• শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১০:২৮ পূর্বাহ্ন |

সুস্বাদু বিড়াল ভাজা!

86386_1সিসি ডেস্ক: খাবারের আইটেমগুলোর মধ্যে নানা বৈচিত্র আনতে চেষ্টা করেন খাবারপ্রেমী মানুষ। এ জন্য খাবারের রুটিনেও আনেন পরিবর্তন। নির্ধারিত খাবারের বাইরেও থাকে নানা অনুসঙ্গ। যেমন ঠাণ্ডা বিয়ারের সুঙ্গে আলু ভাজা, চিকেন ফ্রাই ইত্যাদি। কিন্তু পানীয়র সঙ্গে যদি থাকে বিড়ালের মাংস তাহলে কেমন হবে ব্যাপারটা? অবাক হচ্ছেন? হওয়ারই তো কথা! ভিয়েতনামে কিন্তু এমনটাই হচ্ছে।

আনুষ্ঠানিকভাবে বিড়ালের মাংস খাওয়া নিষিদ্ধ হলেও দেশের হোটেলগুলোতে অবিরাম চলছে বিড়াল রান্না। অতি সুস্বাদু হওয়ায় এর চাহিদাও দিনদিন বেড়েই চলছে। ফলে যারা আদর করে বিড়াল পোষেণ তারা রয়েছেন বিপদে। কখন জানি আদরের বিড়ালটি মানুষের পেটে চলে যায়!

ভিয়েতনামের রাজধানী হেনয়তে ইঁদুরের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় বিড়াল নিধনে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে সরকার। কিন্তু সে নিষেধাজ্ঞায় পাত্তা দিচ্ছে না বিড়াল খাদকরা। হেনয়ের হোটেলগুলোতে অবিরত চলছে বিড়ালের মাংস রান্না। আর খাদকদের কাছ থেকে নিজের বিড়ালকে রক্ষা করতে সেগুলোকেও বেঁধে রেখেন মালিকরা। ফলে রাস্তায় এখন বিড়াল দেখাই ভার। সেই সুযোগটাও কাজে লাগাতে ভুলছে না ইঁদুর সেনারা। যেখানে সেখানে তাদের দেখে মনে হবে দেশটিতে তারা অবাধ বিচরণের স্বাধীনতা লাভ করেছে।

এদিকে ভিয়াতনামে বিড়ালখাদক হু হু করে বেড়ে যাওয়ায় চাহিদা মেটাতে থাইল্যান্ড ও লাওস থেকে চোরাইপথেও আমদানি করা হচ্ছে বিড়াল।

এক বিড়ালখাদক জানান, বিশ্বের কোথাও বিড়ালের মাংস খাওয়া হয় না। কিন্তু তারা খান। আর তিনি যখন কথা বলছিলেন তখনো তার হাতে ছিল বিড়ালের মচমচা মাংস। সেটি তিনি খুব আয়েশ করেই খাচ্ছিলেন।

তবে বিড়ালের মাংস খাওয়া নিয়ে ভিয়েতনামের অধিবাসীদের রয়েছে এক করুণ ইতিহাস। এক সময় তীব্র দারিদ্রতার কারণে জীবন বাঁচাতে দেশটির অধিবাসীরা পোকামাকড় খাওয়া থেকে শুরু করে কোনো কিছুই বাদ দিত না। তখন তারা কুকুর ও বিড়ালের মাংসও খেতো। কিন্তু যুগের পরিবর্তনে রান্নায় ব্যাপক পরিবর্তন আসায় বিড়ালের মাংস সুস্বাদু করে রাঁধতে পারে তারা। ফলে বিড়ালের মাংস খাওয়া এখন তাদের নিয়মিত অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। অবশ্য নিজের পোষা বিড়ালটির দিকে তীক্ষণ নজর রাখে ভিয়েতনামবাসী


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ