• বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:১২ অপরাহ্ন |

পেটে জ্বালাপোড়া

স্বাস্থ্য ডেস্ক: painদিনবদলের সঙ্গে সঙ্গে বদলে যাচ্ছে মানুষের জীবনধারা। কর্মস্থল কিংবাব্যক্তিগত জীবনের সব ক্ষেত্রে আমাদের নানামুখী প্রতিকূলতার সম্মুখীন হতেহচ্ছে। দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে ব্যস্ততা। চাওয়া-পাওয়ার ব্যবধান কমাতে গিয়েজীবন হয়ে পড়ছে স্ট্রেসফুল। এসিডিটির সমস্যা দেখা দিচ্ছে অনেকেরই।
কী করে বুঝবেন আপনার এসিডিটি হচ্ছে
নিচের উপসর্গগুলোর সব কয়টি কিংবা কোনোটি থাকলে ধরে নিতে পারেন আপনার এসিডিটি হচ্ছে
পেটের ওপরের অংশে ব্যথা বা জ্বালাপোড়া (বেশির ভাগ ক্ষেত্রে)
বমির ভাব, বমি, ক্ষুধামান্দ্য, ঢেঁকুর, পেট ভরা ভরা বোধ করা,ওজন কমে যাওয়া (দীর্ঘদিন এসিডিটির ক্ষেত্রে)
আপনার করণীয়
খাদ্যাভ্যাস : দৈনিক মোটামুটি নির্দিষ্ট সময়ে খাবার গ্রহণের অভ্যাস করুন।একবারে বেশি খাবার খাবেন না। অল্প করে বারবার খাবেন। খাবার ভালো করে চিবিয়েধীরে ধীরে খাবেন। খাওয়ার সময় তাড়াহুড়া করবেন না। সময় নিয়ে রিলাক্স মুডেখাবার গ্রহণ করুন।
পরিহার করুন ধূমপান : ধূমপান অধিক মাত্রায় গ্যাস্ট্রিক এসিড নিঃসরণ করে।পেপটিক আলসারের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। পেপটিক আলসারের ক্ষত সারাতে বিলম্ব ঘটায়।ধূমপান অনেক ওষুধের কার্যকারিতা কমিয়ে দেয়। এ ছাড়া ধূমপান পাকস্থলীরক্যানসারের ঝুঁকিও অনেকাংশে বাড়িয়ে দেয়। তাই পর্যায়ক্রমে ধূমপান পরিহারকরুন।
ব্যথানাশক ওষুধ : অনেকে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া নিজে নিজেই ব্যথানাশক ওষুধসেবন করে থাকেন। এর ফলে পাকস্থলীতে প্রদাহের সৃষ্টি হয়। অ্যাসপিরিন, ডাইক্লোফেনাক, আইবুপ্রোফেন, নেপ্রোক্সেন, ইন্ডোমেথাসিন প্রভৃতি ব্যথানাশকওষুধ চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতিরেকে গ্রহণ করবেন না। সাধারণ ব্যথায়প্যারাসিটামল খেতে পারেন।
মদ্যপান : আশার কথা, ধর্মীয় বা সামাজিক অনুশাসনের কারণে আমাদের দেশেমদ্যপানের হার অনেক কম। মদ্যপান গলনালি এবং পাকস্থলীর প্রদাহ সৃষ্টি করেএবং এসিডিটির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।
চা ও কফি : অনেকে সারা দিন-রাত ধরে মাত্রাতিরিক্ত চা কিংবা কফি পান করেথাকেন। চা ও কফি উভয়ই পাকস্থলীর এসিডিটি বাড়ায়। এ ব্যাপারে নিজের ওপরনিয়ন্ত্রণ আনা প্রয়োজন। পরিমিত মাত্রায় চা ও কফি পান করা যেতে পারে।
মুটিয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করুন : শরীরের ওজন স্বাভাবিক রাখুন। মুটিয়ে যাওয়াপ্রতিরোধ করুন। আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী সুষম খাবার গ্রহণ করুন। অতিরিক্ত লবণও চর্বিজাতীয় খাবার যথাসম্ভব পরিহার করুন। প্রতিদিন কিছু পরিমাণ ফলমূল ওশাকসবজি খান। ফাস্টফুড ও কোল্ড ড্রিংকস পরিহার করুন।
মানসিক চাপ কমান : বর্তমান জীবনধারায় মানসিক চাপ দিন দিন বেড়ে চলছে।স্ট্রেস থেকে মুক্ত হতে সহজ ও সাধারণ জীবনযাপনে অভ্যস্ত হওয়া প্রয়োজন।অত্যধিক মানসিক চাপ হৃদরোগ ও এসিডিটির ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। রোগ প্রতিরোধক্ষমতা কমিয়ে দেয়। কমিয়ে দেয় হজমশক্তি। মানসিক চাপ পরিহার করতে প্রতিদিনপর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ