• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:২২ অপরাহ্ন |

খানসামায় হত্যার চেষ্টা মামলার বাদীকে হুমকি দিয়েছে আসামীরা

mamlaখানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের খানসামায় প্রেমিকার পেটে সন্তান আসায় পাটক্ষেতে নিয়ে হত্যারচেষ্টা মামলার বাদীকে সন্ত্রাসী দিয়ে হুমকি। বীরদর্পে ঘুরছে আসামী পরিবার। মামলা ভিন্ন খাতে নিতে প্রভাবশালীদের জোড় তৎপরতা চলছে।
ঘটনা সূত্র, উপজেলার দুবলিয়া গ্রামের প্রফেসার পাড়ার তরকারী বিক্রেতা রমেশ চন্দ্র রায় ওরফে বানিয়ার মেয়ে স্মৃতি রানীর (১৬) সাথে একই এলাকার প্রফেসার ব্রজেন্দ্র নাথ রায়ের ছেলে সুব্রত রায় (২২) বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমের ফাঁদে ফেলে। পরে প্রেমের সম্পর্কের এক পর্যায় দৌহিক সম্পর্ক গড়ে উঠলে স্মৃতি রানী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পরে। এ খবর জানতে পেরে প্রভাবশালী পিতার পরামর্শে সুব্রত রায় স্মৃতিকে পেটের সন্তান নষ্ট করতে বলে। এতে সে রাজি না হওয়ায় গত ২২ জুন বাড়ীর পার্শ্ববর্তী একটি পুকুরে গোসল করতে গেলে তাকে একাকী পেয়ে সুব্রত রায় মুখ চেপে ধরে পুকুর পাড় সংলগ্ন একটি পাটক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণের পর মুখে বিষ ও দাহ্য পদার্থ দিয়ে হত্যা চেষ্টা করলে সে সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়ে। পরে গ্রামবাসী মেয়েটিকে উদ্ধার করে দিমেক হাসপাতালে ভর্তি করান।
এ ঘটনায় মেয়ের বাবা রমেশ চন্দ্র বাদী হয়ে খানসামায় থানায় অভিযোগ দিলে ছেলের প্রভাবশালী পিতা ঘটনা অন্যদিকে প্রবাহিত করার চেষ্টা করে। কিন্তু গ্রামবাসীর চাপের মুখে তা বিফল হয়ে যায় এবং বীরগঞ্জ সার্কেল এএসপি অসিত কুমার ঘোষ এবং খানসামা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃষ্ণ সরকার তদন্ত করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী-০৩)-এর ৯(১) তৎসহ দন্ডবিধি আইনের ৩০৭/৩১৫ ধারায় মামলা রেকর্ড করেন। বর্তমানে আসামী পরিবার ঠাকুরগাও জেলায় বীরদর্পে চলাফেরা করছে এবং মামলার বাদীকে সন্ত্রাসী দিয়ে হত্যার হুমকি প্রদান করছে। বিষটিতে খানসামা থানা কর্তৃপক্ষ কোনো আগ্রহ না দেখায় অসহায় বাদী রমেশ চন্দ্র দিশেহারা হয়ে পড়েছে। এলাকাবাসী জানায়, খানসামা থানার ওসি কৃষ্ণ সরকার এবং বীরগঞ্জ সার্কেল এএসপি অসিত কুমার ঘোষ আসামীদের যোগসাজসে নিরব ভূমিকা পালন করছে।
এ ব্যাপারে প্রথমে খানসামা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃষ্ণ সরকারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মামলার বিষয় সাক্ষ্যগ্রহণ চলছে নির্দিষ্ট সময়ে চার্জসীট জমা দেয়া হবে। কোনো আসামী ধরা হয় নি।
পরে বীরগঞ্জ সার্কেল এএসপি অসিত কুমার ঘোষের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, ছেলে অপরাধী হলে কি তার বাবাও অপরাধী হবে। আর মামলা হলেই কি আসামী গ্রেফতার করতে হবে। এলাকাবাসী যাই বলে বলুক, মামলার চার্জসীট এলে তখন গ্রেফতার করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ