• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন |

ফিরে এলো শোকের মাস

Mojib-2ঢাকা: আজ থেকে শুরু হয়েছে বাঙ্গালি জাতির শোকের মাস। ১৯৭৫ সালে এই মাসেই বাঙ্গালি হারিয়েছে তাদের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুকে।পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে প্রতিটি বছরই আগস্ট এলেই শোকাচ্ছন্ন হয়ে পড়ে গোটা বাঙালি জাতি। আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলো প্রতিবছর এই মাসটি শোকের মাস হিসাবে পালন করে আসছে।
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কতিপয় বিপথগামী সেনার হাতে নিহত হন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ওই দিনে ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে প্রাণ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিনী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর বড় ছেলে শেখ কামাল, মেজ ছেলে শেখ জামাল, ছোট ছেলে শেখ রাসেল, বঙ্গবন্ধুর ভাই শেখ নাসের,শেখ কামালের স্ত্রী সুলতানা কামাল, শেখ জামালের স্ত্রী রোজী জামাল,আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মণি,তার স্ত্রী বেগম আরজু মণি, বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছোট মেয়ে বেবী সেরনিয়াবাত, ছোট ছেলে আরিফ সেরনিয়াবাত, নাতি সুকান্ত আবদুল্লাহ বাবু, শহীদ সেরনিয়াবাত, আব্দুল নঈম খান রিন্টু, বঙ্গবন্ধুর প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদ।
১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ সরকার দিবসটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসাবে ঘোষণা করেছে। এই মাসে আওয়ামী লীগসহ দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন মাসব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ করে।
আজ শুক্রবার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে রাত ১২টা ১ মিনিটে দলের পক্ষ থেকে মোমবাতি প্রজ্জলন করে শহীদদের স্মরণ করা হয়। ছাত্রলীগ একই সময়ে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে মোমবাতি প্রজ্জলন করে।
বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত এই নেতা বেঁচে আছেন বাঙালির অন্তরে অন্তরে। পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামক দেশটি যতোদিন থাকবে ততোদিন বাঙালি হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর নাম চিরভাস্বর হয়ে থাকবে।

ঢাকা: আজ থেকে শুরু হয়েছে বাঙ্গালি জাতির শোকের মাস। ১৯৭৫ সালে এই মাসেই বাঙ্গালি হারিয়েছে তাদের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুকে।পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে প্রতিটি বছরই আগস্ট এলেই শোকাচ্ছন্ন হয়ে পড়ে গোটা বাঙালি জাতি। আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলো প্রতিবছর এই মাসটি শোকের মাস হিসাবে পালন করে আসছে।
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কতিপয় বিপথগামী সেনার হাতে নিহত হন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ওই দিনে ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে প্রাণ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিনী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর বড় ছেলে শেখ কামাল, মেজ ছেলে শেখ জামাল, ছোট ছেলে শেখ রাসেল, বঙ্গবন্ধুর ভাই শেখ নাসের,শেখ কামালের স্ত্রী সুলতানা কামাল, শেখ জামালের স্ত্রী রোজী জামাল,আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মণি,তার স্ত্রী বেগম আরজু মণি, বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছোট মেয়ে বেবী সেরনিয়াবাত, ছোট ছেলে আরিফ সেরনিয়াবাত, নাতি সুকান্ত আবদুল্লাহ বাবু, শহীদ সেরনিয়াবাত, আব্দুল নঈম খান রিন্টু, বঙ্গবন্ধুর প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদ।
১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ সরকার দিবসটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসাবে ঘোষণা করেছে। এই মাসে আওয়ামী লীগসহ দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন মাসব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ করে।
আজ শুক্রবার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে রাত ১২টা ১ মিনিটে দলের পক্ষ থেকে মোমবাতি প্রজ্জলন করে শহীদদের স্মরণ করা হয়। ছাত্রলীগ একই সময়ে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে মোমবাতি প্রজ্জলন করে।
বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত এই নেতা বেঁচে আছেন বাঙালির অন্তরে অন্তরে। পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামক দেশটি যতোদিন থাকবে ততোদিন বাঙালি হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর নাম চিরভাস্বর হয়ে থাকবে।

– See more at: http://www.dhakatimes24.com/2014/08/01/32515#sthash.xd9wpPjR.dpufঢাকা: আজ থেকে শুরু হয়েছে বাঙ্গালি জাতির শোকের মাস। ১৯৭৫ সালে এই মাসেই বাঙ্গালি হারিয়েছে তাদের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুকে।পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে প্রতিটি বছরই আগস্ট এলেই শোকাচ্ছন্ন হয়ে পড়ে গোটা বাঙালি জাতি। আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলো প্রতিবছর এই মাসটি শোকের মাস হিসাবে পালন করে আসছে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কতিপয় বিপথগামী সেনার হাতে নিহত হন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ওই দিনে ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে প্রাণ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিনী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর বড় ছেলে শেখ কামাল, মেজ ছেলে শেখ জামাল, ছোট ছেলে শেখ রাসেল, বঙ্গবন্ধুর ভাই শেখ নাসের,শেখ কামালের স্ত্রী সুলতানা কামাল, শেখ জামালের স্ত্রী রোজী জামাল,আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মণি,তার স্ত্রী বেগম আরজু মণি, বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছোট মেয়ে বেবী সেরনিয়াবাত, ছোট ছেলে আরিফ সেরনিয়াবাত, নাতি সুকান্ত আবদুল্লাহ বাবু, শহীদ সেরনিয়াবাত, আব্দুল নঈম খান রিন্টু, বঙ্গবন্ধুর প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদ।

১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ সরকার দিবসটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসাবে ঘোষণা করেছে। এই মাসে আওয়ামী লীগসহ দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন মাসব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ করে।

আজ শুক্রবার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে রাত ১২টা ১ মিনিটে দলের পক্ষ থেকে মোমবাতি প্রজ্জলন করে শহীদদের স্মরণ করা হয়। ছাত্রলীগ একই সময়ে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে মোমবাতি প্রজ্জলন করে।

বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত এই নেতা বেঁচে আছেন বাঙালির অন্তরে অন্তরে। পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামক দেশটি যতোদিন থাকবে ততোদিন বাঙালি হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর নাম চিরভাস্বর হয়ে থাকবে।
– See more at: http://www.dhakatimes24.com/2014/08/01/32515#sthash.xd9wpPjR.dpuf


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ