• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৪৩ পূর্বাহ্ন |

বিদেশ ভ্রমণে স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের দৌড়ঝাঁপ

82896_1সিসিনিউজ: ৩০ জুন শেষ হচ্ছে চলতি অর্থবছর। শেষ মুহূর্তে এসে গত অর্থবছরের বরাদ্দকৃত অর্থে এক সপ্তাহ ধরে বিদেশ ভ্রমণের তোড়জোড় শুরু করেছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

একটি সূত্র জানায়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হেলথ অ্যান্ড নিউট্রিশন সেক্টর ডেভলপমেন্ট প্রকল্প (এইচপিএনএসডিপি)- এর অাওতায় প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তাদের একাধিক দল এরইমধ্যে বিদেশ ভ্রমণ বা দেশের বাইরে ভিন্ন অপারেশন প্ল্যানের (ওপি) জন্য প্রস্তুত হয়েছেন। তাদের গন্তব্যের তালিকায় রয়েছে ভিয়েতনাম, চীন, মালয়েশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত ছ‌‌াড়াও আরও কিছু দেশ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় ইতোমধ্যে বিদায়ী অর্থবছরের অাওতায় বরাদ্দকৃত অর্থের মধ্যে অগ্রিম মোট ১ কোটি ৮৬ লাখ টাকা ব্যাংক থেকে তোলার জন্য কন্ট্রোলার জেনারেল অব অ্যাকাউন্টস (সিজিএ) বরাবর চারটি চিঠি পাঠিয়েছে। বিদেশে প্রতিষ্ঠানটির ৫১ কর্মকর্তাকে প্রশিক্ষণে পাঠানোর জন্য এই অর্থ চাওয়া হয়েছে। এর মধ্যে গত ১৮ এবং ১৯ জুন সিজিএ বরাবর দুটি চিঠি পাঠানো হয়।

যদিও মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানায়, ঠিক কতজন কর্মকর্তার জন্য বিদেশ ভ্রমণের বরাদ্দ করা হয়েছে তা এখনও নিশ্চিত হয়নি।

সূত্র জানায়, চলতি মাসের শুরুতে এই সেক্টরে শীর্ষপদে বিভিন্ন রদবদলের কারণে স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বিদেশ ভ্রমণে যেতে অস্বীকৃতি জানান। কিন্তু মাস পার না হতেই এখন তারা মত বদলেছেন। সামনে কোনও রদবদলের সম্ভাবনা না থাকায় তারা মত পরিবর্তন করেছেন বলে জানিয়েছে ওই সূত্র।

এরইমধ্যে বরাদ্দকৃত টাকা তোলার অাগেই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের একটি দল বিদেশ ভ্রমণে চলে গেছেন বলে জানা গেছে। ‘শর্তসাপেক্ষে‘ ভ্রমণের খরচ পরে দিয়ে দেওয়া হবে এমন অাশ্বাসেই তারা এই ভ্রমণে গেছেন।

জানা গেছে, জাতীয় পুষ্টি সেবা প্রকল্পের অাওতায় ৩৬ সদস্যবিশিষ্ট ৩টি দল ভিয়েতনামের হ্যানয় মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে যাবেন। সেখানে তারা শিশু প্রতিপালন ও কমিউনিটিভিত্তিক পুষ্টি ব্যবস্থাপনা বিষয়ে প্রশিক্ষণ নেবেন। এই দলের বিদেশ ভ্রমণের খরচ বাবদ অগ্রিম ১ কোটি টাকা দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় সিজিএ অফিসে একটি চিঠি দিয়েছে।

এছাড়া স্বাস্থ্য শিক্ষা ও উন্নয়ন প্রকল্পের অাওতায় চার সদস্যের অারেকটি দল এখন মালয়েশিয়া সফরের অপেক্ষায় রয়েছে। তাদের জন্য এরই মধ্যে বরাদ্দ করা ৩৫ লাখ টাকা তোলা হয়েছে। মালয়েশিয়ায় ১৪ দিনের ওই সফরে তারা তথ্য শিক্ষা এবং বস্তুগত যোগাযোগ উন্নয়ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ নেবেন।

এসব ছাড়াও মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে চার কর্মকর্তাকে একটি প্রশিক্ষণে সাত দিনের জন্য চীনে পাঠাতে ৩১ লাখ টাকা চাওয়া হয়েছে সিজিএ অফিসের কাছে। তার ওপর এইচপিএনএসডিপি প্রকল্পের অাওতায় যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে ১০ দিনের একটি বিনিময় প্রোগ্রামে যোগ দিতে দুই কর্মকর্তাকে ৬ লাখ ৯৬ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। ভারতের ব্যাঙ্গালোরে সপ্তাহব্যাপী বিভিন্ন বিনিময়ভিত্তিক ভ্রমণের জন্য পাঁচ সদস্যের একটি দলকে দেওয়া হয়েছে ৫ লাখ টাকা।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বরছেন, বিদায়ী অর্থবছরের শেষ মুহূর্তে বিদেশ ভ্রমণে তোড়জোড়ের এই প্রবণতা অনৈতিক। কর্মকর্তাদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণের প্রয়োজন অবশ্যই অাছে। তবে তা এভাবে নয়। দেশ উপকৃত হবে তখনই যখন কর্তৃপক্ষ এসব ট্যুরের পরিকল্পনা করবে।

জাতীয় পুষ্টি সেবা প্রকল্পের (এনএনএস) পরিকল্পনা বিভাগের প্রধান ডা. মো. শাহনেওয়াজ জানান, বরাদ্দকৃত টাকা সময়মতো না পাওয়ায় অর্থবছরের শেষ দিকে বিভিন্ন ট্যুর অয়োজনের পরিকল্পনার জন্য তাদের ওপর চাপ থাকে।

উৎসঃ   বাংলাট্রিবিউন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ