• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৫:০৭ অপরাহ্ন |

ঈদে বিনোদন কেন্দ্রে চলছে উপচেপড়া ভিড়

a1সিসিনিউজ: পবিত্র ঈদ উল ফিতরের দিন থেকে ঈদ উৎসবের মধ্যে  বিনোদন কেন্দ্রে  চলছে উপচেপড়া ভিড়।

দেশের উত্তরাঞ্চলের দিনাজপুরের স্বপ্নপুরী ও রামসাগর, নীলফামারীর নীলসাগর ও তিস্তা ব্যারেজ, রংপুরের ভিন্নজগত, আনন্দভুবন, মায়া ভুবন, চিড়িয়াখানায় শিশুদের পাশাপাশি তরুণ-তরুণীদেরও ভিড় রয়েছে প্রচুর। সৈয়দপুর শহরের সেনানিবাসে অবস্থিত মিনি চিড়িয়াখানায় উপচেপড়া ভীড় বিদ্যমান।

ভিড় থাকবে সপ্তাহ খানিক ধরে। শহরের শিশু ও তরুণ-তরুণীদের পাশাপাশি গ্রামাঞ্চল এবং বাইরে থেকে ঈদের ছুটিতে বেড়াতে আসা শিশুদের কারণে ভিড় আরো বেড়েছে।

ছুটির অবসরে পাহাড় আর হ্রদের শহর রাঙামাটিতে জমেছে উৎসবের আমেজ। হাজারো পর্যটকের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে পাহাড়ী শহর রাঙামাটি।

ঈদের ছুটির সঙ্গে সরকারি বন্ধ যোগ হওয়ায় দীর্ঘ ছুটির আমেজ নিয়ে এই পাহাড়ী শহরে বেড়াতে আসছেন কয়েক হাজর ভ্রমণপিয়াসী পর্যটক। শহরের আবাসিক হোটেলগুলোতে বুকিং রয়েছে আগামী ৫ তারিখ পর্যন্ত।

রাঙামাটিতে বসবাসকারী শহরবাসী নানা কাজের ব্যস্ততার মাঝে একবিন্দু অবসরে ছুটে যাচ্ছেন শহরবর্তী পেদাতিংতিং, সুভলং, বালুখালী কিংবা টুকটুক ইকো ভিলেজে। এই ছুটিতে দেশের নানা প্রান্ত থেকে বাস-মাইক্রো-জিপ আর নানা গাড়িতে আসছেন পর্যটকরা। তবে ছুটির দিনগুলোতে এই সংখ্যা কয়েকগুন বেড়ে যায়।

ঈদকে কেন্দ্র করে টানা সরকারি ছুটি থাকার কারণে বান্দরবনে এবার হয়তো পর্যটকের আগমন যে কোনো বছরের তুলনায় বেশি হবে।

শহরের ফিষ্ট রেষ্টুরেন্ট এর ম্যানেজার শাহাদাৎ উর রহমান বলেন, গত বছর পর্যটন ব্যবসার ক্রান্তিকাল অতিক্রম হয়েছে, এবার ব্যবসা ভালো হবে বলে আশা করছি।

এ দিকে পর্যটন স্পটে নৌ পথের যাতায়ত বেশ ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার কারণে বান্দরবানের থানছি উপজেলার দূর্গম তিন্দু ও রেমাক্রি ইউনিয়নের নাফা কুম ঝর্না, ছোট মদক,বড় মদক, তিন্দু বড় পাথর এলাকায় আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পর্যটক যাতায়তে মানা রয়েছে উপজেলা প্রশাসনের।

বান্দরবান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ আহম্মেদ বলেন,পর্যটক আগমনের বিষয়টি মাথায় রেখে আমরা জেলার পর্যটন কেন্দ্রগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করব।

রাঙামাটি : পবিত্র ঈদুল ফিতরের ছুটির অবসরে পাহাড় আর হ্রদের শহর রাঙামাটিতে জমেছে উৎসবের আমেজ। হাজারো পর্যটকের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে পাহাড়ী শহর রাঙামাটি।

ঈদের ছুটির সঙ্গে সরকারি বন্ধ যোগ হওয়ায় দীর্ঘ ছুটির আমেজ নিয়ে এই পাহাড়ী শহরে বেড়াতে আসছেন কয়েক হাজর ভ্রমণপিয়াসী পর্যটক। শহরের আবাসিক হোটেলগুলোতে বুকিং রয়েছে আগামী ৫ তারিখ পর্যন্ত।

অভিজাত আবাসিকস্থল পর্যটন মোটেল, হোটেল সুফিয়া, হোটেল গ্রীণ ক্যসেল, নীডস হিলভিউ  এ পর্যাপ্ত পরিমাণ বুকিং রয়েছে বলে জানিয়েছেন হোটেল ব্যবস্থাপকরা। তবে ঈদের আমেজে শহরের খাবার হোঠেলগুলো বন্ধ থাকায় অতিথি পর্যটকদের বেশ ভোগান্তি সহ্য করতে হচ্ছে।

বেড়াতে আসা পর্যটকদের নানা ভোগান্তি আছে, তবু বাঁধ ভাঙা আনন্দ সবার চোখেমুখে। ঢাকা থেকে রাঙামাটি বেড়াতে আসা পর্যটক শিলা জানান- রাঙামাটি অত্যন্ত সুন্দর একটি শহর।

এই শহরটিতে নিয়ে আরো গোছালো এবং পরিকল্পিত চিন্তা ভাবনা করা হলে এর পর্যটন সম্ভাবনা শতভাগ কাজে লাগানো যাবে। পর্যটনের ঝুলন্ত সেতু, সুভলং ঝর্ণা কিংবা রাজবনবিহারে সর্বত্রই এখন হাজারো মানুষের সরব উপস্থিতি। কোথাও সামান্য ফাঁকা নেই। আর নিরাপত্তা ও সার্বিক পরিস্থিতি নিয়েও সন্তুষ্ট পর্যটকরা।

এদিকে, ঢাকা থেকে বেড়াতে আসা ছাত্র রাকিবুল হাসান বলেন, এখানকার পরিবেশটা খুব ভালো। এখানকার লেক,ঝর্ণা খুবই সুন্দর। চট্টগ্রাম থেকে ঘুরতে আসা চাকরিজীবী সুকুমার রায় ও সহধর্মীনি মৌসুমী রায় বলেন, এখানকারা প্রকুতি ও পরিবেশ খুব ভালো লাগে। সুভলং ঝর্ণা, রাজবনবিহার, কাপ্তাই হ্রদে ভ্রমণ করালাম। খুব ভালো লাগছে।

এদিকে, রাঙামাটিতে বসবাসকারী শহরবাসী নানা কাজের ব্যস্ততার মাঝে একবিন্দু অবসরে ছুটে যাচ্ছেন শহরবর্তী পেদাতিংতিং, সুভলং, বালুখালী কিংবা টুকটুক ইকো ভিলেজে। এই ছুটিতে দেশের নানা প্রান্ত থেকে বাস-মাইক্রো-জিপ আর নানা গাড়িতে আসছেন পর্যটকরা। তবে ছুটির দিনগুলোতে এই সংখ্যা কয়েকগুন বেড়ে যায়।

এদিকে, রাঙামাটি পর্যটনের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক কাজী শামসুল হক এ প্রতিবেদককে বলেন-আমাদের এখন মোটেলে শতভাগ বুকিং চলছে,আগামী ৫ আগষ্ট পর্যন্ত রুম বুকিং রয়েছে। সবমিলিয়ে পর্যটন শহর রাঙামাটিতে এখন বইছে উৎসবের আমেজ। তবে শত সীমাবদ্ধতা আর বৈরি আবহাওয়া সত্ত্বেও নুন্যতম উৎসাহের যেনো কমতি নেই বেড়াতে আসা পর্যটকদের। ঘরে ছেড়ে বাইরে আসার সাময়িক বিচ্ছিন্নতার দিনগুলোকে রঙিন করে তুলেছেন তারা ঈদ উদযাপনের নানান ভঙ্গীতে।

– See more at: http://www.risingbd.com/new/detailsnews.php?nssl=26465cf039fb18d0f729270ed9074f7e#sthash.P9iG5RDH.dpuf


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ