• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১০:১৬ পূর্বাহ্ন |

বগুড়ায় পাহাড়ি কমলার চাষ

BOGRA-orangeবগুড়া: এবার বগুড়ার কমলা বিক্রি হচ্ছে নিজ জেলার বিভিন্ন বাজারে। সমতল জমিতে মিষ্টি কমলা চাষ করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছেন বগুড়ার শাজাহনপুর উপজেলার কমলা চাষি রেজওয়ান।

চলতি বছর নিজ বাগান থেকে খোলা বাজারে কমলা বিক্রি করেছেন। এবার জমি বাড়িয়ে শুরু করলেন বাণিজ্যিক কমলা চাষ। মিষ্টি কমলা চাষ করে রেজওয়ান যেমন সফলতা পেয়েছেন তেমনি নিজেকে সাবলম্বী করার পাশাপাশি সংসারে ফিরে এনেছেন সুদিন। বেসরকারি সংস্থার চাকরি ছেড়ে দিয়ে রেজওয়ান নিজ জমিতে শ্রম দিয়ে নিজের ভাগ্য ঘুচিয়েছেন।

লেবু জাতীয় ফলের মধ্যে বাংলাদেশের কমলা সবচেয়ে জনপ্রিয়, সুগন্ধি ও ভিটামিন ‘সি’ সমৃদ্ধ ফল। এদেশের সিলেট, মৌলভীবাজার ও পার্বত্য অঞ্চলে কমলার ভালো ফলন হলেও সমতল জমিতে কমলা চাষ এখনও লাভজনক এবং জনপ্রিয় হয়ে উঠেনি। কিন্তু এই সমতল জমিতে মিষ্টিজাতের কমলা চাষের উদ্যোগ নেন বগুড়ার শাজানপুর উপজেলার করতোয়া নদীর পূর্বপারের খলিসাকান্দি গ্রামের রেজওয়ান।

২০০১ সালে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর সংসারের হাল ধরতে হয় তাকে। সংসারের খরচ মেটাতে ওই সময় একটি বেসরকারি সংস্থায় চাকরি নেন। সেখানের মাসিক বেতন দিয়ে ৫ জনের সংসার আর চলেনা। সংসারের আয় বৃদ্ধিতে তিনি প্রথমে বাড়ির পাশের ৫ শতক জমিতে একটি নার্সারি তৈরি করেন। সেখানে বিভিন্ন প্রজাতি ফুল ও ফুলের চারা উৎপাদন শুরু করেন। টানা দুই বছর ফুল চাষের পর সফলতা পান। এ সফলতায় শাজাহানপুর উপজেলা পর্যায় ফুল চাষের পুরস্কারও পান।

২০০৫ সালে বগুড়া শহরের একটি নার্সারি থেকে ১শ কমলার চারা সংগ্রহ করে রোপন করেন। ২০০৮ সালে কমলার ফলন হলেও প্রথম দিকে স্বাদে টক হওয়ায় সেসব বাজারে বিক্রি করা যেতো না। পরে নিজ বুদ্ধি মত্তায় ওই কমলা গাছের সঙ্গে মিষ্টি জাতের বাতাবি লেবুর চারার জোর কলম করেন। মাটির সার, জৈব সার বৃদ্ধি থেকে শুরু করে বাড়তি যত্ন নিতে থাকে এবং স্থানীয় কৃষি অফিসে যোগাযোগ করেন।

২০১০ সালে প্রথম মিষ্টি কমলার ফলন পান। মিষ্টি কমলার ফলন হলে বেসরকারি সংস্থার চাকরিটা ছেড়ে দেন। পরের বছর আরো ভালো ফলন পান। পরবর্তী বছরে কমলার ফলন তুলনামূলকভাবে বৃদ্ধি পায় এবং প্রতিটি কমলার স্বাধ মিষ্টি হয় এবং ৫ থেকে ৭ বছর বয়সি কমলার প্রতিটি গাছে ফলন ধরে দেড়শোরও বেশি। তার বাগানের কিছু কিছু গাছে এখনো ফলন হচ্ছে।

স্থানীয় বাজারে ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেছেন কমলা। চলতি বছর দুই বিঘা জমি লিজ নিয়ে মিষ্টি জাতের প্রায় ২শ গাছ লাগিয়ে কমলার চাষ শুরু করেছেন। আবহাওয়া পক্ষে থাকলে গাছগুলোতে আগামী কমলার মৌসুমেই ফল পাওয়া যাবে। রেজওয়ান আশা করছেন আগামী মৌসুমে প্রায় ৩০ হাজার পিস কমলার উৎপাদন হবে।

কমলা চাষি রেজওয়ান বলেন, ‘মিষ্টি জাতের কমলা চাষ করে বগুড়ায় কৃষি ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন সম্ভব। শুধু পাহাড়ি অঞ্চল নয়, এই জাতের কমলা এখন সমতল ভূমিতে চাষযোগ্য।’

তিনি আরও জানান,  এ বছর স্থানীয় বাজারে বেশ কিছু কমলা বিক্রি করা হয়েছে। কমলার বাগান করে সংসারের আয় বেড়েছে। এখন আর কোনো চাকরি করিনা। কমলার বাগান এবং নার্সারি করে যে আয় হয় তা দিয়ে সংসারের সব খরচ মেটানো সম্ভব। এবার প্রায় ২শ গাছ দিয়ে জমি বাড়িয়ে বাগান করা হয়েছে।

টানা ৫ বছর নিজের চেষ্টায় মিষ্টি জাতের কমলা উদ্ভাবিত করে এবং নিজেই চাষ করে ও কলম করা চারা বিক্রি করে অর্থনৈতিক পরিবর্তনও ঘটিয়েছে রেজওয়ান। তার নার্সারিতে বিভিন্ন এলাকার চাষিরা আসছেন এখন কমলার চারা সংগ্রহ করতে। এদিকে বাতাবি লেবুর সঙ্গে জোর কলম করে মিষ্টি কমলা ফলন পাওয়ার মধ্যে দিয়ে তার সংসারেও আলো ফুটে উঠেছে।

বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমীর পরিচালক (কৃষি বিজ্ঞান) একে এম জাকারিয়া জানান, সমতল জমিতে মিষ্টি জাতের কমলা চাষ আমাদের হতবাক করে দিয়েছে। রেজওয়ান নিজের বুদ্ধিতে মিষ্টি কমলার চাষ করে সফলতা পেয়েছেন। স্থানীয় বাজারে এমনিতেই কমলার অনেক চাহিদা রয়েছে। কমলা বিক্রি করে একটি পরিবার নিশ্চিতভাবে মাসিক খরচ মেটাতে পারবে। মাঠ পর্যায় অন্যান্য কৃষকদের কমলা চাষে উৎসাহিত করা হবে। সংগৃহিত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ