• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৫৫ অপরাহ্ন |

আজমীরের পথে, দিল্লি দুরাস্ত

Kaderকাদের সিদ্দিকী: ঈদ মোবারক। যদিও অনেকেই মাননীয় যোগাযোগমন্ত্রীর রাস্তাঘাটে এত বেশি ছোটাছুটি পছন্দ করে না। আর এটাও সত্য, রাস্তাঘাটে অত ছোটাছুটি করে ইট-পাথর-বালি দেখা তার কাজ নয়, মাঝে মাঝে ঘোরাফেরা করলেও তার কাজ কাগজ-কলমে সারা দেশের রাস্তাঘাট দেখা। তবু পবিত্র ঈদুল ফিতরে ঘরমুখো মানুষের কিছুটা কষ্ট কম হওয়ায় জনাব ওবায়দুল কাদেরকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। ঈদ শেষে নিরাপদে সবাই কর্মস্থলে ফিরতে পারলে মন্ত্রীকে আবার ধন্যবাদ জানাব। ঘরমুখো মানুষ দেখে এসেছি। কিন্তু হঠাৎ দিল্লি আসায় কর্মস্থলে তারা কতটা নিরাপদে ফিরছে তা দেখে আসিনি।

এখন সকাল ৯টা। দিল্লি-আজমীর শতাব্দী এক্সপ্রেস দুরন্ত গতিতে ধেয়ে চলছে আজমীরের দিকে। শতাব্দীর সবকটি আসনই চেয়ার। তাতে আবার প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণী আছে। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর তেমন পার্থক্য নেই, শুধু যা সেবাযত্নের পার্থক্য। দ্বিতীয় শ্রেণীতে দেরিতে খাবার আসে, প্রথম শ্রেণীতে ঘাড় ঘোরানোর আগেই চা-কফি-নাশতা হাজির। পরিবেশন বড় চমৎকার, সবই ঝকঝকে তকতকে। তবে কদিন আগে জি নিউজের কল্যাণে ভারতীয় রেলে খাবার তৈরির যে দুরবস্থা দেখেছি, এমনকি বাথরুমের পানিতে খাবার তৈরি করতে। তেমন হলে বড়ই মুশকিল। আমরা এইমাত্র রাজস্থানের গেট আলোয়ার পেরুলাম। বাংলাদেশের অসংখ্য মানুষ এখন আলোয়ারের নাম জানে। রানা উদয় সিংয়ের ছেলে মেবারের মহাবীর রানা প্রতাপ সিরিয়ালের কল্যাণে রাজস্থানের আলোয়ার এখন অনেকের কাছেই বেশ পরিচিত। মনে হয় এক সপ্তাহ আগের পর্বে আলোয়ার দুর্গে শাহানশাহ আকবরকে আক্রমণ করতে গিয়েছিল প্রতাপ। কিন্তু শাহানশাহ মাতাল হয়ে পড়ে থাকায় হত্যা করেনি। রাজপুত বীর জাতি, নিরস্ত্রের ওপর অস্ত্র ধারণ তাদের নীতিতে নেই। এখনো সেই মূল্যবোধ আছে কিনা জানি না। রাজপুতদের গর্ব মহারাজা শিবাজী, তাকে এক সময় ছলেবলে কৌশলে সম্রাট আওরঙ্গজেব আগ্রা দুর্গে বন্দী করেছিলেন। কিন্তু সেখান থেকে মালির মাথায় ফুলের ঝাঁপিতে চেপে তিনি পালিয়ে ছিলেন। মহারানা প্রতাপের উপাখ্যান খুবই গৌরবমণ্ডিত। কিন্তু শেরশাহর কাছে পরাজিত হয়ে সম্রাট হুমায়ুন যখন ইরানে নির্বাসিত তখন সম্রাট আকবর রাজপুতদের অমরকোট দুর্গে জন্মগ্রহণ করেন। এতকাল তার রাজপুত প্রীতির উপাখ্যান শুনেছি, কিন্তু রানা প্রতাপে শাহানশাহ আকবরকে যে অস্থির উগ্র মেজাজী হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে তাতে কেমন যেন সব তালগোল পাকিয়ে যাচ্ছে। সম্রাট আকবর একেবারে অশিক্ষিত হলেও দারুণ স্মৃতিশক্তিসম্পন্ন মেধাবী ছিলেন। তিনিই একমাত্র মোগল সম্রাট যিনি সারা ভারতকে একসূত্রে গেঁথে ছিলেন। তার রাজপুত স্ত্রী মহীয়সী নারী যোধাবাই ছিলেন সম্রাজ্ঞী। যোধাবাইয়ের ভাই মানসিং দীর্ঘ সময় মোগল সেনাপতি ছিলেন। যিনি বাংলার বারভূঁইয়া প্রধান ঈশা খাঁর সঙ্গে দ্বন্দ্বযুদ্ধে পরাজিত হয়ে ঈশা খাঁকে সাদরে সম্রাট আকবরের কাছে নিয়ে গিয়েছিলেন। সম্রাট আকবরও তাকে অসম্ভব সম্মান দেখিয়ে প্রায় স্বাধীনভাবে বাংলার সুবেদারি করতে দিয়েছিলেন। সেই সম্রাটকে এমন রাজপুত বিদ্বেষী হিসেবে সিরিয়ালটিতে তুলে ধরছে কেন বুঝতে পারছি না। তবে সিরিয়ালের মূলনায়ক যখন মেবারের মহাবীর রানা প্রতাপ, তখন তার কৃতিত্ব তো আকবরের চেয়ে বেশি থাকতেই হবে। এটাই নাটক থিয়েটার সিনেমার রীতিনীতি বা কলাকৌশল।

২ আগস্ট দিল্লি এসেছি। আগস্ট আমার জন্য শোকের মাস। আগস্ট মাসে তেমন নড়াচড়া করি না। মুক্তিযুদ্ধের সময় ১৬ আগস্ট এক সম্মুখযুদ্ধে ধলাপাড়ার মাকরাইয়ে গুলিবিদ্ধ হয়েছিলাম। বাঁচব তেমন আশাই ছিল না। শুধু আল্লাহর দয়ায় এখনো আছি। স্বাধীনতার মাত্র চার বছরের মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নির্মমভাবে নিহত হন। সে থেকে আগস্ট আমার কাছে এক দুর্বিষহ অন্ধকার, বেদনার মাস। এক সময় ১৫ আগস্ট সারা দিন দানাপানি গ্রহণ করতাম না। শরীর ও আত্দাকে কষ্ট দিতাম। সারা দিন ঘরের দরজা বন্ধ রাখতাম। এখন দরজা খুললেও ভালো লাগে না। সেই আগস্টে আচমকা দিল্লি এসেছি। গত মাসে বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম ২-৩ দিনের জন্য দিল্লি এসেছিল। অনেক দিন থেকে বলছিল, দিল্লি গেলে মহামান্য রাষ্ট্রপতি শ্রী প্রণব মুখার্জির সঙ্গে দেখা করতে চাই। আপনি আমার অ্যাপয়েন্টমেন্ট করে দেবেন। দাদার সঙ্গে আমার প্রটোকলের ব্যাপার নেই। সাহস করে বলেছিলাম, ঠিক আছে। যখন যাবে বলে দেব। সেই জন্য প্রথমে ফোন করেছিলাম মহামান্য রাষ্ট্রপতির এডিশনাল প্রাইভেট সেক্রেটারি শ্রী প্রদ্যুৎ গুহকে। আমি যখন ভারতে নির্বাসনে তখন শ্রী প্রদ্যুৎ গুহ পশ্চিমবঙ্গ যুব কংগ্রেসের খুবই জনপ্রিয় সভাপতি। তিনি বছর ১৫ বা তারও বেশি বর্তমান মহামান্য রাষ্ট্রপতি শ্রী প্রণব মুখার্জির এডিশনাল প্রাইভেট সেক্রেটারি হিসেবে ছায়াসঙ্গী। তার পরিবারের সবাই আমাকে ভীষণ ভালোবাসে, সম্মান করে। যখন যা বলেছি কখনো না করেনি। মনে হয় তারা না বলতে শেখেনি, কিংবা তাদের অভিধানে না বলে কোনো শব্দ নেই। প্রদ্যুৎ গুহকে ফোন করতেই বললেন, ‘বাঘা দা, ৩ তারিখ আমার ছেলে অভিমান্যুর বিয়ে। ইমেইল নম্বর দিন এখনই কার্ড পাঠাচ্ছি। আপনাকে কিন্তু আসতেই হবে।’ কী করে যে বলেছিলাম বেঁচে থাকলে নিশ্চয়ই আসব। তারপর দাদাকে ফোন করেছিলাম, বাংলাদেশ প্রতিদিনের এডিটর নঈম নিজাম আপনার সঙ্গে শুক্র-শনি যে কোনো দিন দেখা করতে চায়। বললেন, ‘তুমি বলছো। তুমি রিকমেন্ড করছো?’ হ্যাঁ, নঈম নিজাম আমার খুবই প্রিয়। ওর আগে যে পীর হাবিব দেখা করেছে তার পত্রিকার সম্পাদক নঈম নিজাম। এত অল্প সময় অত জনপ্রিয়তা বা প্রচার আর কোনো পত্রিকা পায়নি। ‘ঠিক আছে, পাঠিয়ে দিও।’ দাদা নিজেই তার পিএ, পিএসের নম্বর দিয়েছিলেন। মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে এটা ওটা বলতেও দ্বিধা হয়, আবার যখন কথা বলি তখন আপনজনের মতো মনে হয়। রাষ্ট্রপতি-রাষ্ট্রপতি মনে হয় না। সময়ে-অসময়ে ফোন করলে নিজের ভাইকে পেতে দেরি হয়, কিন্তু ভারতের মহামান্য রাষ্ট্রপতি প্রণবদাকে পেতে দেরি হয় না। ভারতের আরও অনেক বড় বড় বিখ্যাত নেতাদের ফোন করেও সহজেই পেয়ে যাই। তাই মাঝে মাঝে কিছুটা বিস্মিত তো হই-ই। পীর হাবিব প্রণবদার সঙ্গে দেখা করে অভিভূত হয়ে ৩৪০ কক্ষের রাষ্ট্রপতির ভবন থেকে বেরিয়েই ফোন করেছিল, ‘দাদা, দাদা আপনাকে ভীষণ ভালোবাসেন। শুধু আপনার কথাই হচ্ছিল অনেকক্ষণ। তিনি বাংলাদেশের দুজনকে সব থেকে বেশি ভালোবাসেন। একজন আপনার বোন, আরেকজন আপনি। মহামান্য রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে আসা নঈম নিজামেরও একই অনুভূতি।

ভারতের বিশাল রাষ্ট্রপতি ভবনে আগেও গেছি। শ্রী নিলাম সঞ্জীব রেড্ডি এবং শ্রী জৈল সিংয়ের সময় বেশ কয়েকবার। তাছাড়া স্বাধীনতার পরপরই শ্রী ভিভি গিরি রাষ্ট্রপতি থাকতে সেই ‘৭২-এ গিয়েছিলাম। কিন্তু প্রণবদা রাষ্ট্রপতি হওয়ায় রাষ্ট্রপতি ভবন নিজেদের বাড়ি বাড়ি মনে হয়। রাষ্ট্রাচার আছে। কিন্তু ভিতরে ঢুকলে আর কোনো বাধানিষেধ নেই। মায়ের মতো দিদি শুভ্রা মুখার্জি অসুস্থ শরীরেও পাশে বসে মাথায় হাত ভুলিয়ে দেন। বয়সে আমার থেকে তেমন বেশি কি আর বড় হবেন, ৬-৭ বছর। কিন্তু অসুস্থতা তাকে ধ্বংস করে দিয়েছে। সেই রাষ্ট্রপতির ভবনের আরবি গেস্ট হাউসে (২ এমটিসি) প্রদ্যুৎ গুহের ছেলে অভিমান্যুর বিয়ে। সে এক এলাহী কারবার! আমাদের যথেষ্ট সমাদর করেছেন। প্রণবদার ছেলে পিন্টুর বিয়েতে সুবার্তু পার্ক, দিল্লি ক্যান্টনমেন্টে গিয়েছিলাম। দাদা তখন প্রতিরক্ষামন্ত্রী। অনেকের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন। সেখানে যেমন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ ছিলেন, তেমনি লাল কৃষ্ণ আদভানি, অটল বিহারি বাজপেয়ি, সোনিয়া গান্ধী আরও অনেকের সঙ্গে টাইগার সিদ্দিকী বলে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু এখন প্রণবদা মহামান্য রাষ্ট্রপতি, তাই প্রটোকলে বাধে। কিন্তু তবু যে গুরুত্ব এবং সম্মান দেখিয়েছেন তাতে অভিভূত না হয়ে পারিনি। দিল্লি এলেই আজমীরে যাই। কেন যেন খাজা গরীব নেওয়াজ মঈনুদ্দিন চিশতির আজমীর আমায় ভীষণ টানে। সেই টানে আকুল হয়ে ছুটে যাই। নাসরীনের সঙ্গে বিয়ের পরপরই আজমীর গিয়েছিলাম। আজমীর থেকে ফিরে দীপ মায়ের পেটে আসে। তাই বড় আশা করেছিলাম, দীপ এক কর্মবীর হবে। ধার্মিক হয়েছে সত্য, এখনো কর্মবীর হয়নি। ২৯ বছর বয়স বিয়ের নাম করে না, তাই মনটা কখনো সখনো খারাপ থাকে। আজমীরে সন্তানের প্রার্থনা নিয়ে গিয়েছিলাম, খাজা বাবার দোয়া আল্লাহ কবুল করেছিলেন। আজ যাচ্ছি আমার সন্তানের সন্তান প্রার্থনা বুকে নিয়ে। আলোয়ার পার হয়ে যখন রাজস্থানের সীমানায় ঢুকছিলাম তখন বারবার মনে হচ্ছিল দুর্গ দখল করে সম্রাট আকবর হাজী খাঁকে বন্দী করেছিলেন। মহাবীর রানা প্রতাপ আবার তা জয় করে হারানো দুর্গসহ সবকিছু হাজী খাঁকে ফিরিয়ে দিয়েছে। শাহানশাহ আকবর সে যাত্রায় প্রাণ হাতে নিয়ে আগ্রায় পালিয়ে গেছেন। এ থেকে বোঝা যায় সকালের বাদশা, বিকালে ফকির। আল্লাহ সবকিছু করেন, সবকিছু পারেন। আল্লাহর দয়ায় কি না হয়! তাই যাচ্ছি খাজা বাবার দরবারে। দিল্লি-আজমীর শতাব্দী এক্সপ্রেস সকাল ৬.১০ মিনিটে আজমীরের উদ্দেশে রওয়ানা হয়, আবার ৩.৫০ এ সেখান থেকে ছেড়ে রাত ১০টায় দিল্লি পৌঁছে। এই হলো শতাব্দীর প্রতিদিনের কাজ। আজ মাজারে থেকে কাল দিল্লি ফিরব। তারপর আল্লাহ চাহে তো ঢাকা।

তার আগে দুই-চারজনের সঙ্গে দেখা করব। মহামান্য রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা হয়েছে, আবার ফেরার পথে দেখে যাব। বিশেষ করে এম. জে. আকবর, হিরণময় কার্লেকর, দেব মুখার্জি, মুসকুন্দ দ্যুবে ও বীণা সিক্রির সঙ্গে অবশ্যই দেখা করে কথা বলে যাব। হিরণময় কার্লেকরকে মুক্তিযুদ্ধের সময় থেকেই চিনি, জানি। এম. জে. আকবরের সঙ্গে পরিচয় প্রবাস জীবনে। আমি যখন নির্বাসনে শ্রী দেব মুখার্জি তখন বাংলাদেশে ভারতের রাষ্ট্রদূত। মোটামুটি ভারতের জনপ্রিয় রাষ্ট্রদূত হিসেবে শ্রী দেব মুখার্জি, শ্রী মুসকুন্দ দ্যুবে এবং শ্রীমতী বীণা সিক্রিকে উল্লেখ করা হয়। তারা মানুষের অনেক কাছাকাছি যেতে পেরেছিলেন। ‘৭৭-এর কংগ্রেসের পতনের পর শ্রী মোরারজি দেশাইর সরকারের সময় কবিগুরুর গীতাঞ্জলির অনুবাদক শ্রী মুসকুন্দ দ্যুবে সাউথ ব্লকে ডেপুটি সেক্রেটারি হিসেবে (B.S.M.) মানে বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্গা, মালদ্বীপের দায়িত্বে ছিলেন। আমাদের প্রতিরোধ সংগ্রামীদের পুরো ব্যাপারটা মূলত তিনিই দেখাশোনা করতেন। অমন সিংহহৃদয় সোনার মানুষ খুব বেশি হয় না। ‘৯০-এর ১৬ ডিসেম্বর যেদিন দেশে ফিরি তিনি তখন পররাষ্ট্র সচিব আর শ্রী চন্দ্র শেখর প্রধানমন্ত্রী। টেলিফোনে দুজনই আমার নিরাপদ স্বদেশ ফেরা কামনা করেছিলেন। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী শ্রী জ্যোতি বসু দমদম বিমানবন্দরে ফোন করে নিরাপদ স্বদেশ প্রত্যাবর্তন চেয়েছিলেন। সর্বোদয় নেতা শ্রী জয় প্রকাশ নারায়ণের নির্দেশে শ্রী চন্দ্র শেখর আমায় বহুদিন দেখাশোনা করেছেন। নেতৃত্বের যত গুণ থাকা দরকার শ্রী চন্দ্র শেখরের তার সবই ছিল। জ্যোতি বসু নেই, শ্রী চন্দ্র শেখর নেই। শ্রীমতী বীণা সিক্রি যখন ঢাকায় ভারতীয় রাষ্ট্রদূত, তখন তার সঙ্গে দিল্লি থেকে ফেরার পথে বিমানে প্রথম পরিচয়। আমরা পাশাপাশি বসেছিলাম। আমি অমন সাবলীল আত্দপ্রত্যয়ী নিরলস কোনো মহিলা কর্মকর্তা জীবনে দেখিনি। আমাকে আনার জন্য বিমানবন্দরে দীপ-কুঁড়ি তাদের মা নাসরীনের সঙ্গে গিয়েছিল। তাদের সঙ্গে বীণাজির দেখার পর এমন মধুর ব্যবহার করেছিলেন যা আজো আমার ছেলে-মেয়ে এবং স্ত্রীর মনে গেঁথে আছে। তারপর কতবার তার গুলশানের ইন্ডিয়া হাউসে জাতীয় দিবস অথবা ব্যক্তিগত আমন্ত্রণে গেছি হিসাব নেই। একবার তথ্যমন্ত্রী হিসেবে প্রিয় রঞ্জন দাসমুন্সী ঢাকা এসেছিলেন। আমি তার কাছে প্রণবদার জন্য কিছু উপহার দিয়েছিলাম। সোনারগাঁও হোটেলে যখন আমার কর্মীরা উপহার সামগ্রী পৌঁছে দিতে যায় তখন দাসমুন্সীর পিএ পিএস তেমন গা করছিলেন না। বীণাজি জিনিসপত্র নিজে নিয়ে দাসমুন্সীর সহকারীকে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন যথাযথভাবে পৌঁছে দিতে। প্রণবদাকে লেখা আমার ব্যক্তিগত চিঠি জিনিসপত্রের মধ্যে রাখতে গেলে মান্যবর হাইকমিশনার বীণাজি দাসমুন্সীর পিএ-কে ধমকে দিয়ে তার ব্যক্তিগত ব্রিফকেসে ঢুকিয়ে দিয়েছিলেন। সহকর্মীর কাছে বর্ণনা শুনে শ্রদ্ধা, ভালোবাসা, কৃতজ্ঞতায় মন ভরে গিয়েছিল। তারা আমাদের মতো আত্দসম্মান বিবর্জিত নন। কনিষ্ঠ কাউকে সচিব করায় তার স্বামী শ্রী রাজীব সিক্রি পররাষ্ট্র সচিবপূর্ব হিসেবে স্বেচ্ছা অবসর নিয়েছিলেন। কিন্তু আমাদের কেউ কখনো পদ ছাড়ে না। পদ চলে গেলেও চেয়ার ধরে থাকতে চায়।

বহুদিন তার ঠিকানা ছিল না, তাই যোগাযোগ করতে পারিনি। অনেক খোঁজাখুঁজি করে ঠিকানা পেয়ে ই-মেইল করেছিলাম। সঙ্গে সঙ্গে জবাব পেয়েছি। তাই আজমীর থেকে ফিরেই বীণাজির সঙ্গে দেখা করব। বাড়ি ফিরে পাঠকদের এবারের সফরের বর্ণনা দেব। পরম দয়ালু আল্লাহ সবার মঙ্গল করুন।

লেখক : রাজনীতিক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ