• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৪৩ পূর্বাহ্ন |

২১ বছর ধরে কেন রোজা রাখছেন সঞ্জয় মিত্র?

85800_1সিসি ডেস্ক: কলকাতার বাসিন্দা, ৭১ বছর বয়সী এক হিন্দু গত ২১ বছর ধরে রমজানের সময়ে রোজা রেখে চলেছেন। অযোধ্যায় বাবরি মসজিদ ধ্বংসের বিরুদ্ধে এটা তার ব্যক্তিগত প্রতিবাদ আর সংখ্যাগরিষ্ঠ ধর্মের মানুষ হিসাবে লজ্জাপ্রকাশ।
অথচ এমন এক পরিবারের সন্তান সঞ্জয় মিত্র, যাদের বাড়িতে ১২৫ বছর ধরে দূর্গাপুজো হয়ে আসছে।

রমজানের এক বিকেলে মাগরিবের নমাজ শুরু হওয়ার একটু আগেই বাড়ী থেকে জিনস্ আর খদ্দরের ফতুয়া গায়ে সেই বাড়ী থেকে বেরিয়েছিলাম মিত্রর সঙ্গে।

কলকাতার মুসলমান প্রধান এলাকা রাজাবাজারের ঠিক যেখানে হিন্দু পাড়া শেষ হয়ে শুরু হয়েছে মুসলমান মহল্লা সেখানেই একটা মাঝারি মাপের খাবার দোকানে ঢুকতেই সবার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় হল।

একটা টেবিলে বসতে বসতে মিত্র বলছিলেন ইফতারটা বেশিরভাগ দিনই বাড়িতেই করেন, তবে মাঝে মাঝে এই দোকানেও আসেন।

‘এই দোকানটায় আসছি প্রায় ৫৫ বছর ধরে। অনেক পাল্টে গেছে। এখানেই প্রথম গোরুর মাংস খেয়েছিলাম মনে আছে। আর তার পর থেকে তো নিয়মিতই খাই,’ হাসতে হাসতে বলছিলেন মিত্র।

কথা বলতে বলতেই পাশের মসজিদে শুরু হল মাগরিবের নামাজ – আর ইফতার করে দীর্ঘদিনের চেনাপরিচিতদের সঙ্গে রোজা ভাঙ্গলেন সঞ্জয় মিত্র।

দোকানের মালিক মুহম্মদ নঈমুদ্দিন, এক কর্মী মুহম্মদ জমিরুদ্দিনের সঙ্গে একই প্লেট থেকে কলা, পাকা পেপে, শশা, খেজুর আর তরমুজ খাচ্ছিলেন মিত্র।

এই হিন্দু বন্ধুর রোজা রাখাতে একটু অবাক নন মি. নঈমুদ্দিন। তিনি বলছিলেন, ‘প্রথম যখন শুনি যে সঞ্জয় মিত্র রোজা রাখেন, শুনে খুব ভাল লেগেছিল যে একজন মুসলমানের মতোই তিনিও রোজা রাখেন। এরকম তো কোনো কথা নেই যে রোজা শুধু মুসলমানরাই রাখতে পারবে। সবাই রাখতে পারে। হিন্দুরাও তো বিভিন্ন পূজোর দিনের উপোস থাকে। আর আমাদের এটা একমাসের উপোস – ব্যাপারটা তো একই।’

কখনো বাড়িতে ফল বা রুটি খেয়ে, কখনো বা হালিম খেয়ে গত একুশ বছর ধরে রোজা ভাঙ্গছেন সঞ্জয় মিত্র।
খাবারের দোকানে আসার আগে বাড়িতে বসে মিত্র বলছিলেন অযোধ্যার বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পরে প্রতিবাদ হিসাবেই রমজান মাসে রোজা রাখতে শুরু করেন তিনি।

‘বাবরি মসজিদের ঘটনা ৯২ সালের ৬ই ডিসেম্বর। তখন আমি দিল্লিতে থাকতাম। উত্তর ভারতে তো ওই ঘটনার পরের দাঙ্গা অনেক বেশি হয়েছিল, সেই সময়ে খুব অসহায় লাগছিল – হিন্দু হিসাবে। একজন সংখ্যাগরিষ্ঠ ধর্মের মানুষ হয়ে কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলাম না। তখনই ঠিক করি যে আমি নিজেই প্রতিবাদ করব – এককভাবেই,’ বলছিলেন সঞ্জয় মিত্র।

যদিও নিয়মিত ধর্মাচরণ করেন না সঞ্জয় মিত্র, তবে মুসলমানদের ধর্মাচরণের একটা অঙ্গ – রোজা রাখা নিয়ে স্ত্রী প্রশ্ন তুলেছিলেন, তাই বছরে আরো একটা মাস উপোস করেন তিনি – গ্রাম বাংলায় চৈত্র মাসের গাজনের সময়ে।

সঞ্জয় মিত্রের কথায়, ‘কয়েক বছর রোজা রাখার পরে আমার স্ত্রী বলেছিলেন, তুমি মুসলমানদের মতো রোজা রাখ, কিন্তু নিজের ধর্মের জন্য তো কিছু কর না। তখন আমি বলি যে নমশূদ্র – যারা বেশিরভাগই ভূমিহীন কৃষক, চৈত্র মাসে কোনো খাবার থাকে না বলে গাজনের নামে ভিক্ষা করে সন্ধ্যায় একবারই খায় – আমি সেটা করতে পারি। ভিক্ষাটা পারব না, কিন্তু গাজনের উপোস করি নিয়মিত। আমার উপোস রমজান আর গাজনের।’

নিয়মিত ধর্মাচরণ করেন না বলেই যেমন মন্দিরে যান না, তেমনই রমজান মাসে পাঁচ বার নামাজও পড়েন না একসময়ের কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য আর মানবাধিকার কর্মী সঞ্জয় মিত্র।

বছরের দুমাস উপোসের সময়ে তার সঙ্গী বই আর গান।

বামপন্থী আন্দোলনে যখন যুক্ত ছিলেন, তখন যদিও দাঙ্গার সময়ে মুসলমান মহল্লায় গিয়ে সবাই মিলে রাত জেগে পাহাড়া দিয়েছেন, কিন্তু সংখ্যাগরিষ্ঠরা যখন বাবরি মসজিদ ভেঙ্গে ফেলেছে, তার প্রতিবাদটা তিনি একান্তই নিজস্ব ঢঙে করে চলেছেন – কারণ সেই ছোটবেলায় হিন্দু মুসলমান দাঙ্গায় মৃত্যুর মুখোমুখি হওয়ার স্মৃতিটাও তার একান্তই নিজের।

সূত্র: বিবিসি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ