• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৬:০১ পূর্বাহ্ন |

রাজউক এখন এমদাদ সাম্রাজ্য

85725_1সিসিনিউজ: রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) এখন এমদাদ সাম্রাজ্য। প্লট বরাদ্দ থেকে শুরু করে ঠিকাদারি কাজ- সবই হয় এই এমদাদের হুকুমে। মন্ত্রী-এমপি ও প্রভাবশালী রাজনীতিকদের নাম ভাঙিয়ে বছরের পর বছর প্রভাব খাটিয়ে তিনি এখন রাজউকের অঘোষিত রাজা। তার ম্যাজিকে ছোট প্লট হয় বড়, আর বড় হয় ছোট। বহু সম্পদের মালিক বনে যাওয়া এই এমদাদের পুরো নাম মো. এমদাদুল ইসলাম। তিনি রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, যখন যে সরকার ক্ষমতার এসেছে ওই সরকারের সঙ্গেই সুসম্পর্ক গড়ে তোলেন এমদাদুল ইসলাম। ‘ম্যানেজ মাস্টার’ উপাধি পাওয়া এমদাদুল ইসলাম শুধু প্লট বাণিজ্য বা ঠিকাদারি কাজের কমিশন বাণিজ্যেই জড়িত নন। প্রভাব খাটিয়ে জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে নিজের স্ত্রীর নামে বরাদ্দ দেওয়া ১০ কাঠার প্লট বাড়িয়ে সাড়ে ১২ কাঠা করিয়ে নিয়েছেন। নিজের নামে উত্তরায় প্লট নেওয়া ছাড়াও বিভিন্ন এলাকায় নামে-বেনামে অসংখ্য প্লটের মালিক হয়ে আছেন তিনি। আত্দীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব- কাউকেই বাদ দেননি। বরাদ্দ দিয়েছেন প্লট। তার দুর্নীতি আর অনিয়মের জাল রাজউককে আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে আছে অক্টোপাসের মতো। পুরো রাজউক এখন এই এমদাদের কাছে জিম্মি। বিএনপি জমানায় ছিলেন মির্জা আব্বাসের খাস লোক। আবদুল্লাহ আল নোমানের আত্দীয়। আওয়ামী লীগ আমলে বলে বেড়ান শেখ কবির হোসেনের সুবাদে নাকি শেখ পরিবারের আত্দীয়। জাসদের মইনুদ্দিন খান বাদলেরও সজ্জন। রং বদলাতে পারেন তিনি। লুটেরা সাবেক পূর্ত প্রতিমন্ত্রী মান্নান খান আর রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল হুদার সঙ্গে মিলেমিশে বহু কামিয়েছেন এই দুর্নীতির বরপুত্র।

সূত্র জানায়, নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে গুলশান, উত্তরা, পূর্বাচল ও ঝিলমিল প্রকল্পে পরিচিতদের বেশ কিছু প্লট বরাদ্দ দিয়ে হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা। এ ছাড়া নিজের অনিয়ম আর দুর্নীতি ঢাকতে প্রভাবশালীদের মধ্যে বেশ কিছু প্লট বিতরণ করেছেন। কিন্তু এর পরেও ধরা পড়েছেন তিনি। দুর্নীতির মামলার চাজর্শিটভুক্ত আসামি এই এমদাদ দেড় বছর জেলেও ছিলেন। চাকরির শেষ সময়ে এসে টাকা কামানোর ধান্ধায় বেপরোয়া হয়ে পড়েছেন এমদাদুল ইসলাম। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চাকরি জীবনের শুরু করেন রাজউক থেকেই। ছোট পদ থেকে পদোন্নতি পেয়ে তিনি এখন প্রধান প্রকৌশলী। দীর্ঘ চাকরি জীবনে রাজউকের প্রতিটি চেয়ার-টেবিল সম্পর্কে তিনি অবগত। যে কারণে একক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে বেগ পেতে হয়নি এমদাদকে।

সাড়ে বার কাঠা প্লট ও হলফনামায় মিথ্যা তথ্য : প্রধান প্রকৌশলী এমদাদুল ইসলাম তার নিজের স্ত্রী সামিনা ইসলামের নামে ১০ কাঠার প্লট বরাদ্দ নেন ২০০৩ সালে। সেক্টর ১১, রোড ২০৪ এর ৩০ নাম্বার প্লট বরাদ্দ পাওয়ার পর ১০ কাঠা আয়তনের প্লট বাবদ সমুদয় অর্থ পরিশোধ করেন। গত বছরের ৮ মে জমির দখল নিতে গিয়ে এমদাদুল ইসলাম দেখেন তার প্লটের আয়তন হয়েছে ১২ কাঠা ২ ছটাক ১১ বর্গফুট। তার স্ত্রীর প্লট সংক্রান্ত নথি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বর্ধিত জমি চেয়ারম্যানের অনুমোদন ক্রমে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ জন্য গত বছরের ১১ আগস্ট সামিনা ইসলামের কাছ থেকে ১২ লাখ ৮৪ হাজার ১৬৭ টাকা আদায় সাপেক্ষে এ বরাদ্দের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। এর পর সব কাজই হয়েছে দ্রুততার সঙ্গে। একই মাসে বর্ধিত জমিসহ সামিনা ইসলামকে প্লটের দখল দেওয়া হয়েছে। ১৫ সেপ্টেম্বর এমদাদের স্ত্রী প্লটের লিজ দলিল করার জন্য রাজউকের উপ-পরিচালক (এস্টেট-৩) বরাবরে একটি আবেদন করেন। ওই আবেদনের ভিত্তিতে সামিনা ইসলামের স্বামী এমদাদের নামে কোনো প্লট আছে কিনা তা যাচাইয়ের জন্য এমআইএস শাখায় পাঠানো হয়। ২৯ সেপ্টেম্বর এমএসআই শাখা তাদের মতামতে জানায়, বরাদ্দ গ্রহীতা সামিনা ইসলাম স্বামী মো. এমদাদুল ইসলামের নামে আজ পর্যন্ত এন্ট্রিকৃত তথ্যের মধ্যে একাধিক এন্ট্রি পাওয়া যায়নি। বরাদ্দ গ্রহীতার স্বামী এমদাদুল ইসলামের নামেও কোন এন্ট্রি পাওয়া যায়নি। অনুসন্ধানে জানা গেছে, এমআইএস শাখায় প্রভাব খাটিয়ে ওই মতামত লেখাতে বাধ্য করেছেন প্লট গ্রহীতার স্বামী ও রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী। বরাদ্দ গ্রহীতার স্বামীর নামে নিকুঞ্জ (দক্ষিণ)-এ একটি ৩ কাঠা আয়তনের প্লট রয়েছে। রাজউকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সংরক্ষিত কোটা থেকে প্লটটি পেয়েছিলেন তিনি। এ ছাড়া উত্তরা ১১ ও ১৪ নাম্বার সেক্টরে নামে-বেনামে পরিবারের অন্য সদস্যদের নামেও একাধিক প্লট রয়েছে। রাজউক সূত্রে জানা গেছে, সেক্টর ১১ রোড ২বি প্লট ৮বি-এর মালিক সাইদা হামিদ। এ প্লটের মালিক সম্পর্কে এমদাদের নিকটাত্দীয়। পার্ক কেটে এ প্লটটি সৃষ্টি করা হয়েছিল। সবই হয়েছে অদৃশ্য ইশারায়। ওদিকে রাজউকের প্লট বরাদ্দের নিয়ম অনুযায়ী স্বামী ও স্ত্রী উভয়ে প্লট বরাদ্দ পেতে পারেন না। প্লট বরাদ্দ পেলেও যে কোনো একটি প্লট সমর্পণ করতে হয়। রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী অদ্যাবধি তা করেননি। তার স্ত্রী সামিনা ইসলামও লিজ দলিল রেজিস্ট্রির সময় অসত্য হলফনামা দাখিল করেছেন। ৮ সেপ্টেম্বর দাখিল করা হলফনামায় তিনি বলেছেন, এই মর্মে ঘোষণা ও অঙ্গীকার করছি যে, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পে আমার নামে কোড নং- ২৩৫৩৭ এর মাধ্যমে বরাদ্দকৃত ১১ নং সেক্টরের ২০৪ নং রাস্তার ০৩০ নং প্লট ব্যতীত রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের আওতাধীন এলাকায় (পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পসহ) কোথাও আমার নিজ নামে বা আমার স্বামীর নামে বা পোষ্যগণের নামে কোনো আবাসিক জমি বা বাড়ি পূর্বতন ডিআইটি বর্তমানে রাজউক অথবা কোনো সরকারি বা আধাসরকারি সংস্থা কর্তৃক এই হলফনামা প্রদানের তারিখ পর্যন্ত বরাদ্দ অথবা লিজ প্রদান করা হয়নি। রাজউকের এক শীর্ষ স্থানীয় কর্মকর্তা জানান, এভাবে স্বামী-স্ত্রী দুজনেরই প্লট নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এটা নিয়মের মারাত্দক ব্যত্যয়।

জেল খেটেছেন এমদাদুল ইসলাম : সরকারের ১৭টি বাড়ি রাজউকের মাধ্যমে বিক্রি করার ক্ষেত্রে ব্যাপক দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে ২০০৭ সালের ২৯ মার্চ বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক মামলা দায়ের করে। মামলায় সাবেক গণপূর্ত মন্ত্রী মির্জা আব্বাসসহ ১২ জনকে আসামি করা হয়। পরস্পরের যোগসাজশে, প্রভাব খাটিয়ে ব্যক্তিগতভাবে লাভবান হওয়ার জন্য এসব বাড়ি বিক্রির মাধ্যমে রাষ্ট্রের ১২৭ কোটি ৬৪ লাখ ১৯ হাজার ৫৯ টাকা ক্ষতি করা হয়েছে বলে মামলায় অভিযোগ আনা হয়। পরবর্তীতে এ মামলার চার্জশিটে যারা বাড়ি ক্রয় করেন তাদেরও অভিযুক্ত করা হয়। ফলে দেড় বছরের বেশি সময় এ মামলার এজাহারভুক্ত আসামি কাজী রিয়াজুল মনির, মোহাম্মদ আলী, এসএম জাফর উল্লাহ, গোলাম নবী, মীর মোশারফ হোসেন, শহীদ আলম, ইকবাল উদ্দিন আহম্মেদ, হুমায়ুন খান, আবদুস সাদেক, জিয়া উদ্দিন আহম্মেদ এবং এমদাদুল ইসলাম জেল খেটেছেন। এর পর তারা জামিনে মুক্তি পান। বর্তমানে এ মামলার আসামিরা মামলা বাতিলের দাবিতে হাইকোর্টে বাতিল আবেদন ও রিট মামলা দায়ের করেন। এর মধ্যে এ মামলার প্রধান অভিযুক্ত মির্জা আব্বাসের বাতিল আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে দিলেও পরবর্তীতে আপিল বিভাগ স্থগিতাদেশ খারিজ করে দেন। ফলে মামলা সচল হয়ে যায়। কিন্তু সহ-অভিযুক্তদের মামলা স্থগিত থাকার কারণে নিম্ন আদালতে এ মামলার বিচার কার্যক্রম এখনো শুরু হয়নি বলে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবীরা। এ ছাড়া মামলার এজাহারভুক্ত অপর আসামি কাজী রিয়াজুল মনির, মোহাম্মদ আলী, এস এম জাফর উল্লাহ, গোলাম নবী, মীর মোশারফ হোসেন, শহীদ আলম ও ইকবাল উদ্দিন আহম্মেদের মামলার কার্যক্রম হাইকোর্টের আদেশে স্থগিত রয়েছে। এ ছাড়া হুমায়ুন খান, আবদুস সাদেক এবং জিয়া উদ্দিন আহম্মেদের আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়েছে। তবে এজাহারভুক্ত আসামি এমদাদুল ইসলামের মামলার কার্যক্রম হাইকোর্ট বাতিল করেছেন। ফলে মামলাটি অনেকটা ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে।

রাজউকের সদস্য হওয়ার খায়েশ পূরণ হলো না : ৫ জানুয়ারির পর গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী পদে যোগ দিয়েছেন ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। চট্টগ্রামের অধিবাসী মন্ত্রীর কারণে নিজের এলাকাপ্রীতির সুযোগে রাজউকে ক্ষমতা দেখানো শুরু করেছেন। বিভিন্ন পর্যায়ের সিনিয়র কর্মকর্তাদের তুচ্ছতাচ্ছিল্য করছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বেয়াই শওকাত গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব পদে থাকাকালীন সদস্য হওয়ার জন্য একটি আবেদন করেন। ওই সময় আবেদনটি আলোর মুখ দেখেনি। তবে নতুন মন্ত্রী মোশাররফ যোগদানের পরপরই এমদাদের সুপারিশ সম্বলিত আবেদন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠান। তবে দুর্নীতির অভিযোগে জেল খাটাসহ নানা কেচ্ছাকাহিনী ফাঁস হয়ে যাওয়ায় সদস্য হওয়ার খায়েশ পূর্ণ হয়নি।

নোমানের ভাগি্ন ও কাজী জাফরের নাতনি জামাই : যখন যে সরকার ক্ষমতার এসেছে ওই সরকারের সঙ্গেই সুসম্পর্ক গড়ে তোলেন এমদাদুল ইসলাম। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির সাবেক মন্ত্রী ও সিনিয়র নেতা আবদুল্লাহ আল নোমানের ভাগি্ন জামাই তিনি। এ ছাড়া জাতীয় পার্টির একাংশের চেয়ারম্যান কাজী জাফরেরও নাতনি জামাই এমদাদ। মাঝে-মধ্যেই আত্দীয়ের বাসায় তার স্ত্রী বেড়াতে যান। তবে আপাতত এমদাদ কারও বাসায়ই যাচ্ছেন না। এর কারণ হিসেবে জানা গেছে, ক্ষমতার কাছাকাছি থাকার জন্যই এমনটা করছেন তিনি। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর ঢাকার এক সংসদ সদস্যের পেছনে থেকে বেশ সুবিধা আদায় করে নিয়েছেন। দুর্নীতির মামলায় আসামি হয়েও আলাদ্দিনের চেরাগের বদৌলতে চাকরি করে যাচ্ছেন।

টাকা কালেকশনে ব্যস্ত তিনি : এ বছরই চাকরি থেকে অবসরে যাচ্ছেন রাজউকের আলোচিত প্রধান প্রকৌশলী মো. এমদাদুল ইসলাম। এ কারণে টাকা কামাতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন তিনি। ঠিকাদারদের কাছ থেকে অর্থ আদায়ে নানা ছলচাতুরির আশ্রয় নিচ্ছেন। চেয়ারম্যানের কাছে গণপূর্ত মন্ত্রীর নাম ভাঙিয়ে এস্টেট শাখার বিভিন্ন তদবির করে চলেছেন। এ নিয়ে নতুন চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন এমদাদের ওপর যারপরনাই বিরক্ত বলে জানা গেছে।
উৎসঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ