• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:১২ পূর্বাহ্ন |

রাজারহাটে ভূমিদস্যু কর্তৃক বাড়ি-ঘরে অগ্নিসংযোগ

Agunরাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের রাজারহাটে আইনকে তোয়াক্কা না করে জাল দলিলের জোরে জমি দখলের চেষ্টা করেন ভূমিদস্যু হিসেবে খ্যাত মতিয়ার রহমান ও মশিয়ার রহমান। আদালতে দায়ের করা ওই মামলায় জমি ক্রেতা মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে হেরে যাওয়ার আশঙ্কায় গত ২৭ জুলাই জমিতে থাকা ঘরে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে মতিয়ার ও মশিয়ার গংরা। পরে জমি ও ঘরের মালিক মোস্তাফিজ রহমানের পিতা আবুল হোসেন পরদিন সকালে রাজারহাট থানায় এজাহার দাখিল করেন। এদিকে, ওই দিন সন্ধ্যায় ভূমিদস্যু মতিয়ার রহমান বাদী হয়ে ৭ জনের নামে পাল্টা এজাহার দাখিল করলে অদ্যাবধি একটি মামলাও রেকর্ড হয়নি বলে থানা সূত্রে জানা গেছে।
সরজমিনে জানা যায়, লালমনিরহাট সদর থানার পঞ্চগ্রাম আলাবকস্ (মালিবাড়ী) গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান ও তার স্ত্রী আফসানা নূরি রাজারহাট উপজেলাধীন ছিনাই ইউপি’র ছত্রজিৎ গ্রামের মৃত সৈয়দ আলীর ছেলে মোকছেদ আলী ব্যাপারীর কাছ থেকে ৬৪ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। যার তফসিল অনুযায়ী রাজারহাটের ছত্রজিৎ মৌজার জে এল নং-১৫২ এস এ খতিয়ান নং-৬৩ আরএস খতিয়ান নং-৪৫০, এস এ দাগ নং-৮০৮, জমির পরিমান ৮৬ শতক, উহার আরএস দাগ নং-১০১৩, এর মধ্যে ৭৪ শতক খারিজ করা মোকছেদ আলীর জমির ৬৪ শতক জমি ক্রয় করেন তারা। উক্ত দাগের জমির দক্ষিণ পাশ্বে পাকা রাস্তা সংলগ্ন পূর্ব পশ্চিম লম্বালম্বি। ক্রয়কৃত জমিতে একটি টিনের চালা ও একটি ছনের ঘর উঠিয়ে প্রায় ৩ বছর যাবত ভোগ দখল করছেন মোস্তাফিজুর রহমান ও তার স্ত্রী আফসানা নুরি। জমিটি ক্রয় করার পর থেকে ভূমিদস্যু মতিয়ার ও মশিয়ার মোস্তাফিজারকে নানাভাবে হয়রানি করেন। প্রস্তাব দেন জমি ছেড়ে দেওয়ার। ভূমিদস্যু মতিয়ারের পাতানো ফাঁদে পা না দেওয়ায় গত মে মাসে মোস্তাফিজুর ও আফসানা নুরির বিরুদ্ধে কুড়িগ্রাম আদালতে মামলা করেন। যার মামলা নং-৪৮/১৪ এবং মামলাটি হেয়ারিং হয়। এতে মতিয়ার ও মশিয়ারের দেয়ার জমির দলিলটি জাল বলে দাবি করেন মোস্তাফিজুর রহমানের একাধিক আইনজীবি। ফলে মামলায় পরাজিত হওয়ার আশঙ্কায় গত ২৭ জুলাই জমিতে থাকা ঘরে আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে দখল নেয়ার চেষ্টা চালায়। এ ঘটনায় মোস্তাফিজুর রহমানের পিতা আবুল হোসেন বাদী হয়ে ভূমিদস্যু মতিয়ার রহমানকে প্রধান আসামী করে ৬ জনের নামে রাজারহাট থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন।
এজাহার সূত্রে জানা গেছে, মোস্তাফিজুর রহমান ঢাকায় ব্যবসা করায় জমিটি দেখ-ভালের জন্য দায়িত্ব দেন ওই এলাকার আলম মিয়াকে। উক্ত জমিতে ১০ হাত লম্বা ১০ ফুট টিনের ছাফড়া ও ১টি ১২ হাত লম্বা দু’চালা ছনের ঘর উঠানো হয়। ওই ঘরে আলম মিয়া থাকতো। গত ২৭ জুলাই ভোরে মতিয়ার রহমান গংরা দেশিয় অস্ত্রে-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে লাঠি-ফালা, লোহার রড, দা, কুড়াল নিয়ে ওই জমিতে প্রবেশ করে। মতিয়ার রহমানের নির্দেশে ঘর দু’টিতে আগুন লাগিয়ে দেয়। এতে ঘরে থাকা প্রায় ৪০ মন ভুট্টাসহ দু’টি ঘর ভস্মীভূত হয়। নলকূপের হেড খুলে নেওয়াসহ ২ বছর বয়সী বিভিন্ন জাতের প্রায় তিন শতাধিক গাছ কাটিয়ে ফেলে দেয়। আলম মিয়ার চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এলে ভূমিদস্যুরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। এ বিষয়ে রাজারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এম এম ময়নুল ইসলামের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে মিমাংসার চেষ্টা করেও কোন সূফল হয়নি এবং অভিযোগ দু’টির তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। দু’একদিনের মধ্যে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ বিষয়ে ছিনাই ইউপি চেয়ারম্যান সহকারী অধ্যাপক মো. সাদেকুল হক নুরু বলেন, বিষয়টি মিমাংসার কথা শুনেছি। আর বেশীকিছু বলতে পারবো না। এ ব্যাপারে মতিয়ার রহমানের সঙ্গে তার মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, জমি আমার। বিক্রির বিষয়টি সঠিক নয় বলে তিনি এড়িয়ে যান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ