• বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১২:১২ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
ইউনূস, হিলারি ও চেরি ব্লেয়ারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি সংসদে মার্কেট-শপিং মলে মাস্ক বাধ্যতামূলক করে প্রজ্ঞাপন খানসামায় র‌্যাবের অভিযান ইয়াবাসহ দুই মাদককারবারী গ্রেপ্তার ডোমার ও ডিমলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ উদ্যোগ নিয়ে কর্মশালা নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে তথ্যসংগ্রহকারী ও সুপারভাইজারদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত জয়পুরহাট বিনা খরচে আইনের সেবা পেতে সেমিনার শিক্ষক লাঞ্চনা ও হেনস্তার বিরুদ্ধে সৈয়দপুরে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর প্রতিবাদ সমাবেশ সৈয়দপুরে শহীদ আমিনুল হকের স্মরণসভা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে বিনামূ‌ল্যে বীজ ও সার বিতরণ

মোবিক্যাশের বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধের সিদ্ধান্ত

Grameenphoneসিসি ডেস্ক: গ্রামীণ ফোনের মোবিক্যাশ সেবার প্রচারণামূলক বিজ্ঞাপন বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একই সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগে প্রাইম ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম ইজিক্যাশের লাইসেন্স বাতিলেরও সিদ্ধান্ত হয়েছে। গতকাল কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ সিদ্ধান্ত নেয়। আজ এ বিষয়ে দুটি প্রতিষ্ঠানকে আলাদাভাবে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেয়া হবে।

ক্রিকেট ম্যাচ ও ট্রেনের টিকিট ক্রয়সেবা ও বিভিন্ন ইউটিলিটি (পরিষেবা) বিল পরিশোধের অনুমোদন নিয়ে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করছে মোবিক্যাশ। গত ২০ জুলাই বণিক বার্তায় ‘অনুমোদনহীন ব্যাংকিং সেবায় মোবিক্যাশ’ শীর্ষক সংবাদ প্রকাশের পরই বিষয়টি নজরে আসে বাংলাদেশ ব্যাংকের। বিষয়টির সত্যতা প্রমাণ হওয়ায় আপাতত প্রচারণা বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। পরে সেবা বন্ধের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে। শিগগিরই গ্রামীণফোনকে চিঠি দিয়ে এ সিদ্ধান্তের বিষয়ে জানানো হবে।

এদিকে মোবাইল ব্যাংকিং সেবার অনুমোদন নিয়ে প্রাইম ব্যাংক এজেন্ট নিয়োগ বাণিজ্যে জড়িয়ে পড়ায় তাদের ইজিক্যাশ সেবার লাইসেন্স বাতিলের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বাংলাদেশ ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা গতকাল রাতে বলেন, মোবিক্যাশের বিজ্ঞাপন দেখে মনে হচ্ছে, তারা ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করছে, যা নিয়ে জনমনে ভুল ধারণা সৃষ্টি করছে। এ কারণে আপাতত তাদের বিজ্ঞাপন বন্ধের নির্দেশ দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। পরবর্তী সময়ে লাইসেন্সের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে। তবে ইজিক্যাশের লাইসেন্স বাতিলের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

জানা যায়, বাংলাদেশ ব্যাংক এক পত্রে মোবিক্যাশের মাধ্যমে গ্রামীণফোনকে তিন ধরনের সেবার অনুমোদন দেয়। এগুলো হলো— ক্রিকেট ম্যাচ ও ট্রেনের টিকিট ক্রয় এবং পরিষেবা বিল পরিশোধ। তবে এর মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা চালু রেখেছে গ্রামীণফোন। মোবিক্যাশের মাধ্যমে মোবাইল ব্যাংকিং পরিচালনা করছে বেসরকারি খাতের ডাচ্-বাংলা, ওয়ান, ইউসিবিএল, মার্কেন্টাইল ও ইসলামী ব্যাংক। গ্রামীণফোনের সঙ্গে একটিমাত্র চুক্তির আলোকেই মোবিক্যাশের প্রায় ৫৫ হাজার এজেন্টের মাধ্যমে সেবাটি দিচ্ছে তারা, যা মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস নীতিমালার লঙ্ঘন।

এদিকে প্রাইম ব্যাংককে মোবাইল ব্যাংকিং পরিচালনার লাইসেন্স দেয়ার পর তারা সলিউশন প্রোভাইডার এসএমজি ইনফোকম লিমিটেডের সঙ্গে এ বিষয়ে সেবা দেয়ার জন্য চুক্তি করে। এর পর প্রতিষ্ঠানটি ব্যাংকের লোগো ব্যবহার করে বিজ্ঞাপন দিয়ে মোটা অঙ্কের জামানত নিয়ে প্রায় আড়াই হাজার লোক নিয়োগ করে। এদের কাছ থেকে জামানত হিসেবে প্রায় ২৫ কোটি টাকা নেয়া হয়েছে। যদিও প্রতিষ্ঠানটি দাবি করেছে, তারা জামানত হিসেবে নিয়েছে ৬ কোটি ৬১ লাখ টাকা। কিন্তু প্রতিষ্ঠানের অডিট রিপোর্টে এ খাতে ১৫ কোটি ৭৮ লাখ টাকা নেয়ার তথ্য রয়েছে। এসবের কারণে প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। প্রাইম ব্যাংক এসব জেনেও প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। উল্টো তাদের সঙ্গে চুক্তি বাতিল না করে আরেকটি কোম্পানি ইউনিট্রেন্ড নেটওয়ার্কের সঙ্গে চুক্তি করে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দেয়ার জন্য। নতুন এ প্রতিষ্ঠানের দুজন পরিচালক হচ্ছেন জুলফিকার আহমেদ ও মুনির আহমেদ খান। তারা প্রতারণার দায়ে অভিযুক্ত এসএমজি ইনফোকমেরও পরিচালক ছিলেন। এর পর কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে অর্থ ফেরত আনার নির্দেশ দেয়া হলেও তা পালন করেনি ব্যাংকটি। এসব কারণে ইজিক্যাশ সেবার অনুমোদন বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ