• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৪১ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে আনন্দ স্কুলে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ

Oniomসিসিনিউজ: সৈয়দপুরে রস্ক প্রকল্পভুক্ত আনন্দ স্কুলে শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ মিলেছে। এ নিয়োগে লাখ লাখ টাকার বাণিজ্য হয়েছে। এক শ্রেণীর কর্মকর্তার আতাঁতে একটি এনজিওর কর্মী ওই নিয়োগ বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। এছাড়া অন্য উপজেলা এবং ওয়ার্ডের প্রার্থী ভূয়া ঠিকানা ব্যবহার করে চাকুরী বাগিয়ে নিয়েছে। এমনকি অন্যের শিক্ষাগত সনদপত্রে ভূয়া পরিচয়ে নিয়োগ পেয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
অভিযোগে জানা যায়, সৈয়দপুরে রস্ক প্রকল্পের ১৫০টি আনন্দ স্কুল চালু রয়েছে। আগামী অর্থ বছর থেকে নতুন ৫০টি স্কুল কার্যক্রম শুরু করবে। এসব স্কুলে শিক্ষাদানের জন্য ৫০ জন শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। গত ২২ জুন লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগ চুড়ান্ত করা হয়। এতে ১০৭ জন প্রার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। অভিযোগ রয়েছে প্রকল্পের নীতিমালা মেনে শিক্ষক নিয়োগ দেখানো হলেও কারসাজি করে পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। প্রকল্পের অংশীদার এনজিও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কর্মী কমিউনিটি মোবিলাইজার জুয়েল রানা নিয়োগ বানিজ্যের সঙ্গে জড়িত। নিয়োগ কমিটির কয়েক কর্মকর্তার সঙ্গে আতাঁত করে ওই বাণিজ্য করা হয়েছে। পছন্দের প্রার্থীকে চাকুরী পাইয়ে দিতে তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের অর্থ নেয়া হয়েছে। নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষকদের মধ্যে অন্য জেলা, উপজেলা এবং ওয়ার্ডেও প্রার্থী রয়েছেন। এসব প্রার্থী প্রকৃত ঠিকানা আড়াল করে ভুয়া ঠিকানা উল্লেখ করেছে। এছাড়াও অন্যের শিক্ষাগত সনদপত্রের নাম ব্যবহার করেও কেউ কেউ চাকুরী নিয়েছে। এর মধ্যে কাশিরাম বেল পুকুর ইউপির মধ্যপাড়া আনন্দ স্কুল নিয়োগ প্রাপ্ত মিলি আক্তারের বাড়ি ডোমার উপজেলায়। এই প্রার্থী বোতলাগাড়ী ইউপির ঠিকানা ব্যবহার করেছে। একই ইউনিয়নের হলদিয়া পাড়া আনন্দ স্কুলের প্রার্থী আলতাফুর রাহমান ও মোঃ নুরে আলমের বাড়ি নীলফামারী সদর উপজেলার দারোয়ানী এলাকায়। এ দুই প্রার্থী যে ঠিকানা ব্যবহার করেছে তা তাদের প্রকৃত ঠিকানা নয়। পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দিতে এমন অনিয়ম ও কারসাজি করা হয়েছে। তদন্ত করলে অনিয়ম প্রমাণিত হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট স্কুল এলাকার বাসিন্দারা।
সূত্র মতে, রস্ক প্রকল্পের নিয়োগ নীতিমালায় রয়েছে স্কুল নির্ধারিত এলাকায়  দেড় কিলোমিটার এলাকার বাসিন্দারা কেবল নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবেন। এর বাইওে কোন প্রার্থী আবেদন করতে পারবেন না। অথচ কারসাজি করে এই নীতিমালা ভঙ্গ করা হয়েছে।
অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে রস্ক প্রকল্পের ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর রেজাউল আলম জানান, অভ্যন্তরিণ বিজ্ঞপ্তি এবং অংশিদার এনজিও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মীর জরিপের ভিত্তিতে স্কুল নির্বাচন ও নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। প্রকল্পের দায়িত্বশীল কর্মকর্তা হিসাবে অনিয়ম প্রশ্রয় দেয়া হয়নি। তারপরও তদন্তে অনিয়ম পাওয়া গেলে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এতে প্রার্থীর চাকুরী পর্যন্ত যেতে পারে বলে উল্লেখ করেন তিনি। নিয়োগ বাণিজ্যের প্রশ্নে তিনি বলেন, এ বিষয়ে তার কিছু জানা নেই। তবে সুযোগ সন্ধানীদের ফাঁদে পড়ে প্রার্থীরা বিভ্রান্ত হতে পারেন। অভিযোগ সম্পর্কে প্রকল্পের অংশিদার এনজিও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কমিউনিটি মোবিলাইজার (সিএম) জুয়েল রানা অনিয়ম ও নিয়োগ বানিজ্যেও সঙ্গে তার জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেন।
উল্লেখ্য পাঁচ বছর মেয়াদী প্রতিটি স্কুলে একজন শিক্ষক নিয়োগ দেয়া নেয়া হয়। এসব শিক্ষককে মাসিক ৩ হাজার টাকা বেতন দেয়া হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের সকল খরচ মেটানো হয় রস্ক প্রকল্পের তহবিল থেকে। হতদরিদ্র ও ঝরে পড়া শিশুদের স্কুল গামী করতে দেশব্যাপী রস্ক প্রকল্প চালু করা হয়েছে। সূত্র: আলাপন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ