• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪৬ অপরাহ্ন |

তুই একটা শয়তান! তুই ফেরাউন!

Roniগোলাম মাওলা রনি: শয়তান এবং ফেরাউনকে নিয়ে দুনিয়াতে আলোচনা-সমালোচনার শেষ নেই। সবাই এই দুজনকে ভারি অপছন্দ করে। আবার সমানতালে ভালোও বাসে। মাঝে-মধ্যে ভয়ও করে আজরাইলের মতো না হলেও যমদূতের মতো। শয়তান ও ফেরাউন দুটো শব্দই গালি। তবে শয়তান হলো মিষ্টি গালি আর ফেরাউন হলো তিতা গালি। বিয়ের আগে প্রেমিকা যদি প্রেমিকের শরীরে একটু খোঁচা দিয়ে বলে এই যাহঃ তুমি না একটা মিছকে শয়তান সে ক্ষেত্রে প্রেমিক খুশিতে বাকবাকুম করতে থাকে। কিন্তু বিয়ের পর সেই প্রেমিকাই যদি মুখ ভেঙচিয়ে বলে চাইয়্যা দ্যাখ শয়তানটা! খাডাশের মতো করবি না (খাডাশ একটি প্রচলিত গালি। বিড়াল জাতীয় প্রাণী। কোনো কোনো এলাকায় একে বাগডাশও বলা হয়) সে ক্ষেত্রে পরিণতি যে কী হবে বলাই বাহুল্য। স্বামী যদি সাহসী হয় তবে ফেরাউনের মূর্তি ধারণের চেষ্টা করবে। অন্যথায় খাডাশের ছোট ভাই মেনি বিড়াল হয়ে মিউ মিউ করবে।

আমরা সকাল বিকাল শয়তান ও ফেরাউনকে গালি দিই বটে কিন্তু একবারও ভেবে দেখি না বেচারারা আমাদের গালি খাবার পর কী মন্তব্য করতে পারে। প্রথমেই শয়তানের বক্তব্য শোনা যাক। শয়তান মানে ইবলিস। তারপর শুনব ফেরাউনের কথা। শয়তান সাধারণত মিথ্যা বলে, প্রতারণা করে এবং বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে মানুষের দ্বারা কুকর্ম ঘটায়। শয়তান মানুষের মৃত্যু চায় না। কারণ মানুষ মরে গেলে তার আমলনামা বন্ধ হয়ে যায় গুনাহ করতে পারে না। এতে করে শয়তানের বড্ড লোকসান হয়ে যায়। তার কাজ মানুষকে পাপী বানানো। মরে গেলে আর পাপী হওয়ার সুযোগ থাকে না। তাই মানুষ যত বাঁচে ততই শয়তানের কর্মক্ষেত্র বৃদ্ধি পায়। এ কারণে শয়তান হলো খারাপ মানুষদের দীর্ঘায়ুর অন্যতম নেয়ামক।

অন্যদিকে ফেরাউন হলো জুলুম, অন্যায়, নাফরমানি, অকৃতজ্ঞতা, উদ্ধত আচরণ, অহংকার, মিথ্যাচার এবং ভ্রষ্টতার এক মূর্ত প্রতীক। শয়তান অদৃশ্য- নূরের তৈরি। ফেরাউন দৃশ্যমান-মাটির তৈরি। শয়তান কিয়ামত পর্যন্ত অমর। আর ফেরাউন মরণশীল- অর্থাৎ আমাদের মতোই তাকে রোগ-শোক-জরা আক্রমণ করে। তাই কাউকে যদি শয়তানের পরিবর্তে ফেরাউন বলে গালি দেওয়া হয় তবে লোকটি ভীষণ রকম রাগ করে। তবে মজার ব্যাপার হলো, শয়তান নামক গালিটি আমজনতা সবার জন্য প্রযোজ্য- অর্থাৎ ধনী, দরিদ্র, নারী, পুরুষ, আমির-ফকির, রাজা-মহারাজা সবার জন্য। অন্যদিকে ফেরাউন নামক তকমাটি কেবল ক্ষমতাবান বা ক্ষমতাবতীদের জন্যই প্রযোজ্য। ফেরাউন ও শয়তানের চরিত্র নিয়ে আমার বকবকানি না শুনে আসুন আমরা খোদ তাদের নিজস্ব জবানবন্দি থেকে ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করি-

ইবলিসের আত্দকথা : হে বঙ্গ দেশের অধিবাসীরা! আমার শয়তানি শুভেচ্ছা গ্রহণ কর। তোমরা হয়তো ভাবতে পার কেন আমি তোমাদের তুমি বলে সম্বোধন করলাম! আসলে বয়স হয়েছে তো, অনেক অনেক বয়েস। হয়তো লাখ লাখ কোটি কোটি বছর কিংবা তার চেয়েও বেশি। তোমাদের আদি পিতা হজরত আদম (আ.) থেকেই লাখ কোটি বছরের বড় আমি। তোমরা হয়তো অনেকেই জানো, আমি নূরের তৈরি জিন জাতির অন্তর্ভুক্ত। পরে ফেরেশতাদের গোত্রভুক্ত হই এবং এক সময় তাদের নেতা নির্বাচিত হই। তোমাদের অতি পরিচিত জিবরাইল, আজরাইল কিংবা মিকাইল- আমারই অধীনস্থ শিষ্য ছিল এক সময়। আদম (আ.)-কে নিয়ে সৃষ্ট সমস্যায় আমি আল্লাহপাকের সামনে যে অহংকার প্রদর্শন করেছিলাম তা ব্যতীত আমার জীবনে কোনো গুনাহ নেই। বরং ইবাদত কিংবা বন্দেগিতে কোনো সৃষ্টি এযাবৎকাল আমাকে অতিক্রম করতে পারেনি। আসমান, জমিন, আরশ কিংবা জান্নাতের এমন এক তিল জায়গাও খুঁজে পাবে না যেখানে এই ইবলিশ মিয়ার সেজদা পড়েনি।

তোমাদের হয়তো প্রশ্ন জাগতে পারে, আজ এত বছর পর আমি কেন পত্র লিখতে বসলাম আর কেনইবা দুনিয়ার এত্তসব হাজার হাজার জাতি গোষ্ঠী, বর্ণ, সম্প্রদায় বাদ দিয়ে তোমাদের বেছে নিলাম? আসল কথা হলো তোমাদের আচার-আচরণ এবং ব্যবহারে আমার ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে গেছে। আমি ইদানীং খুবই অপমানিত বোধ করছি তোমাদের কারণে, মনে হচ্ছে তোমরা আমার সব ইজ্জত পাংচার করে দিয়েছ। আমি সময় পেলেই এখন শয়তানি বাদ দিয়ে একা একা ঘুরি। বড় কোনো বট গাছ কিংবা রেনডি গাছ দেখলে দাঁড়িয়ে যাই। তারপর আমার নূরানী চোখ বিস্ফোরিত করে তোমাদের শয়তানি দেখি আর মনে মনে বলি, ইয়া আল্লাহ, এই সব কুলাঙ্গার এত্তসব হারামিপনা শিখল কোত্থেকে! বিশ্বাস কর তোমাদের ইতরামি দেখে মাঝে মাঝে আমার আত্দহত্যা করতে ইচ্ছে করে। কিন্তু ওটা তোমাদের পক্ষে সম্ভব হলেও আমার পক্ষে সম্ভব নয়। কারণ আল্লাহর হুকুমে আমাকে কিয়ামত পর্যন্ত বেঁচে থাকতেই হবে!

আচ্ছা তোমরা কি একবারও ভেবে দেখেছ যে, কীভাবে সকাল-সন্ধ্যা-রাতবিরাতে তোমরা আমার ওপর জুলুম করছ? তোমরা না জেনেই আমার ওপর মিথ্যারোপ করছ। তোমাদের সব কুকর্মের জন্যই তোমরা আমাকে দায়ী কর, অথচ অনেক কিছু আমি এখন পর্যন্ত জানি না এবং কিয়ামত পর্যন্ত জানতেও পারব না। কারণ আমার মন মস্তিষ্ক মূলত জিন জাতির মতো। আমার জ্ঞানগরিমা ফেরেশতাদের মতো। আমাকে আল্লাহ যতটুকু জ্ঞান এবং ক্ষমতা দিয়েছেন আমি ইচ্ছে করলেই সেই জ্ঞান ও ক্ষমতার আওতা অতিক্রম করতে পারব না। কিন্তু তোমাদের জ্ঞান অসীম। ৪টি বিষয় অর্থাৎ হায়াত, মউত, রিজিক ও দৌলত ছাড়া তাবৎ দুনিয়ার সব কিছু তোমাদের অধীন করে দেওয়া হয়েছে। ফলে তোমাদের ক্ষমতাও অসীম।

তোমাদের সেই অসীম জ্ঞান এবং অসীম ক্ষমতা একযোগে প্রয়োগ করে যেসব কুকর্ম কর তা আমি ইবলিস কিংবা অন্য কোনো ফেরেশতা অথবা জিন জাতি কল্পনাও করতে পারে না। এই যেমন ধর-জেনা, ব্যভিচার, বিকৃত যৌনাচার, বলাৎকার কিংবা নারী-নারী, পুরুষ-পুরুষের বিকৃত মেলামেশার প্রসঙ্গ আসলে তোমরা আমাকে দায়ী করে বল শয়তানের প্ররোচনায় এসব হয়! ছি ছি ছি! আমি তোমাদের নির্বুদ্ধিতা দেখে আপন মনে হাসাহাসি করি আর বলি, কি বোকারারে বাবা! পাঁজী লোকগুলো বলে কী, শয়তান তো ওসব জানেই না- না জানলে বুদ্ধি দেবে কীভাবে? তোমরা বোধ হয় ফাঁপড়ে পড়ে গেলে! আচ্ছা একটু ব্যাখ্যা করে বললেই সব পরিষ্কার হয়ে যাবে।

মানুষ, জানোয়ার, পক্ষীকুল কিংবা উদ্ভিদ জগতে বংশবিস্তার হয় যৌন সম্পর্কের মাধ্যমে। এ জন্য বিপরীত লিঙ্গের প্রতি এক ধরনের আকর্ষণ তোমাদের শরীর মন ও মানসিকতায় সৃষ্টি করা হয়েছে। যৌন সঙ্গমে তোমরা তৃপ্তি লাভ কর। ফলে পার্থিব অন্যান্য তৃপ্তির জন্য তোমরা যেরূপ অনাচার ও অনাসৃষ্টি কর তদ্রূপ এই ক্ষেত্রেও কর, তবে বাড়াবাড়িটা হয়ে যায় অন্য যে কোনো কিছুর চেয়ে বেশি। আমি বাপু ওসব একদম বুঝি না, কারণ জীবনে যৌন উত্তেজনা বোধ করার মতো দেহ কিংবা রক্ত, মাংস আমার নেই। যখন ফেরেশতা ছিলাম তখন আমাদের কোনো লিঙ্গ ছিল না। অর্থাৎ কোনো পুরুষ বা মহিলা শ্রেণীর ফেরেশতা ছিল না। লিঙ্গবিহীন হওয়ার কারণে লিঙ্গ সংক্রান্ত লোভ, লালসা, কাম, উদ্দীপনা, ক্রোধ কিংবা জ্ঞান-বুদ্ধি কিছুই আমার ছিল না। পরবর্তীতে অভিশপ্ত শয়তানে পরিণত হওয়ার পরও আল্লাহ আমার জন্য মহিলা শয়তান পয়দা করেননি। কিংবা বংশবিস্তারের কোনো বিকল্প ব্যবস্থা করেননি। ফলে শয়তান হিসেবে আমি এক অনন্য সৃষ্টি। আল্লাহর দেওয়া জ্ঞান এবং ক্ষমতাবলে আমি একক অবস্থানে থেকেও সব প্রাণীর অন্তরে একই সঙ্গে হানা দেওয়ার ক্ষমতা রাখি।

এই দুনিয়ায় নারী-পুরুষের যৌন সম্পর্ক নিয়ে যত অনাসৃষ্টি হয়েছে, যত যুদ্ধ কিংবা প্রাণহানি অথবা যত সম্পদ নষ্ট হয়েছে তা মানুষের অন্য সব অপরাধ একত্র করলেও হবে না। অথচ কাজটি তোমরা কর একান্তই তোমাদের নফসের কারণে, এর সঙ্গে শয়তানের কোনো যোগসাজশ নেই, শয়তান ওসব জানেও না বুঝেও না। তোমরা যদি কাউকে দায়ী করতে চাও তবে করতে পার। সেক্ষেত্রে তোমাদের মধ্যকার এক মস্ত বড় হারামি যে কিনা জন্মেছিল আজ থেকে প্রায় সাড়ে চবি্বশ শত বছর আগে। ওর নাম বৎসায়ন। কামসূত্র নামে একটি বই রচনা করে শয়তানটা ১২৫০ প্রকারের রতিক্রিয়া তোমাদের শিখিয়ে গেছে। আর তোমরা সারা দুনিয়ার মানুষ সেই বই গত প্রায় চবি্বশ শত বছর ধরে মাথায় করে নাচছ। আর জায়গা বেজায়গায় রতিক্রিয়া করছ এবং এ নিরপরাধ ইবলিশ বেটাকে দায়ী করছ। একবার বুকে হাত দিয়ে বল তো, কাজটা ঠিক হচ্ছে কি না? তোমরা ঘুষ খাও-মদ খাও। ইদানীং আবার ফেনসিডিলও খাচ্ছ। তোমরা তাস, পাশা, জুয়া খেল। তালের রসকে তাড়ি বানিয়ে নেশা কর। ভাত পচিয়ে বাংলা মদ বা চোলাই মদ বানাও। দুধের সঙ্গে পানি মেশাও। মাছ তরকারিতে ফরমালিন দাও; ওজনে কম দিয়ে বেশি মুনাফা কর। এত্তসব কাণ্ডকারখানা করার মতো বুদ্ধি আল্লাহ ইবলিসকে দেননি। এসবই তোমাদের আবিষ্কার। তোমরা কথায় কথায় অহঙ্কার কর এবং নিজেকে খোদা বলে জাহির কর। আমার বন্ধু ফেরাউন দ্বিতীয় রামেসীস মূসা নবীর সঙ্গে জিদ করে কীভাবে খোদা দাবি করেছিলেন সেই কাহিনী তোমরা তার মুখ থেকে শুনলে বুঝতে পারবে তার আর তোমাদের মধ্যে কতটুকু মিল-অমিল রয়েছে। আগামীতে সময় সুযোগ পেলে এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত বলব। এবার বন্ধু ফেরাউনকে কথা বলার সুযোগ দিয়ে আমি বিদেয় নিচ্ছি। ইতি-তোমাদের দ্বারা অপমানিত, লাঞ্ছিত এবং বঞ্চিত এক হতভাগ্য বান্দা-ইবলিস।

ফেরাউনের আত্দকথা : হে বাঙালি বঙ্গালবৃন্দ! তোমাদের সঙ্গে কথা বলতেই আমার রুচিতে বাধছে। তোমরা যে কেবল বাঙালি-মানুষ নও তা আমি জেনেছি তোমাদের কবি গুরুর কাছ থেকে। তোমাদের মতো শংকর অর্থাৎ বহু রঙ চঙ, আকার-আকৃতি এবং ত্যাড়া ব্যাড়া জাতি পৃথিবীর অন্য কোনো অঞ্চলে নেই। সেই অনাদিকাল থেকে অর্থাৎ আজ থেকে প্রায় পাঁচ হাজার বছর আগে যখন সবে কলিযুগ আরম্ভ হয়েছে : বঙ্গে তখন একজন রাজা ছিল। নাম জগদত্ত। সম্ভবত তিনিই তোমাদের প্রথম রাজা। রাজা জগদত্তের আমলেই মহাভারতের যুদ্ধ শুরু হয় এবং রাজা সদলবলে সে যুদ্ধে গেলেন কৌরবদের পক্ষ অবলম্বন করার জন্য। যুদ্ধে কৌরবরা পরাজিত হলে পঞ্চপাণ্ডবদের সৈন্য সামন্তরা জগদত্তসহ তোমাদের সব যোদ্ধার ভবলীলা সাঙ্গ করে দেয়। এরপর তোমাদের নারীদের বান্দী বানিয়ে যা ইচ্ছে তাই করতে থাকে। ইতিহাসের প্রথম যুদ্ধে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে যে জীবন তোমরা শুরু করেছিলে তা আজ অবধি একই ধারায় চলছে।

সারা দুনিয়ার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শক্তিশালী রাজা-মহারাজা, সম্রাট কিংবা ফেরাউনদের দ্বারা বিতাড়িত হয়ে আর্য, অনার্য, শাক, হুন, সোমটিক, মঙ্গোলীয়, তুর্কি, ডাচ, পর্তুগিজ, ইংরেজ, ফরাসি প্রভৃতি সম্প্রদায়ের লোক তোমাদের এখানে এসে তোমাদের দুর্বলতা, কলহ, বিবাদ আর ভীরুতার সুযোগ নিয়ে রাতারাতি তোমাদের মালিক হয়ে বসেছিল। তারা এসেই তোমাদের মহিলাদের কব্জা করত। ফলে যুগে যুগে তোমাদের ভূমিতে যে শংকর প্রজাতির শিশু পয়দা হয়েছে তা অন্য কোথাও হয়নি। এ কারণে তোমরা প্রচণ্ড অস্থির! কেউ কাউকে বিশ্বাস কর না, এমনকি নিজেকেও না। তা ছাড়া অন্তর্দ্বন্দ্ব, হানাহানি, নিচুতা, অসততা, অপরকে ছোট করা, কাজের চেয়ে বেশি কথা বলা, ভীরু মন, দুর্বল স্বাস্থ্য ইত্যাদি তোমাদের জাতীয় পরিচয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই ভূখণ্ডে তোমরা একটি পরিবার দেখাতে পারবে না, যারা একাদিক্রমে শত শত বছর ধরে সম্মান, মর্যাদা এবং দাপটের সঙ্গে রাজ্য পরিচালনা করেছে। তোমরাই একমাত্র জাতি, যারা পথের ফকিরকে ধরে এনে রাজা বানাও, আবার কয়দিন পর সেই রাজাকে কান ধরে বের করে দাও। কোনো কিছুই তোমাদের বেশি দিন ভালো লাগে না। তোমরা যত পদের খাবার টক, ঝাল, মিষ্টি এবং লবণ দিয়ে মাখিয়ে খাও তা অন্য কোন দেশে খাওয়া হয় না। ফলে সারা বছর তোমাদের পেট খারাপ থাকে। প্রাকৃতিক কর্মাদি সারার সময় তোমরা যেভাবে কোঁতাকুঁতি এবং হা হুতাশ কর তা অন্য কোনো জাতি করে না। তোমাদের বেশির ভাগ লোকের শরীরে গুঁড়া কৃমির সংক্রমণ রয়েছে। অথচ সেগুলো ধ্বংসের জন্য আল্লাহ যে তোমাদের বিচিকলা দিয়েছেন তা তোমরা খাও না। ফলে যা হওয়ার তাই হচ্ছে, রাত-বিরাতে, জায়গা-বেজায়গায় তোমরা হঠাৎ হঠাৎ অস্থির হয়ে লাফালাফি শুরু কর।

তোমাদের সম্পর্কে আমি এত কথা বললাম এ কারণে যে, গত বেশ কয়েক দশক ধরে লক্ষ্য করছি তোমরা তোমাদের জাতির ক্ষমতাশালী লোকদের কাউকে কাউকে আমার সঙ্গে তুলনা করছ। কত বড় স্পর্ধা, যারা আমার অধীনে কর্মচারী হওয়া তো দূরের কথা, আমার রাজধানীতে নাগরিক হিসেবে বসবাস করার যোগ্যতাসম্পন্ন নয়, তাদের তুলনা করছ আমার সঙ্গে? তোমরা কি জান আমি কে? কোথায় আমার বাড়ি! কে আমার পিতা? কেমন রক্ত আমি ধারণ করি, আমার শিক্ষা-দীক্ষা কিরূপ? আমার আমলে প্রজারা কেমন ছিল? কেন আমাকে মিসরের ইতিহাসের সর্বকালের সেরা ফেরাউন রামেসিস দ্য গ্রেট বলা হয়? কেনইবা আমার পতন হলো? আমি নিশ্চিত! তোমরা জান না। জানলে আমার সঙ্গে তোমাদের ওই মানুষদের তুলনা করতে না। তাই তোমাদের প্রতি আমার খুব রাগ হচ্ছে, কথা বলতে রুচিতে বাধছে। একবার মনে হচ্ছে আমার সিংহ-শার্দূল সেনাপতি মেরিতামেনকে পাঠিয়ে দেই তোমাদের মাঝে এবং দেখি তোমরা কতটুকু কোঁতাকুঁতি করতে পার!

হাঁ শোন, মনোযোগ সহকারে শোন। আমিই ফেরাউন রামেসিস দ্য সেকেন্ড। আমার সম্রাজ্ঞী হলেন পৃথিবীর সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ অনন্যা প্রতিভাধর সুন্দরী রমণী- নাম তার নেফারতারি। আমার বাবা সম্রাট প্রথম সেটি এবং মা মহারানী তুয়ার, প্রসিদ্ধি দুনিয়াব্যাপী এবং তা থাকবে কেয়ামত পর্যন্ত। আমার বংশ আমার আগে সুদীর্ঘ এক হাজার বছর মিসর শাসন করে আসছিল। আমার রাজ-রক্তের শ্রেষ্ঠত্বের সঙ্গে তুলনা করা যায় এমন রাজবংশ পৃথিবীতে একটিও নেই। সিংহাসনে আরোহণের আগে পৃথিবীর সবচেয়ে দুর্গম এলাকায় গমন করে সবচেয়ে জ্ঞানী পণ্ডিতদের কাছে সামরিক ও বেসামরিক জ্ঞান অর্জন করেছি ৩০ বছর। ১২৭৯ খ্রিস্ট-পূর্বাব্দে সিংহাসনে আরোহণের পর একনাগাড়ে ৬৬ বছর ২ মাস রাজত্ব করেছি। এশিয়া, আফ্রিকাজুড়ে এত বড় সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছি যে, আজ পর্যন্ত সেই সাম্রাজ্যের বিশালত্বের সীমা কেউ অতিক্রম করতে পারেনি। শুধু কি তাই? আমার সাম্রাজ্যে যে সুশাসন, গণতন্ত্র ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করেছিলাম তা রাষ্ট্রবিজ্ঞানীদের কাছে আজও বিস্ময়, তাই তো তারা আমার উপাধি দিয়েছেন রামেসিস দ্য গ্রেট হিসেবে। কাজেই এত বড় একজন মানুষের সঙ্গে যদি তোমরা লেদু-গেদু-ধলাদের তুলনা করে কথায় কথায় ‘তুই ফেরাউন’ বলে গালি দাও তবে তোমাদের রুচিবোধ নিয়ে প্রশ্ন তোলাটা কি খুব অস্বাভাবিক!

তোমরা কি জান যে, আমার রাজ্যে মোট কতজন সংসদ সদস্য ছিল? যদি না জান তবে শুন তাদের সংখ্যা ছিল ৯০০। আমি এই সংসদ সদস্যদের মতামতের বাইরে নতুন কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতাম না। আমরা যখন একসঙ্গে বসতাম তখন সংসদ সদস্যদের মর্যাদার ব্যাপারে তীক্ষ্ন দৃষ্টি রাখতাম। তোমাদের পবিত্র গ্রন্থ আল কোরআনের বিভিন্ন স্থানে এসবের প্রমাণ আছে ভূরি ভূরি। মুসা এবং তার ভাই হারুন একদিন হঠাৎ রাজদরবারে উপস্থিত হয়ে এমনভাবে কথাবার্তা বলা শুরু করল যাতে মনে হলো আমি তার চাকর। সে আমার সঙ্গে তুই-তুমি বলে সম্বোধন করে বলল, হে ফেরাউন! তুমি আমার কওমের ১২ লাখ লোককে মুক্ত করে দাও। মুসার বংশের লোকেরা সবাই ছিল বংশানুক্রমে ক্রীতদাস এবং ব্যক্তি মালিকানাধীন থেকে তারা বিভিন্ন পরিবারে, শিল্প-কারখানা, অফিস-আদালত বা কৃষিক্ষেত্রে কাজ করে আসছিল। জনগণের ক্রীতদাসদের মুক্ত করার অধিকার রাজার ছিল না। আমি যদি রাতারাতি কোনো শাহী ফরমান জারি করে দাসদের মুক্ত করার হুকুম দিতাম তবে সাম্রাজ্যে গণঅভ্যুত্থান দেখা দিত। মুসা যখন একের পর এক চাপ দিয়ে যাচ্ছিল তখন আমি সংসদ সদস্যদের বললাম, মুসা স্পষ্টতই আমাদের জাতির মধ্যে বিভেদ সৃষ্টিকারী ফেতনা হিসেবে আবিভর্ূত হয়েছে। আমার ভয় হচ্ছে, তাকে যদি হত্যা না করি তবে সে জমিনে বড় বিপর্যয় সৃষ্টি করবে। তোমরা শুনে আশ্চর্য হবে যে, আমার সংসদ সদস্যরা আমার প্রস্তাবকে তুড়ি মেরে নাকচ করে দিল। শুধু তাই নয়, তারা পরামর্শ দিল মুসার সঙ্গে সমঝোতা করার জন্য। ইতিহাস খুঁজে দেখ, আমি সেদিন স্বৈরাচারী হইনি। আমি মুসাকে হত্যা না করে তার সঙ্গে সমঝোতা করেছিলাম।

এ কথা সত্য যে, আমি অহংকার করে নিজেকে খোদা দাবি করেছিলাম। কিন্তু আমি খুব ভালো করেই জানতাম যে, আমি খোদা নই। সম্রাট হিসেবে আমি জনগণের সামনে জিদ করে নিজেকে খোদা বললেও একান্তে এ নিয়ে আমি মর্মাহত হতাম। একদিন খোদার রহমত পাওয়ার জন্য আমি জঙ্গলে চলে গেলাম। কারণ নীল নদের পানি শুকিয়ে গিয়েছিল আর লোকজন এসে আমাকে বলল, হে আল্লাহ! নদীতে পানি এনে দাও। আমি পড়ে গেলাম ভারী বিপদে। জঙ্গলে গিয়ে গাছের সঙ্গে দুই পা বেঁধে নিচে মাথা ঝুলিয়ে আসল আল্লাহর দরবারে শুরু করলাম ফরিয়াদ। বললাম, হে আল্লাহ আমি জানি তুমিই একমাত্র আল্লাহ। আমি কেউ নই, কেবল তোমার বান্দা ছাড়া। আল্লাহ তুমি আমায় সম্মান দিয়েছ। আজ তোমার সম্মানীত বান্দার সম্মান রক্ষা কর, নীল নদীতে পানি এনে দাও। আল্লাহ আমার দোয়া কবুল করলেন।

আমার জীবনের আরও অনেক চমকপ্রদ কাহিনী আছে, যা আগামীতে সময় ও সুযোগ পেলে তোমাদের বলব। আজ বিদায় নিচ্ছি। তবে বিদায় বেলায় অনুরোধ, দোহাই আল্লাহর! তোমরা আমার সঙ্গে যার তার তুলনা কর না। যাকে তাকে ফেরাউন বলে গালি দিও না!

লেখক : রাজনীতিক। উৎসঃ   বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ