• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১১:২০ পূর্বাহ্ন |

গ্রিসে ন্যায়বিচার পেলেন না ২৮ বাংলাদেশি

bangladeshi-wb_1_32455_0ঢাকা: ২৮ জন বাংলাদেশি স্ট্রবেরি শ্রমিকদের গুলি করার দায়ে অভিযুক্ত খামার মালিককে নিঃশর্ত মুক্তি দিয়েছে গ্রীসের এক আদালত। বাংলাদেশি শ্রমিকরা ছয় মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে আন্দোলন করলে তাদের উপর গুলি চালায় স্থানীয় ওই কৃষক।
গ্রিসের ওই আদালতের দেয়া রায়ের নিন্দা জানিয়েছেন দেশটির রাজনীতিবিদসহ বিভিন্ন সংগঠন এবং বর্ণবাদবিরোধীরা। তাদের অভিযোগ, ন্যায়বিচার করেনি আদালত। এই রায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহ্বানও জানিয়েছে তারা। কেবল মানবাধিকার কর্মী না, পার্লামেন্টে বিরোধীদলের পক্ষ থেকেও তীব্র প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে। রায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহ্বানও জানানো হয়েছে বিভিন্ন সংগঠন থেকে।
বাদী পক্ষের আইনজীবি মোসিস কারাবিইদিস বলেন, ‘গ্রিসের জন্য আমার লজ্জা হচ্ছে। এটি অবশ্যই ঘৃণ্য এবং নিন্দনীয় সিদ্ধান্ত। আদালত নির্যাতিত ব্যক্তির উপর অবিচার করেছে।’
এই রায় ঘোষণার পরে আদালতের বাইরে গ্রিসে বসবাসরত প্রবাসীরা বিক্ষোভ দেখিয়েছে। আদালতের রায়ে যে দুজনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে এদের মধ্যে একজন ওই স্ট্র্যাবেরি খামারের মালিক। তার বিরুদ্ধে মানবপাচারের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া অভিযুক্ত অপর দুজনকে ১৪ বছর সাত মাস এবং আট বছর সাত মাসের কারাদ-ের আদেশ দেয়া হলেও, আপিল আবেদনের ভিত্তিতে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। ওই দুজনের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে আগ্নেয়াস্ত্র রাখা এবং হামলার অভিযোগ আনা হয়।
গত বছর এপ্রিলে গ্রিসের এক স্ট্র্যাবেরি খামারে অভিবাসী কর্মীরা তাদের বকেয়া বেতনের দাবি জানাতে গেলে সেখানকার একজন সুপারভাইজার তাদের উপর গুলি চালায়। এতে ২৮জন শ্রমিক আহত হন। আহত কর্মীরা সকলেই বাংলাদেশি। খামার মালিক ও সংশ্লিষ্ট সুপারভাইজারকে গ্রেপ্তার করা হয়।
ছয় বছর ধরে চলা অর্থনৈতিক মন্দার সময় সে সময় গ্রিসের পরিস্থিতি ছিল টালমাটাল। দারিদ্র, বেকারত্বের কারণে সারা দেশেই তৈরি হয় ক্ষোভ। তখনই ঘটে এই গুলি চালানোর ঘটনা। গণমাধ্যমের অনুসন্ধানে দেখা যায়, অভিবাসী শ্রমিকরা সে সময় অমানবিক পরিবেশে কাজ করতে বাধ্য হয়।
এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশি শ্রমিকদের বিক্ষোভে গুলি চালানোর ঘটনার মামলার রায় নিয়ে গোটা দেশেই তৈরি হয়েছে বিরূপ প্রতিক্রিয়া। মানবাধিকার কর্মী এবং রাজনীতিবিদদের কেউ কেউ বলছেন, বুধবারের এই রায় গ্রিসের জন্য একটি খারাপ দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। এটি বিদেশি শ্রমিকদের ক্ষুব্ধ করে তুলতে পারে।
গ্রিসের পার্লামেন্টে বিরোধী দলের সদস্য ও বামপন্থি দলের নেতা ভাসিলিকি কেট্রিভানো বলেন, ‘বিদেশি শ্রমিকদের মধ্যে এই বোধ জাগতে পারে যে, গ্রিসে তাদের কোনো মূল্য নেই। তাদেরকে পশুর মতো গুলি করে মারা হলেও তার কোনো বিচার হবে না’।
গ্রিসের ফলের খামারগুলোতে কাজ করা শ্রমিকদের বড় অংশই অভিবাসী। ম্যানোলাদায় শ্রমিকদের সঙ্গে যে ব্যবহার করা হয়েছে তা বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা না বলেও মনে করেন এই রাজনীতিক।
এই রায়ের ফলে নির্যাতনের শিকাররা প্রতিকারের জন্য আদালতে যেতে নিরুৎসাহিত হবেন বলেও মনে করেন ভাসিলিকি কেট্রিভানো। এই রায়ের জন্য ক্ষমতাসীন দলকে দায়ী করেন বিরোধীদলীয় এই রাজনীতিক।
এই মামলায় গ্রিসের খামার মালিকরা দেশের শীর্ষস্থানীয় আইনজীবীদেরকে নিয়োগে করে তাদের পক্ষে। রাষ্ট্রপক্ষ এই মামলায় দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করলেও ৪০ জনেরও বেশি আইনজীবী দাঁড়ায় খামার মালিকদের পক্ষে।
এই রায়টিকে ন্যাক্কারজনক বলে এর নিন্দা করেছে বর্ণবাদবিরোধী সংগঠনগুলোও। তারা বলছে, আদালতের আদেশ কোনোভাবেই নিরপেক্ষ হয়নি। এই রায় গ্রিসের বিচার ব্যবস্থার বিরুদ্ধে ক্ষোভ ছড়াতে পারে বলেও মনে করে তারা।
মানবাধিকার সংগঠন মুভমেন্ট অ্যাগেইনস্ট রেসিজম অ্যান্ড ফ্যাসিস্টের সমন্বয়ক পেট্রস কনস্টানটিনো এক বিবৃতিতে বলেন, স্ট্রবেরি খামারগুলো মিলিয়ন ডলার আয় করছে। সেগুলোতে শ্রমিকদের এভাবে গুলি করা মেনে নেয়া যায় না’। এই রায়কে বর্ণবাদী আখ্যা দিয়ে সব মানবাধিকার সংগঠনগুলোকে এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান এই মানবাধিকার কর্মী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ