• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৩:৫০ পূর্বাহ্ন |

ঈদের আনন্দ কাটেনি খানসামার আনন্দ ভুবনে

জামাল উদ্দিন: মাথার ওপরে আকাশ দিগন্ত ছুঁয়েছে। ঈদের ছুটি ও আনন্দ কাটাতে দিনাজপুরের চিরিরবন্দর-খানসামার একমাত্র বিনোদন কেন্দ্র জমির উদ্দিন শাহ খামার ও আনন্দ ভুবনে ঈদের দিন থেকে গতকাল রোববার পর্যন্ত দর্শণার্থীদের ভীড় ছিল লক্ষ্য করার মত। বিশেষ করে শিশু ও তরুণ-তরুণীদের ভীড়ে মুখরিত হয়ে উঠেছে।
দর্শণার্থীরা প্রকৃতির রুপ সৌন্দর্য দেখে আকৃষ্ট হয়ে পড়েছে। এখানকার সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতি শুক্রবার ছাড়াও ঈদ ও পূজা-পার্বনে ভীড় করছে তরুণ-তরুণী ও কপোত-কপোতিরা। ঈদের খুশি আর আনন্দকে উজ্জ্বল ও প্রাণবন্ত করতে ইবাদতের পাশাপাশি মানুষ আত্মীয়-স্বজন আর ছেলেমেয়ে নিয়ে ছুটে চলে দর্শনীয় স্থানে। অনেকে দেশের নামকরা জায়গা, চিরিয়াখানা, শিশু পার্ক কিংবা পিকনিক স্পটে গেলেও গত কয়েক বছর ধরে আনন্দ নিতে দিনাজপুরের দু’উপজেলাসহ আশপাশের লোকজন খানসামার এ পার্কটিতে ছুটছেন। পার্কটি ঘুরে দেখা গেছে, গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার লোক সমাগম ঘটেছে অধিক পরিমাণে। চিরিরবন্দর-খানসামা ও পার্শ্ববর্তী বীরগঞ্জ, দশমাইল, নীলফামারী, সৈয়দপুরসহ বিভিন্ন এলাকার আনন্দ প্রিয় লোক বেড়াতে আসেন পার্কটিতে। শিশু-কিশোর ও বিনোদন প্রিয় লোকদের আনন্দ বিনোদন দিতে পার্কটির কাজ কাজ শুরু হয় ২০০৪ সালে। ৫ একর জমির ওপর খনন করা হয় পুকুর। এরপর পুকুরের পাড় জুড়ে নির্মাণ করা হয়েছে স্থায়ী বসার জায়গা, বাঁশ আর খড়ের তৈরি ছোট ছোট বসার ঘর, সাঁকো, শিশুদের দোলনা, নাগোর দোলা, পুকুরে নৌকা, স্লিপার এবং ঘোড়ায় চড়ো বেড়ার ব্যবস্থা। পার্কটির উত্তর পূর্ব কোণে রয়েছে জাতীয় ফুল শাপলা। পশ্চিমে উন্মুক্ত মঞ্চ। মাঝ খানে গাছের ছায়ার ভেতর হাতি, জিরাফ, পক্ষিরাজ ঘোড়া, ময়ুর। পুকুরের পাড় জুড়ে বিভিন্ন স্থানে রয়েছে বক, দোয়েল, ময়না, শালিক, শেয়াল, কবুতর ডাইনেসরসহ বেশ কয়েকটি আকর্ষণীয় ভাস্কর্য। সারি সারি লাগানো আছে বিভিন্ন প্রজাতির ফুল, ফল, বনজ ও কাঠের গাছ। পার্ক জুড়ে বসে নানা ধরণে শিশু খেলনার দোকান। যার মধ্যে মাটির, হাড়ি, পাতিল, পুতুল নৌকা, মাটির তৈরি নানা রঙের ফলসহ নানা জিনিস। পার্কটি খানসামা উপজেলা থেকে দক্ষিণে ২০ কিলোমিটার দূরে এবং চিরিরবন্দরের রাণীরবন্দর থেকে মাত্র ৩ কিলোমিটার দূরে গোয়ালডিহি ইউনিয়নের মারগাঁও গোয়ালডিহি সীমান্তে অবস্থিত।
আনন্দ ভুবনের প্রতিষ্ঠাতা শিক্ষানুরাগী অধ্যক্ষ শাহ মোহাম্মদ আবু হাসান টুটুলের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এটি মুলত শিশু-কিশোর ও বিনোদন প্রিয়দের আনন্দ উপভোগ করতেই নির্মাণ করা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ