• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১০:২০ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি জিতু গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ শ্রেণিকক্ষে রাবি শিক্ষিকাকে মারতে গেলেন ছাত্র! অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযােগ এনজিও’র দুই কর্মকর্তা গ্রেফতার জলঢাকায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে কর্মশালা ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

পিনাক-৬ লঞ্চের নিখোঁজ যাত্রীদের তালিকা প্রকাশ

VIDEO0013_WMV V9সিসিনিউজ : মুন্সিগঞ্জের মাওয়ায় লঞ্চডুবির ৩৬ ঘণ্টা পার হয়ে গেছে। কিন্তু নিখোঁজ যাত্রীদের কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। তবে নিখোঁজ যাত্রীদের একটি তালিকা তৈরী করেছেন মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসন। তালিকায় ১২৯ জনকে নিখোঁজ দেখানো হয়েছে। কিন্তু সময় যত যাচ্ছে, এ তালিকায় আরো নাম যুক্ত হচ্ছে।

এতে দেখা যায় নারায়ণগঞ্জ ৭ জন, মাদারীপুর ৪৫, শরীয়তপুর ৪, ফরিদপুর ৩২, গোপালগঞ্জ ২০, বরিশাল ৬,  ঢাকা ৪, লক্ষ্মীপুর ৩ ও বাগেরহটের ২ জন নিখোঁজ রয়েছেন। এছাড়া, নরসিংদী ঝালকাঠি, চাঁদপুর ও কুমিল্লার একজন করে নিখোঁজ রয়েছেন। এই নিখোঁজেরা অন্তত ৮০টি পরিবারের সদস্য। পরিবারগুলোতে একজন থেকে সর্বোচ্চ সাতজন সদস্য নিখোঁজ রয়েছেন।

সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পদ্মা নদীতে লঞ্চটি সনাক্ত করতে চেষ্টা অব্যাহত আছে। লঞ্চটি সনাক্ত করতে সম্ভাব্য ছয় কিলোমিটার এলাকা জুড়ে চিরুনি অভিযান চালানো হচ্ছে। এ পর্যন্ত ছয় জনের লাশ উদ্দার করা হযেছে। তবে ভোলায় ও পদ্মায় আরো বেশ কয়েকটি লাশ পাওয়া গেছে। এগুলো ওই লঞ্চের যাত্রী ছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, নিখোঁজ শতাধিক যাত্রী মারা গেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। লঞ্চটির ধারণক্ষমতা ছিল ৮৫ জন যাত্রীর। কিন্তু তারা অনেক বেশি যাত্রী তুলেছিল।

বিবিসিকে এক সাক্ষাৎকারে শাজাহান খান জানান, ঈদের আগে ৩৩টি ঝুঁকিপূর্ণ লঞ্চকে চিহ্নিত করা হয়েছে। সে তালিকায় এই লঞ্চটিও ছিল। এগুলো বন্ধের জন্য সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও মালিক সমিতি এর প্রতিবাদে ধর্মঘট করে। পরে অনেকটা গায়ের জোরে তারা ওই লঞ্চগুলো চালু করেছে। জনবল-সংকটের কারণে আমাদের পক্ষে তদারকি ঠিকমতো করা সম্ভবপর হয়নি বলেও জানান তিনি।

এদিকে, পদ্মার তীরে নিখোঁজ যাত্রীদের স্বজনদের ভিড়ও ক্রমশই বাড়ছে। জীবিত কাউকে উদ্ধার করার আশা ক্ষীণ হলেও স্বজনদের লাশের জন্য তারা অধীর আগ্রহে অপেক্ষার প্রহর গুনছেন। আর নিখোঁজদের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম।

প্রসঙ্গত, কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে গত সোমবার সকাল সাড়ে ৯টায় পিনাক-৬ লঞ্চটি মাওয়া ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে আসে। মাওয়া ঘাট থেকে একটু দূরে উঁচু ঢেউ ও প্রবল স্রোতের কবলে পড়ে অতিরিক্ত যাত্রীবাহী লঞ্চটি ডুবে যায়। স্থানীয় স্পিডবোটের চালকেরা তাৎক্ষণিকভাবে ছুটে গিয়ে ৮০-৯০ জন যাত্রীকে উদ্ধার করতে সক্ষম হন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ