• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৪২ অপরাহ্ন |

আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসলামী দলগুলো

111সিসিনিউজ: ইফতার রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার পর এবার মঞ্চ-ময়দানে আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসলামী দলগুলো। এ ক্ষেত্রে জাতীয় এবং ধর্মীয় ইস্যুগুলোকে নতুন করে সামনে নিয়ে আসার চিন্তাভাবনা করছেন তারা। বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের সরকারবিরোধী সম্ভাব্য আন্দোলনের পাশাপাশি ধর্মীয় ইস্যুগুলোকে জাগিয়ে তুলতে চান ইসলামপন্থিরা। এ জন্য নিজেদের মধ্যে প্রাথমিক শলাপরামর্শ সেরে নিয়েছেন। বিশেষ করে বিগত রমজানে ইফতার মাহফিলসহ বিভিন্ন মাধ্যমে পারস্পরিক যোগাযোগ ও আলাপ-আলোচনায় এই প্রস্তুতির বিষয়টি এগিয়ে নিয়েছেন তারা। এছাড়া সংগঠনগুলোর নীতি-নির্ধারণী ফোরামে আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণার ব্যাপারে নীতিগত সিদ্ধান্তও হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানান। সূত্রমতে, সরকারের পক্ষ থেকে নানা প্রতিবন্ধকতার দীর্ঘদিন চুপসে থাকা ইসলামপন্থি এ সব দল সরকারের পক্ষ থেকে আবারও সম্ভাব্য সব ধরনের বাধার কথা মাথায় রেখেই মাঠে নামার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ সব দলের নেতারা মনে করেন, বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে অগ্রহণযোগ্য নির্বাচনের কারণে বর্তমান সরকার নৈতিকভাবে দুর্বল অবস্থানে রয়েছে। ৫ই জানুয়ারির ভোটারবিহীন নির্বাচনের পর ৭ মাস পার হলেও নতুন নির্বাচনের উদ্যোগ না নিয়ে উল্টো ৫ বছর মেয়াদ পূর্ণ করার কথা বলে বেড়াচ্ছে সরকার। এর মধ্য দিয়ে সরকার ও সরকারি দলের দুর্বলতা আরও প্রকটভাবে প্রকাশিত হচ্ছে। তারা মনে করছেন, দেশের সাধারণ মানুষ এই সরকারের প্রতি কেবল বিরক্তই নন, তারা চলমান শাসনতান্ত্রিক অবস্থার পরিবর্তনও চান। একই সঙ্গে সংবিধান থেকে আল্লাহ্‌র উপর পূর্ণ আস্থা-বিশ্বাস তুলে দেয়াসহ ধর্মীয় বিষয়গুলোতে সরকারের হস্তক্ষেপের বিষয়টিও দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ মেনে নিতে পারছেন না। ফলে সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে প্রচণ্ড ক্ষোভ বিরাজ করছে। জনমত ব্যাপকভাবে বিপক্ষে থাকা এবং নৈতিকভাবে বেশ দুর্বল অবস্থানে থাকার কারণে বর্তমান সরকার আন্দোলন দমনে পুলিশ বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আগের মতো ব্যবহার করতে পারবে না বলেই মনে করছেন ইসলামপন্থি দলগুলোর নেতারা। তাদের মতে, আগের মতো পুলিশ-র‌্যাবকে রাস্তায় আন্দোলন দমনে ব্যবহারের চেষ্টা সরকারের জন্য এবার হিতে বিপরীত হতে পারে। এমনকি আগের ধারাবাহিকতায় সরকার এবারও আন্দোলন দমনের নীতি অবলম্বন করার চেষ্টা করলে সেটি বুমেরাং হতে পারে। এর ফলস্বরূপ গণবিস্ফোরণও ঘটতে পারে। সার্বিক বিবেচনায় আন্দোলনের অনুকূল পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে বলে তাদের ধারণা। তবে ইসলামপন্থি দলগুলোর নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা জানান, ২০ দলীয় জোটভুক্ত ইসলামী দলগুলো জোটের কর্মসূচিতে আন্দোলনে অংশ নেবে। পাশাপাশি জোটের বাইরের দলগুলো প্রাথমিকভাবে দলীয় কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এছাড়া পরিস্থিতির আলোকে সব ইসলামী দল সমন্বিত কর্মসূচি দিয়ে মাঠে নামার ব্যাপারেও বিবেচনা করা হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে জাতীয় ও ধর্মীয় ইস্যুতে বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তুলে সরকারের পতন এবং সব দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ ও সুুষ্ঠু নির্বাচনের আন্দোলনকে চূড়ান্ত লক্ষ্যে পৌঁছতে চান তারা। এজন্য খুব শিগগির বেশ কয়েকটি ইসলামী দলের সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরাম, মজলিসে শূরা বা নির্বাহী কমিটির বৈঠক হবে। ওই সব বৈঠকেই আন্দোলনের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর সভাপতি মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী বলেন, বৃহত্তর আন্দোলনের ব্যাপারে ইসলামপন্থি দলগুলোর মধ্যে আলাপ-আলোচনা হয়েছে। রমজানে ইফতার মাহফিলসহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে বিভিন্ন দলের নেতাদের মধ্যে এ বিষয়ে পারস্পরিক আলোচনা হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের আন্দোলন হবে ইসলামী ইস্যুর পাশাপাশি জনগণের ভোটের মধ্য দিয়ে নির্বাচিত একটি সরকার প্রতিষ্ঠা করা। এই লক্ষ্যকে সামনে রেখে পরিবেশ-পরিস্থিতির আলোকে ইসলামপন্থি দলগুলোর মধ্যে ঐক্য গড়ে তোলার বিষয়ও আলোচনায় চলছে। চরমোনাই পীরের নেতৃত্বাধীন ইসলামী আন্দোলনের ঢাকা মহানগর শাখার সভাপতি অধ্যাপক মাওলানা এটিএম হেমায়েত উদ্দিন বলেন, আমাদের নেতারা রমজানে সব জায়গায় বলেছেন, রমজানের শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে ঈদের পর অন্যায়-অসত্য ও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার জগদ্দল পাথরের মতো জাতির ঘাড়ে চেপে বসে আছে। তারা রাতকে দিন আর দিনকে রাত বানাচ্ছে। বাস্তবতার পরিপ্রেক্ষিতেই জুলুম ও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে আমরা মাঠে নামবো। একই দলের সেক্রেটারি মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ুম বলেন, ঈদের পর আমরা মাঠে থাকবো। এটাই নীতিগতভাবে দলের সিদ্ধান্ত। তবে কর্মসূচির ব্যাপারে পরে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তিনি বলেন, আমরা আমাদের মতো করেই আন্দোলন কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামবো। মাঠের পরিস্থিতির আলোকে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ব্যাপারেও প্রয়োজনে সিদ্ধান্ত আসতে পারে। বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক বলেন, দেশের বর্তমান যে সঙ্কটাপন্ন ও শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থা তা নিয়ে ইসলামী দলগুলো গভীরভাবে ভাবছে। এই অবস্থায় করণীয় নিয়ে দলগুলোর নেতাদের মধ্যে আলাপ-আলোচনাও চলছে। তিনি বলেন, দেশ, জাতির এই দুর্যোগপূর্ণ অবস্থায় আন্দোলন কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামার বিষয় নিয়েই আলোচনা চলছে। শিগগিরই নিজ দলের নীতি-নির্ধারণী ফোরাম মজলিসে শূরার বৈঠকের এজেন্ডায় আন্দোলনের কর্মসূচির বিষয়টি রাখা হয়েছে বলেও জানান এই নেতা। ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব মুফতি ফয়জুল্লাহ বলেন, ঈদের পর বিএনপি জোটের আন্দোলনের যে ঘোষণা দেয়া হয়েছে সেটা কতটুকু কি হবে তা নির্ভর করবে প্রধান দল বিএনপি’র নেতাকর্মীদের মাঠে নামার ওপর। তবে ইসলামী দলগুলোর মধ্যে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের একটি প্রক্রিয়া অনেকদূর এগিয়েছে। আশা করা হচ্ছে অতি দ্রুত এ ব্যাপারে একটি ফল পাওয়া যাবে। তিনি বলেন, দেশ, ঈমান ও ইসলাম রক্ষায় আন্দোলনের বিকল্প নেই- এই ধারণা সব দলের মধ্যেই জোরালো। তাই অল্প কিছুদিনের মধ্যে এর বাস্তব প্রতিফলন ঘটবে বলে আশা করা যাচ্ছে। খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা জাফর উল্লাহ খান বলেন, ইসলামী দলগুলোর আন্দোলনের কর্মসূচি নিয়ে পরস্পরের মধ্যে আলাপ-আলোচনা ও যোগাযোগ চলছে। তবে কোন কর্মসূচি চূড়ান্ত হয়নি। তিনি বলেন, সরকারবিরোধী আন্দোলনের গতি-প্রকৃতি কি হবে এসব কিছু মাথায় রেখেই আমাদের মাঠে নামতে হচ্ছে। এজন্য খানিকটা সময় নিয়ে হলেও আমরা কর্মসূচি দেবো, মাঠে নামবো। উৎসঃ   মানব জমিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ