• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১০:১৪ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুর স্টেশন এখন কালোবাজারিদের দখলে, তিনগুণ মূল্যে বিক্রি হচ্ছে ট্রেনের টিকিট

dhaka ferar tiketএম আর মহসিন, নীলফামারী: ঈদের  তিন দিন আগে থেকেই প্রতিদিন ভোরে সৈয়দপুর রেল ষ্টেশন যাওয়া-আসা করছেন আঃ রশীদ মাষ্টার। কারণ ঈদের পরের দিন তার  ছেলে পরিবার নিয়ে  ঢাকায় ফিরবে আর যোগ দেবে নিজ কর্মে। প্রাইভেট ফার্মের চাকরি হওয়ায় বাধ্যতা ফেরার তাগিদে অবশেষে দীর্ঘ লাইনে দাড়িয়ে গত ২৮জুলাই নীল সাগর ট্রেনের টিকিটটি ভাগ্যে জোটে এ সত্তর্ধ শিক্ষকের।  আর একই ভাবে ঈদ শেষে প্রিয়জনদের নির্বিঘ্নে কর্মস্থলে ফেরার জন্য প্রায় শতাধিক টিকিট প্রত্যাশি প্রকাশ্যে কালোবাজারিদের দৌরাত্ব্য দেখে হতভম্ব বনে যান। আর ব্যবসায়িক ফায়দা হাসিলের একই ব্যক্তি প্রতিদিন লাইনে দাড়িয়ে টিকিট নিলেও সংশ্লিষ্টরা কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন গন্তব্যে ফেরত যাত্রি ও তাদের আত্মীয়রা।
সৈয়দপুর  রেলওয়ে ষ্টেশন সূত্রে জানা যায়, গত ১৬ জুলাই এ ষ্টেশন থেকে নীলসাগর, সীমান্ত, রকেট, রুপসা, তিতুমীর, বরেন্দ্র ৪ দিনের ব্যবধানে ঢাকা, রাজশাহী, খুলনা, যশোর গন্তব্য গুলোতে ফেরার টিকিট দেয়া শুরু হয়।  যাত্রিদের সারিবদ্ধ লাইনের মাধ্যমে চলে প্রতিদিন সকাল ৯ টা থেকে টিকিট প্রদানের কাজ। এ ৬টি ট্রেনের প্রায় ৫৫০ টিকিট প্রতিদিন দেয়া হচ্ছে যাত্রিদের হাতে।
তবে ফেরার টিকিট প্রদান ঈদের ১৫ দিন আগে শুরু হলেও তখন তেমন ভীড় ছিলনা বলে জানান, কাউন্টারের টিকিট বুকিং মাষ্টাররা। শুধূ ঈদের ২ থেকে ৩ দিন পর বিভিন্ন স্থানে ফিরতে আগাম টিকিটের জন্য যাত্রিদের ভীড় এখন বাড়ছে। গত সোমবার ঈদের আগের দিন সৈয়দপুর রেল ষ্টেশনে সকাল ৭ টায় গিয়ে দেখা যায়, টিকিট কাউন্টারের জানালা থেকে চেয়ার, টেবিল বসানো দীর্ঘ লাইন। শতাধিক যাত্রি টিকিটের আশায় বসে আছেন। ৬ ট্রেনের টিকিট দেয়া হলেও বেশির ভাগই নীলসাগর ট্রেনের ঈদের পরের ঢাকা ফেরৎ যাত্রি। তবে এসকল যাত্রির মধ্যে ষ্টেশন এলাকার যুবকরাই বেশি। ওই ষ্টেশনে নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক কুলি জানান, ঈদের দিন যখন ঘনিয়ে এসেছে ৪ দিনের ব্যবধানের হিসেবে  শুধু ঢাকা ফেরত যাত্রির সংখ্যা বাড়ছে। তাই ঈদের তিন দিন আগে গভীর রাতে স্থানীয়রা এসে চেয়ার-টেবিল লাগিয়ে সিরিয়াল নেয়। কারণ প্রতিবারই এ টিকিট কিনে লাভবান হয়েছেন তারা। বিশেষ করে ঈদের পরের দিন ৪৩৫ টাকার একটি টিকিট দেড় থেকে দুই হাজার টাকায় বিক্রি হয়। টিকিট কাউন্টারের  লাইনে দাড়িয়ে থাকা আঃ রশিদ (৬০) নামে এক যাত্রি জানান, ঈদের পরের দিনই আমার ছেলেকে ঢাকায় পৌছতে হবে। তাই তিন ধরে ভোরে আসছি এখানে। কিন্তু পাইনি। অবশেষে আজকে (২৮ জুন) মিলল। অথচ প্রতিদিন একই লোক টিকিট নিলেও পরের দিন আবার তাকেই টিকিট দেয়া হচ্ছে। একই অভিযোগ করেন অন্যন্য টিকিট প্রত্যাশিরাও। এ নিয়ে সৈয়দপুর রেল ষ্টেশনের বি. এ .ওয়ানের টিকিট বুকিং ইনচার্জ মোঃ রেজাউল হক জানান, ঈদের পর নীলসাগরে ভ্রমনে ঢাকা যাওয়ার বেশি যাত্রি আসে। আমাদের ২১৫টির বেশি টিকিট দেয়ার নিয়ম না থাকায় দিতে পারি না। তাই এ সুযোগটি কেহ কাজে লাগিয়ে অতিরিক্ত আয় করলেও করার কিছু নেই। তবে করো কাছে টিকিট বাবদ অতিরিক্ত অর্থ নেয়া হচ্ছে না।  তবে কালো বাজারিতে টিকিট প্রদানের বিষয়টি বুকিং সহ ষ্টেশন মাষ্টার মোঃ শামসুর রহমান ও এড়িয়ে যান। তিনি এ প্রতিবেদককে আরো বলেন,একজন সবোর্চ্চ ৪টি টিকিট পাচ্ছে। এক্ষেত্রে কোন কালোবাজারিকে প্রকাশ্যে টিকিট দেয়া হচ্ছে না। আর প্রমান পেলে অবশ্যই আমরা ব্যবস্থা নিব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ