• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪৫ পূর্বাহ্ন |

সাদিয়ার কাল হলো প্রতিযোগিতায় পাওয়া ১০ লাখ টাকা

85824_1সিসি ডেস্ক: আমাকে মেরে ফেলার জন্য কোরিয়া থেকেই পুরো প্রস্তুতি নিয়ে এসেছিল সারোয়ার। দেশের বাইরে থাকা অবস্থায় মোবাইল ফোনে আমাকে অনেকবার হুমকি দিয়েছে সে। আগে থেকেই পরিকল্পনা করা ছিল তাই আমাকে মারার জন্য কোরিয়া থেকে প্রায় ১৫টা ছুরি নিয়ে এসেছে। সেই ছুরি দিয়েই আমাকে এলোপাতাড়ি ভাবে কুপিয়েছে সে। প্রতিযোগিতায় পাওয়া ১০ লাখ টাকা স্বামীর নামে না দেয়ার কারণে স্বামীর নৃশংসতার শিকার হলেন ২০১০ স্কুলভিত্তিক প্রতিভা যাচাই প্রতিযোগিতা মার্কস অলরাউন্ডার চ্যাম্পিয়ন সাদিয়া রহমান বিপা (২০)। তার শরীরের বিভিন্ন স্থান জখম করেছে স্বামী সারোয়ার হোসেন মাসুদ। দুই হাত, বুক, বাঁ চোখের পাশে ছুরির আঘাতে ক্ষত-বিক্ষত হয়ে গেছে। বর্তমানে তিনি জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে (পঙ্গু হাসপাতালে) চিকিৎসাধীন। জখম করেই ক্ষান্ত হয়নি সারোয়ায়। মামলা করার কারণে সাদিয়ার পরিবারকে মেরে ফেলার হুমকিও দিচ্ছে। সাদিয়া চান সারোয়ারের যেন উপযুক্ত শাস্তি হয়। সাদিয়া বলেন, ২০১২ সালের অক্টোবরে বরিশালের কোতোয়ালি থানার প্রাইমারি স্কুল সড়ক এলাকার বাসিন্দা দক্ষিণ কোরিয়াপ্রবাসী সারোয়ার হোসেন মাসুদের সঙ্গে পারিবারিকভাবে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর এক মাস তারা একসঙ্গেই বরিশালে থাকেন। এক মাস পর স্বামী দক্ষিণ কোরিয়ায় চলে গেলে লেখাপড়ার জন্য তিনি ঢাকায় চলে আসেন। সারোয়ারের সঙ্গে ভালই সম্পর্ক ছিল। প্রতিদিন তাদের মধ্যে মোবাইল ফোনে কথা হয়। তবে ৫-৬ মাস যেতে না যেতেই মাসুদের রূপ পরিবর্তন হতে থাকে। শুরু হয় টাকা নিয়ে কথা। মাসুদের কথা ছিল এই ১০ লাখ টাকা তার নামে লিখে দেয়ার জন্য। কিন্তু এতে আমি রাজি ছিলাম না। আমি প্রতিযোগিতায় এই টাকা পেয়েছি- সেটা আমার মায়ের একাউন্টে থাকবে বলেছিলাম। এরপরই বিভিন্ন সময় সে আমাকে বকাবকি করতো এমনকি মেরে ফেলার হুমকিও দিতো। সাদিয়া আরও বলেন, সে যে দেশে আসবে তার কিছুই জানতাম না আমি। দেশে আসার ১৫ দিন আগে থেকে আমার সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। ২২শে জুলাই এসে সে আমাদের শাহজাহানপুরের বাসায় ওঠে। এর পরদিন রাতেই আমার ওপর হামলা চালায় সে। হামলার বর্ণনা দিয়ে সাদিয়া বলেন, ২৩ তারিখ বিকালে সবাই বসে আলোচনা করছিলেন। ওই সময়ও সারোয়ার একটা কথাই বলছিল, আমি আর কিছু শুনতে চাই না- টাকাগুলো আমার নামে দিয়ে দেয়া হোক। এই কথায় আমি আপত্তি করলে সবার সামনে আমার গলা টিপে ধরে সে। এরপর সন্ধ্যায় তার পরিবারের সদস্যরা চলে গেলে, আমার সঙ্গে টাকা নিয়ে কথাকাটাকাটি করে। তখন আম্মু তার বড় ভাইয়ের কাছে ফোন দিয়ে এ সবের সমাধানের কথা বলেন। সে সময় সারোয়ারের কাছে আম্মু ফোন দেয় কথা বলার জন্য। সারোয়ার কথা না বলে ফোন ফেলে দিয়ে আমাকে টেনে রুমে নিয়ে দরজা বন্ধ করে দেয়। বাম গালে চড় দিয়ে আমাকে বিছানায় ফেলে দেয়। আমাকে ওঠার সুযোগ না দিয়ে তার ব্যাগ থেকে ছুরি বের করে আমার উপরে ওঠে এলাপাতাড়িভাবে কোপাতে থাকেন। বাঁচার জন্য অনেক চেষ্টা করেছি। আমার আম্মু জানালা দিয়ে এসব দেখে চিৎকার করতে থাকে। তারপরও সে আমাকে রেহাই দেয়নি। সাদিয়ার মা জোছনা বলেন, আমার চোখের সামনে আমার মেয়েটাকে কুপিয়ে জখম করেছে সারোয়ার। সে ছাড়াও বরিশাল থেকে তার মা দুলু বেগম, বড় ভাই মো. খোকন ও ছোট ভাই মো. বাপ্পী আমাদের বাসায় আসে। তারা আমার মেয়েকে বরিশালে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে। কিন্তু সারোয়ার আগেই ফোনে হুমকি দেয়ায় আমার মেয়ে ভয়ে যেতে রাজি হচ্ছিল না। এক পর্যায়ে সারোয়ার আমাদের বাসায় থেকে যায়। বাকিরা চলে যায় বরিশালে। তিনি আরও বলেন, পরিবারের সদস্যরা চলে যাওয়ার পর রাত সাড়ে আটটার দিকে সারোয়ার আবার ওই টাকার জন্য সাদিয়ার সঙ্গে কথা কাটাকাটি শুরু করে। তখন তার বড় ভাই খোকনকে ফোন দিলে সে বলে ১০ লাখ টাকা দিয়ে সরোয়ারের সঙ্গে সাদিয়াকে পাঠিয়ে দিতে বলেন। তখন খোকন ফোনেই সারোয়ারের সঙ্গে কথা বলতে চান। আমি তার হাতে ফোনটা দিলে সে ফোনটা নিয়েই ছুড়ে ভেঙে ফেলে। উত্তেজিত হয়ে আমাকে বের করে দিয়ে দরজা ভেতর থেকে বন্ধ করে দেয়। আমি চিৎকার করে জানালা দিয়ে দেখি, আমার মেয়েকে ছুরি দিয়ে এলোপাতাড়ি আঘাত করছে সারোয়ার। ঘটনার পর দরজা খুলে পালানোর চেষ্টা করে সারোয়ার। কিন্তু আমার চিৎকার-চেঁচামেচি শুনে বাসার নিরাপত্তাকর্মী ও প্রতিবেশীরা সারোয়ারকে ধরে ফেলে। পরে পুলিশকে খবর দিলে সারোয়ারকে আটক করেন তারা। ওই সময় পুলিশ একটি রক্তমাখা ছুরিও উদ্ধার করে। এ ঘটনায় সারোয়ারের মা দুলু বেগম এবং দুই ভাই খোকন ও বাপ্পীর নাম উল্লেখ করে শাহাজাহানপুরে একটি মামলা করেন জোছনা রহমান। তখন গুরুতর আহত অবস্থায় সাদিয়াকে উদ্ধার করে প্রথম ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখান থেকে পাঠানো হয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে। সেখানে প্রাথমিক অস্ত্রোপচার শেষে চিকিৎসকেরা হাতের হাড়ের আঘাতের চিকিৎসার জন্য পাঠান পঙ্গু হাসপাতালে। পঙ্গু হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. জিয়াউল হক বলেছেন, সাদিয়া ডান হাতের অবস্থা গুরুতর। কারণ তা হাতের সব ক’টা রগ অকেজো হয়ে গেছে। জোছনা জানান, ২০১২ সালে মতিঝিল মডেল স্কুল থেকে বিজ্ঞান বিভাগে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পায় সাদিয়া। সিদ্ধেশ্বরী গার্লস কলেজ থেকে এ বছর উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছে। ‘মার্কস অলরাউন্ডার’ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে সে বিজয়ী হয়েছে। রাজধানীর দক্ষিণ শাহজাহানপুরে পরিবারের সঙ্গেই থাকেন সাদিয়া। এ ঘটনায় সাদিয়ার মা বাদী হয়ে মামলা করার পর সারোয়ারের হুমকি-ধমকি দিচ্ছে এবং বরিশালে থাকা সাদিয়ার আত্মীয়-স্বজনকেও মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। এ ঘটনায় মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহজাহানপুর থানার এসআই গোলাম মোস্তফা বলেন, টাকার জন্যই তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে এই দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। সাদিয়াকে ছুরিকাঘাত করে। এই ঘটনায় মামলা হয়েছে এবং আসামিকেও গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ