থা বেশি খারাপ হওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। জোরর্পূব দেহব্যবসা করানোর ফলে অসুস্থ মর্জিনা বেগম এখন ঢাকা মেডিকেলে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন।

এদিকে মর্জিনা ফিরে এলেও তার খালাতো বোন রাজিয়া আক্তার কোথায় আছে জানে না তার পরিবারের কেউই।

তবে মিনার ট্রাভেলসের সত্ত্বাধিকারী আনোয়ার হোসেন ও পাঁচ পাচারকারী রাজিয়াকে দেশে ফেরত আনার কোন চেষ্টাই করছে না। অপরদিকে সব জানার পরও পুলিশ নিরব রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন কবির হোসেন। তিনি জানান, পল্টন থানা পুলিশের এস আই ওবাইদুর রহমান তাকে বলেছেন বউ ফিরে পেয়েছেন এখন অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেন।

তিনি আরো জানান, আমি দুই লাখ ৮০ হাজার টাকা খরচ করেছি। আমার বউকে দিয়ে দেহ ব্যবসা করানোয় তার এইড‘স হয়েছে কি না জানিনা। আমি মিনার ট্রাভেলসসহ পাচারকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

এ বিষয়ে পল্টন থানার এসআই ওবাইদুর রহমান জানান, কবির হোসেন থানায় এসে বলেছিল সে বউ ফেরত চায়। অন্য কোন দাবি নেই। তার কথা মত আমি উভয় পক্ষের সাথে কথা বলে সমঝোতা করে তার বউকে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করেছি। নতুন করে কোন অভিযোগ থাকলে তাকে আমি থানায় আসতে বলেছি। উৎসঃ   শীর্ষনিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ