• মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:১৩ অপরাহ্ন |

২৫ জেলার ৯০ আসনে ভোটার সংখ্যা গরমিল

ECঢাকা: গত ৫ই জানুয়ারি অনুষ্ঠিত ১৪৭টি আসনের নির্বাচনে ৯০টি আসনে ভোটের তথ্যে গরমিল রয়েছে বলে ধরা পড়েছে নির্বাচন কমিশনের তথ্যে। রিটার্নিং অফিসার ও প্রিজাইডিং অফিসার এসব আসনের ভোটারের যে তথ্য নির্বাচন কমিশনে পাঠিয়েছেন তাতে গরমিল ধরা পড়ায় দুই জনের তথ্য সমন্বয় করে আবারও রিপোর্ট পাঠাতে চিঠি দিয়েছে কমিশন। নির্বাচন কমিশন এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য না জানালেও চিঠি দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছে। একই সঙ্গে যে সব আসনে ভোটারের গরমিলের তথ্য এসেছে ওই সব আসনের তথ্যও পাওয়া গেছে।
এ আসনগুলোতে রিটার্নিং অফিসার ও প্রিজাইডিং অফিসারের পাঠানো তথ্য অনুযায়ী ভোটার সংখ্যার হিসাবে কোন মিল নেই। গত ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনের প্রতিবেদন তৈরি করতে রিটার্নিং অফিসার ও প্রিজাইডিং অফিসারদের ভোটার সংখ্যার হিসাব পাঠাতে গত দু’মাস আগে চিঠি দেয় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। রিটার্নিং অফিসার ও প্রিজাইডিং অফিসারের পাঠানো এ সব ভোটার সংখ্যার মধ্যে ৯০টি আসনের ভোটার সংখ্যায় গরমিল খুঁজে পায় নির্বাচন কমিশনের সিস্টেম বিভাগ। বিরোধী দলের বর্জনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত ওই নির্বাচনে নির্বাচন কমিশন ভোটের হার ৪০ ভাগ দেখালেও বাস্তবে ভোটার উপস্থিতি ছিল খুবই কম। ব্যাপক সংঘাত ও সহিংসতার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত ওই নির্বাচনে কিছু কেন্দ্রে কোন ভোটই পড়েনি। বিরোধী জোটের দাবি নির্বাচনে পাঁচ ভাগ ভোটও পড়েনি। নির্বাচনে ভোটের হার বাড়ানো হয়েছে এমন দাবিও ছিল তাদের। বিতর্কের কেন্দ্রে থাকা এই নির্বাচন নিয়ে এবার খোদ নির্বাচন কমিশনেই গরমিলের বিষয়টি ধরা পড়ে।
সাতক্ষীরা-১ আসনের ১৪টি কেন্দ্রে এবং সাতক্ষীরা-২ আসনের ৩টি কেন্দ্রে রিটার্নিং অফিসার ও প্রিজাইডিং অফিসারের পাঠানো  ভোটার সংখ্যার হিসাবে কোন মিল নেই বলে প্রতিবেদন থেকে পাওয়া যায়। এছাড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, শেরপুর, বগুড়া, রাজশাহী, নীলফামারী, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁওসহ ২৫টি জেলার ৯০টি আসনের ভোটার সংখ্যায় এ রকম গরমিল রয়েছে। গরমিলের কারণ জানতে চেয়ে রিটার্নিং অফিসারদের চিঠি দেয়া হয়েছে বলে জানান নির্বাচন কমিশনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা। এবিষয়ে নির্বাচন কমিশনার আবু হাফিজের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি কমিশনারদের জানা নেই। নির্বাচন কমিশনের ভারপ্রাপ্ত সচিব মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলামের কাছে ভোটার সংখ্যার গরমিলের বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, কিছু জায়গায় রিটার্নিং অফিসার ও প্রিজাইডিং অফিসারের পাঠানো ভোটার সংখ্যায় গরমিল পাওয়া গেছে। এসব জায়গার রিটার্নিং অফিসারদের চিঠি দিয়েছে কমিশন। যাতে রিটার্নিং অফিসার ও প্রিজাইডিং অফিসারদের ভোটার সংখ্যার হিসেবে সমন্বয় করা হয়। এদিকে গত ৫ই জানুয়ারি দশম জাতীয় নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫৩ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রার্থীরা বিজয়ী হন। তাদের মধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ১২৭, জাতীয় পার্টি (জাপা) ২০, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ তিনটি, ওয়ার্কার্স পার্টি দু’টি এবং জাতীয় পার্টি-জেপি প্রার্থীরা একটি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন। বাকি ১৪৭ আসনের মধ্যে যেসব আসনে নির্বাচন হয়েছে সেগুলো হলো পঞ্চগড়-১ ও ২, ঠাকুরগাঁও-১ ও ৩, দিনাজপুর-১,৩,৪,৫ ও ৬, নীলফামারী-১ ও ৩, লালমনিরহাট-১ ও ৩, রংপুর-৩, ৪, ৬, কুড়িগ্রাম-১, ৪, গাইবান্ধা-১, ২, ৩, ৪, বগুড়া-৪ ও ৭, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২, নওগাঁ-৩, ৪ ও ৫, রাজশাহী-৩, ৬, নাটোর-৩, সিরাজগঞ্জ-৫, পাবনা-১ ও ৩,  মেহেরপুর-১ ও ২, কুষ্টিয়া-১, ৩, ৪, চুয়াডাঙ্গা-১ ও ২, ঝিনাইদহ-১, ২, ৩, ৪, যশোর-২, ৪, ৫ ও ৬, মাগুরা-১ ও ২, নড়াইল-২, বাগেরহাট-৪, খুলনা-১, ২ ও ৩, সাতক্ষীরা-১ ও ২, বরগুনা-১ ও ২, পটুয়াখালী-১ ও ৩, ভোলা-২ ও ৩, বরিশাল-২, ৩, ৪, ঝালকাঠী-১, পিরোজপুর-৩, টাঙ্গাইল-২, ৫ ও ৬, জামালপুর-১, ২, ৪,  ও ৫,  শেরপুর-১, ২ ও ৩, ময়মনসিংহ-৩, ৬, ৭, ১০ ও ১১, নেত্রকোনা-১, ২ ও নেত্রকোনা-৩, কিশোরগঞ্জ-৩, মানিকগঞ্জ-১, মুন্সীগঞ্জ-১, ২, ঢাকা-১, ৪, ৫, ৬, ৭, ১৫, ১৬, ১৭ ও ১৮, গাজীপুর-৪, নরসিংদী-১, ২ ও ৩, নারায়ণগঞ্জ-১, ফরিদপুর-৪,  গোপালগঞ্জ-১, ২ ও ৩, সুনামগঞ্জ-১ ও ৩, সুনামগঞ্জ-৫, সিলেট-২ ও ৪,  মৌলভীবাজার-১ ও ২, হবিগঞ্জ-২, ৩, ও ৪, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১, ২, ৩ ও ৫, কুমিল্লা-১, ৩, ৪, ৫, ৬, ৮ ও ৯, ফেনী-৩, নোয়াখালী-৬, লক্ষ্মীপুর-১, লক্ষ্মীপুর-৪, চট্টগ্রাম-২, ৩, ৪, ৯, ১১, ১২, ১৩, ১৫ ও ১৬, কক্সবাজার-৪, খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি ও বান্দরবান।
এ সব আসনে নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি কম হলেও নির্বাচন কমিশনের হিসাবে ভোট পড়ে ৪০ ভাগ। এ নির্বাচনে দেশী-বিদেশী পর্যবেক্ষকরাও খুব একটা অংশ নেননি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ