• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:২৭ অপরাহ্ন |

প্রশাসনিকভাবেই মোকাবিলা করবে সরকারি দল

Awamili Flagসিসি ডেস্ক: বিরোধী দলের আন্দোলন হুমকিতে বিচলিত নয় আওয়ামী লীগ। সম্ভাব্য আন্দোলন মোকাবিলার কথা বলা হলেও প্রাথমিকভাবে প্রশাসনিক শক্তির ওপরই নির্ভর থাকছে ক্ষমতাসীন দল। মাঠের আন্দোলন জোরদার হলে প্রয়োজনে সাংগঠনিক শক্তি নিয়ে মাঠে থাকার ঘোষণা আসতে পারে। প্রধান বিরোধী জোটের বিগত সময়ের আন্দোলন কর্মসূচি বিবেচনা করে দলের শীর্ষ পর্যায়ে এমন চিন্তাভাবনা চলছে। ঈদের পর সরকার পতনের আন্দোলন-বিরোধী জোটের এমন হুমকি নিয়ে চিন্তিত না হলেও সম্ভাব্য সব ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলায় দল ও সরকারে নানামুখি আলোচনা হচ্ছে। সর্বশেষ আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকেও এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত বিরোধী জোটের আন্দোলন বিষয়ে ক্ষমতাসীন দলের পক্ষ থেকে পাল্টা কোন কর্মসূচির কথা বলা হয়নি। যদিও দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, মাঠের খেলা মাঠেই দেখা হবে। বিএনপি আন্দোলনে নামলে দলীয় কর্মীদের পাল্টা মাঠে নামারও ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। দলের নেতারাও বলে আসছেন বিএনপি বা মিত্ররা রাস্তায় অরাজকতা করলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। রাজনৈতিক ও প্রশাসনিকভাবে তাদের মোকাবিলা করা হবে। দলীয় সূত্র জানায়, বিএনপির বিগত আন্দোলনসমূহে প্রশাসনিক ব্যবস্থা কার্যকর ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করেন আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের নেতারা। সামনের সময়ে এটিকেই আন্দোলন মোকাবিলার প্রথম কৌশল হিসেবে রাখা হয়েছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় দলীয় কর্মসূচির বিষয়ে চিন্তাভাবনা করা হতে পারে। সূত্র জানায়, বিএনপির সম্ভাব্য আন্দোলন দমাতে দলটির শীর্ষ পর্যায়ের বেশ কিছু নেতার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হতে পারে। বিশেষ করে যাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা রয়েছে। কারও কারও বিরুদ্ধে নতুন মামলা দেয়ার প্রক্রিয়াও চলছে। বিএনপির মাঠের আন্দোলনে নেতৃত্ব দেবেন এমন নেতাদের বেশির ভাগের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা রয়েছে। দলের শীর্ষ নেতাদের মামলা ব্যস্ত রাখলে মাঠের আন্দোলনে এর প্রভাব পড়বে বলে মনে করছে সরকারি দল। এদিকে বিরোধী জোটের আন্দোলন হুমকি নিয়ে আওয়ামী লীগ চিন্তিত নন বলে জানিয়েছেন দলটির নেতারা। সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম গতকাল জানিয়েছেন, বিরোধী দল শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করবে। তাদের আন্দোলন নিয়ে চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ জানিয়েছেন, বিরোধী দল শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করলে তাতে বাধা দেবে না সরকার। তারা যদি ৫ই জানুয়ারির আগের অবস্থা তৈরি করতে চায়, মানুষের জানমালের ক্ষতি করতে চায় তাহলে সরকার তা কঠোরভাবে দমন করবে। মানুষের জানমালের নিরাপত্তা দেয়া সরকারের দায়িত্ব। তিনি বিরোধী জোটের আন্দোলন হুমকিকে বাস্তবতাহীন উল্লেখ করে বলেন, তাদের হুমকিতে আওয়ামী লীগ বিচলিত নয়। দলের নেতাদের মুখে এমন বক্তব্য থাকলেও সম্ভাব্য সব পরিস্থিতি বিবেচনায় রেখেই দল এবং সরকারের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়ে একটি সূত্র। এতে আন্দোলনের ধরণ দেখে কৌশল নির্ধারণ করা হবে। এদিক বিবেচনা করে দলের সব পর্যায়ে নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে। দলীয় সূত্র জানিয়েছে, বিরোধী দল মোকাবিলার চেয়ে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ সমস্যা দূর করাকে বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন নেতারা। বিগত সময়ে সাংগঠনিক পুণর্গঠনের না হওয়ায় জেলায় জেলায় দলের নেতাকর্মীরা বিরোধে জড়িয়ে পড়ছেন। অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের জের ধরে নিজ দলের নেতাকর্মীরা খুন হচ্ছেন। এ ধরনের ঘটনায় দলের হাইকমান্ড বিব্রত। এ কারণে দলীয় কর্মসূচি নিয়ে বিরোধী দলের মোকাবিলার চেয়ে প্রশাসনিক ব্যবস্থাকেই গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।
বিএনপি’র আন্দোলন পালে বাতাস পাবে না
ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সিনিয়র মন্ত্রীরা মনে করেন, বিএনপি’র আন্দোলন পালে বাতাস পাবে না। তারা বর্তমান বাস্তবতায় আন্দোলনের কোন সুযোগ পাবে না। তাদের উচিত হবে বাস্তবতা মেনে নিজেদের ভুল শুধরে ভবিষ্যতে যখন সাংবিধানিকভাবে নির্বাচন হবে তার প্রস্তুতি নেয়া। গতকাল সচিবালয়ে আলাদাভাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, এলজিআরডি মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এবং শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ এসব কথা বলেন। অর্থ বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের পর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, দেশের বর্তমান আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে কোন রাজনৈতিক দলের পক্ষেই আন্দোলন গড়ে তোলা সম্ভব নয়। কোন আন্দোলনেই জনগণের সমর্থন পাওয়া যাবে না। ঈদের পর বিএনপির সরকার পতনের আন্দোলনের ঘোষণা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিএনপি যে আন্দোলনের ডাক দিয়েছে তা সফল করার মতো কোন ধরনের শক্তি আর নাই। জনগণ তাদের সঙ্গে নাই। জনগণের সমর্থন ছাড়া কোন অবস্থাতেই আন্দোলন সফল করা সম্ভব নয়। বিষয়টি ব্যাখ্যা করে অর্থমন্ত্রী মুহিত বলেন, এখন মানুষ ও স্টেক হোল্ডারের সংখ্যা এত বেড়েছে যে, সবাই এখন কর্মব্যস্ত। স্টেক হোল্ডাররা এখন নিজেদের স্বার্থেই কোন আন্দোলনের পক্ষে সমর্থন দেবে না। অর্থমন্ত্রী সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, এবারের ঈদ খুব ভাল হয়েছে। আবহাওয়াও ভাল ছিল। ব্যবসায়ীরাও খুব ভাল ব্যবসা করেছেন। ঈদের আগের রাতেও মার্কেটগুলোতে বেশ ভিড় ছিল। সুতরাং সব শ্রেণী-পেশার মানুষেরই এবার ভাল ঈদ হয়েছে। ওদিকে বিএনপির আন্দোলন নিয়ে আশঙ্কার কিছু নেই বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তিনি বলেন, এ নিয়ে জনগণের আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। কারণ, তারা ইতিমধ্যে শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছে। আন্দোলন গণতান্ত্রিক অধিকার। শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করলে সরকার তাতে বাধা দেবে না। বিএনপির আন্দোলনে সরকার সহিংসতার আশঙ্কা দেখছে না জানিয়ে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেন, বিএনপির আন্দোলন নিয়ে ভাবছি না। আমরা ১৫ই আগস্টের শোক দিবসের কর্মসূচি নিয়ে ব্যস্ত। একই দিনে শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, আন্দোলনের নামে তারা নিজেদের ভুলের মাশুল জনগণের ওপর চাপিয়ে দিতে চায়। আমরা আশা করবো অহেতুক নিজের ভুলের মাশুল জনগণের উপর চাপিয়ে দেবেন না। বাস্তবতা মেনে নিয়ে নিজেদের ভুল শুধরে ভবিষ্যতে যখন সাংবিধানিকভাবে নির্বাচন হবে তার প্রস্তুতি নিন। ‘এখন যারা আন্দোলনের কথা বলছেন তারা গত বছরও আন্দোলনের কথা বলেছিলেন’ উল্লেখ করে নূরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, সেটাও জনগণের আন্দোলন ছিল না। সে আন্দোলনে মানুষ খুন হয়েছে, পরীক্ষা, লেখাপড়া, ব্যবসা-বাণিজ্য অর্থনীতি ধ্বংস করা হয়েছে। বর্তমানে মানুষ তার জীবনের উন্নয়নের যে সুযোগ পেয়েছে তা কাজে লাগাতে চায় জানিয়ে তিনি বলেন, তারা বললেই আন্দোলন হবে এমন না। মানুষ যখন আন্দোলনের প্রয়োজন মনে করে তখনই আন্দোলন হয়, কারও কথায় হয় না।
তখন দেখবো কার কত হিম্মত: স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী
স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, দেশের মানুষ শান্তি ও স্বস্তিতে আছে। মানুষ নির্বিঘেœ চলাফেরা করতে চায়। যদি এর কোন ব্যত্যয় ঘটে, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও মাঠে থাকবে। তখন দেখবো কার কত হিম্মত। গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ‘আমরা নগরবাসী’ আয়োজিত ঈদ আনন্দ র‌্যালি-পূর্ব এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, শুক্রবার থেকে পুরো দেশবাসী শোকের মাস পালন করবে। এই শোকের মাসে বিএনপি আন্দোলনের কথা বলেছে। তারা নিয়মতান্ত্রিকভাবে আন্দোলন করুক আমাদের কোন আপত্তি নেই। আন্দোলনের নামে গত ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনের আগের মতো জ্বালাও পোড়াও, পেট্রল ঢেলে বাসে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যার মতো জঘন্য কাজ করলে সরকার কঠোর পদক্ষেপ নেবে। এতে যা যা দরকার সবই করা হবে। র‌্যালিতে আরও উপস্থিত ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম। উৎসঃ   মানব জমিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ