• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১০:১৪ পূর্বাহ্ন |

ক্রেস্টে জালিয়াতির তদন্তে আরো কমিটি

1407072861.ঢাকা: মুক্তিযুদ্ধে সহায়তাকারী বিদেশি বন্ধুদের দেওয়া সম্মাননা ক্রেস্টে সোনা জালিয়াতির ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে সন্তুষ্ট হতে পারেনি সরকার। একজন সিনিয়র সচিবের নেতৃত্বে পুনরায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। এ বিষয়ে শিগগিরই প্রজ্ঞাপন জারি করবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের একাধিক অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করতে প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি পেতে সারসংক্ষেপ পাঠানো হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সেটি অনুমোদিত হয়ে আসার পর শিগগিরই কমিটি গঠন করা হবে।

ক্রেস্টে সোনা জালিয়াতির ঘটনায় অধিকতর তদন্তে গঠিত কমিটির নেতৃত্বে এবার থাকছেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন। তিন সদস্যের কমিটিতে অপর দুজন সদস্য যুগ্ম-সচিব পদমর্যাদার। গত ৭ এপ্রিল মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার জিল্লার রহমানকে প্রধান করে করা তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটিকে পুরো প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত দোষী কর্মকর্তা, সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানসহ সবার অনিয়ম ও দুর্নীতি খুঁজে বের করার নির্দেশ দেওয়া হয়। কমিটিকে পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতেও বলা হয়েছিল।

ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার জিল্লার রহমানের নেতৃত্বে গঠিত কমিটি সোনা জালিয়াতির ঘটনায় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রাক্তন প্রতিমন্ত্রী ক্যাপ্টেন (অব.) তাজুল ইসলাম এবং বর্তমান ও প্রাক্তন সচিবের সম্পৃক্ততার কথা উল্লেখ করে প্রতিবেদন দাখিল করে। এই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে গত ১১ জুন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে ক্রেস্ট সরবরাহকারী সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে থানায় ফৌজদারি মামলা করা হয়।

ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগে মন্ত্রণালয়ের প্রাক্তন অতিরিক্ত সচিব গোলাম মোস্তফা, যুগ্ম-সচিব আবুল কাশেম, জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব বাবুল মিয়াকে ওএসডি করা হয়। গত ৭ এপ্রিল মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ক্রেস্ট সংগ্রহে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সংশ্লিষ্ট নয় ।

ওই দিন মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা বলেন, ‘বিদেশি বন্ধুদের সম্মাননা দেওয়ার এই অনুষ্ঠানের সঙ্গে সরকারের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ জড়িত নয়। এই অনুষ্ঠানে সম্পূর্ণ ব্যয় করেছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের দায়িত্ব ছিল তিনটি। এগুলো হচ্ছে- সম্মাননাপত্র তৈরি, আমন্ত্রণপত্র তৈরি এবং অতিথিদের আসনবিন্যাস।’ তিনি বলেন, ‘এর বাইরে বেশিরভাগ কাজ করেছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। বিদেশি বন্ধুদের বিষয়টি দেখেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ