• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৫৯ অপরাহ্ন |

‘ইফতার’ ছাড়াই বিএনপির ইফতার!

BNP-IFTR-Narayanganj-pic-e1406392395104সিসিনিউজ: চরম বিশৃঙ্খলা আর হৈ চৈ এর মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির ইফতার। যেখানে সাংবাদিকসহ শত শত অতিথিকে ইফতার করতে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে। অনেকে পানি না পেয়ে যথাসময়ে রোজ ভঙ্গ করতে পারেননি। অনেকে রোজা রেখেও ইফতার করতে না পেয়ে ফিরে এসেছেন অভুক্ত অবস্থায়।

অনেকে ইফতার করার সৌভাগ্য লাভ করলেও তা ছিল খুবই নিম্নমানের। সেসব নিম্নমানের খাবারও টানা হেঁচড়া করে খেয়ে রোজ ভাঙতে হয়েছে।

জেলা বিএনপির নেতারা অপ্রীতিকর এ ঘটনার জন্য ‘মাফ’ চাইলেও ক্ষোভ মেটেনি অতিথিদের।

আয়োজকদের মতে, ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছিল ছয়শ মানুষের জন্য। কিন্তু সেখানে উপস্থিত হন দ্বিগুনেরও বেশি। দলের আন্দোলন সংগ্রামে এসব নেতাকর্মীকে দেখাই যায়না।

দলীয় সূত্রমতে, রাজনৈতিক নেতা, বিশিষ্টজন ও সাংবাদিকদের সম্মানে নারায়ণগঞ্জ নগর বিএনপি শনিবার ইফতার ও দোয়া মাহফিলের প্রস্তুতি নেয়। কিন্তু হঠাৎ করেই গত মঙ্গলবার নগর বিএনপিকে বাদ দিয়ে ইফতার আয়োজন শুরু করে জেলা বিএনপি। শুরু হয় দাওয়াত দেয়ার প্রস্তুতি। অভিজাত ক্লাব হিসেবে পরিচিত নারায়ণগঞ্জ ক্লাব লিমিটেডের মিলনায়তনে এ আয়োজন সম্পন্ন হয়।

শনিবার বিকেল সাড়ে ৫টার পর থেকেই মিলনায়তনে নেতাকর্মীদের ভিড় জমে যায়। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদের দাওয়াত দেয়া হলেও বিএনপি, জামায়াত, হেফাজত ছাড়া অন্য কোনো দলের নেতাদের দেখা যায়নি।

তাছাড়া সাংবাদিকদের সম্মানে ইফতার আয়োজনের কথা বলা হলেও তাদের জন্য একটি মাত্র টেবিল ছেড়ে দেয়া হয়। যেখানে ১২ জন সাংবাদিকের বেশি কেউ স্থান পাননি। আমন্ত্রিত অনেক সাংবাদিক ও পত্রিকার সম্পাদক সেখানে উপস্থিত হলেও তাদের দীর্ঘদিন দাঁড়িয়ে থাকতে হয়েছে।

সাংবাদিকদের জন্য নির্ধারিত টেবিল বিএনপির শীর্ষ নেতাদের পিএস, টেলিফোন রিসিভারসহ কর্মীরা দখল করে রাখলেও সিনিয়র সাংবাদিকরা বসার জন্য দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করেছে। দলের পরিচিত শীর্ষ নেতাদের কাছে চেয়ারের জন্য ধর্ণা দিতেও দেখা গেছে।

বিকেল সোয়া ছয়টার মধ্যে হলরুমের ছয়শ’ আসন পূর্ণ হয়ে যাওয়ার পরও সাংবাদিকসহ দলে দলে নেতাকর্মী আসতে থাকে। এসময় তাদের বসতে দেয়ার ক্ষেত্রে দেখা গেছে আয়োজকদের নির্বিকার ভাব। ইফতার শুরুর আগেই তাই শুরু হয়ে যায় হৈ চৈ বিশৃঙ্খলা। মঞ্চে শীর্ষ নেতাদের সামনেই তুমুল হৈ চৈ শুরু করে কর্মীরা।

এদিকে মাগরিবের আজান দেয়ার সময়েও অনেক সাংবাদিক ও স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকার সম্পাদকরা ইফতার করার পনির জন্য ডাকাডাকি শুরু করেন। শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়ে টেবিলে বসা অন্য সাংবাদিকদের সঙ্গে ইফতার ভাগাভাগি করে খেতে দেখা গেছে। আর পরিবেশন করা ইফতারও ছিল খুবই নিম্নমানের।

অবশ্য সভাপতির বক্তব্যে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার অপ্রীতিকর এ ঘটনার জন্য উপস্থিত সবার কাছে ক্ষমা চান। তিনি বলেন, ‘আয়োজনের তুলনায় মানুষ বেশি হওয়ার কারণেই এটা হয়েছে। তবে এটা ভালো লক্ষণ।’

সাংবাদিকদের সম্মানে ইফতারের আয়োজন করা হলেও তাদের কেন বসতে দেয়া হয়নি এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তৈমূর বলেন, ‘এটা তো বিএনপি, বুঝতে হবে।’

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির ব্যানারে ইফতারের আয়োজন করা হলেও এর মূল উদ্যোক্তা ছিলেন নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল। তবে খাবারের অভাবে তিনি নিজেও ইফতার ভাঙতে পারেননি। কামাল বলেন, ‘ছয়শ মানুষের আয়োজন করা হলেও উপস্থিত হয় দ্বিগুন। এ কারণেই এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।’

উল্লেখ্য, মিলনায়তনে ছয়শ’ জনের বসার আসন ছিল। সবগুলো আসন পূর্ণ হওয়ার পরে দেড় শতাধিক লোক দাঁড়িয়ে ছিলেন। তারা কেউই ঠিকমত ইফতার পাননি। তবে অভিযোগ রয়েছে, ইফতার উপলক্ষ্যে নেতাকর্মীরা কয়েক লাখ টাকার চাঁদাবাজি করেছে। বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ