• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪৮ পূর্বাহ্ন |

আন্দোলন আতঙ্কে শিক্ষার্থীরা

86784_1সিসি ডেস্ক: গত একমাস রমজান জুড়েই বন্ধ ছিল সারাদেশের স্কুল-কলেজগুলো। টানা একমাস ছুটি শেষে বৃহস্পতিবার থেকে ফের শুরু হয়েছে শিক্ষা কার্যক্রম। বছরের শেষ মুহূর্তে প্রস্তুতি ফাইনাল পরীক্ষার। কিন্তু বাধ সেধেছে বিএনপির ‘সরকার পতন’ আন্দোলনের ঘোষণা। আন্দোলন সহিংস হলে বিঘ্নিত হবে শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তা আর ব্যাহত হবে শিক্ষা কার্যক্রম। বিগত দিনের অভিজ্ঞতা থেকেই এমন শঙ্কা শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষকদের।

সরকার পতনের জন্য রমজানেই আন্দোলন করার ঘোষণা দেয় বিএনপি। ঈদের পর সেই আন্দোলনে শরিকদের সক্রিয় হওয়ার আহ্বান ছিল জোটনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার। এখন চলছে আন্দোলনের প্রস্তুতি। শিগগিরই তা ঘোষণা করা হবে বলে বিএনপি নেতারা জানিয়েছেন।

আন্দোলন প্রসঙ্গে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেন, ‘শিগগিরই বিএনপির নেতৃত্বে ২০ দলীয় জোট আন্দোলনের কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামবে। কর্মসূচিগুলো হবে গণতন্ত্র স্বীকৃত এবং আইনসঙ্গত। সরকারের আচরণের ওপর নির্ভর করবে আন্দোলনের রূপ কী রকম হবে এবং কতটুকু তীব্র থেকে তীব্রতর হবে। এর আগে বিরোধীদের বিভিন্ন কর্মসূচির ওপর গুলি চালিয়ে মানুষ হত্যা করছে সরকার। এবার সরকার অস্ত্র ব্যবহার করলে বিরোধী দল খালি হাতে দাঁড়িয়ে থাকবে না।’

এদিকে আগামী ১৩ আগস্ট এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে। ১১ লাখ ৪১ হাজার ৩৭৪ শিক্ষার্থী ফল পাওয়ার পর অংশ নেবে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায়। আর ৩১ লাখ শিক্ষার্থীর প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা শুরু হবে ২৩ নভেম্বর। এছাড়াও বছর শেষে সব স্কুল-কলেজে অনুষ্ঠিত হবে বার্ষিক পরীক্ষা।

২০১৩ সালে বিএনপি জোটের আন্দোলন-হরতালে একাধিকবার পেছায় এসএসসি, এইচএসসি, প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা। এমনকি গত বছর মার্চে লালমনিরহাট সদর উপজেলার খুনিয়াগাছ ইউনিয়নের দুটি স্কুলে হামলা চালায় হরতাল সমর্থকরা। এতে তিন শিক্ষক ও ১১ শিক্ষার্থী আহতও হয়। মে মাসে বগুড়ায় হরতালের সমর্থনে শিবিরের নিক্ষেপ করা হাতবোমা বিস্ফোরণে আহত হয় স্কুলছাত্রী সাদিয়া। সে বগুড়া সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী ছিল। ডিসেম্বরে চট্টগ্রামে পুলিশের সঙ্গে অবরোধকারীদের সংঘর্ষে ককটেল বিস্ফোরণে এক স্কুলছাত্রী আহত হয়।

৫ জানুয়ারির নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা জন্য নির্ধারিত শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগুনে পুড়িয়ে দেয় বিক্ষোভকারীরা। নির্বাচন পরবর্তী সময়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ জানান, নির্বাচনী সহিংসতায় স্কুল-কলেজ ও মাদরাসা মিলে ৫৩১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৪১৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৮২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২১টি মাদরাসা ও ৯টি কলেজ।

গত বছরের এসব ঘটনার কথা উল্লেখ করে জাহিদুল ইসলাম নামের এক অভিভাবক বলেন, ‘সামনে ছেলে-মেয়েদের পরীক্ষা। এখন তাদের নিয়মিত ক্লাস হওয়া জরুরি, কিন্তু আন্দোলন হলে কিংবা হরতালের কর্মসূচি থাকলে ছেলে-মেয়েদের ক্লাস ঠিক মত হবে না। আর অনিশ্চয়তার মধ্যে থাকার ফলে পরীক্ষার ফলাফলে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।’

এইচএসসি পরীক্ষার ফলের জন্য অপেক্ষা করছে নাজনিন নাহার। তিনি বলেন, ‘পরীক্ষার ফল প্রকাশ হলেই আমাদের ছুটতে হবে ভর্তির জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে। গত বছর খবরে দেখেছি অনেকেই অবরোধের কারণে ভর্তি পরীক্ষা দিতে পারেনি। আমরা চাই না আমাদের বেলায় এমন ঘটনা ঘটুক।’

তবে আশাবাদী মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক ফাহিমা খাতুন। তিনি  বলেন, ‘আমরা আশা করি শিক্ষা কার্যক্রম ব্যহত হয় এমন কিছু করবে না রাজনৈতিক দলের নেতারা। শিক্ষা কার্যক্রম স্বাভাবিক গতিতেই চলবে। শিক্ষা ধ্বংস করে আন্দোলনে সুফল আসবে না, সেটা নেতারাও জানেন। তাদের কাছে আমাদের অনুরোধ থাকবে জাতির জন্য মঙ্গলজনক নয় এমন কর্মসূচি যেন তারা না দেন।’

শিক্ষা বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সদস্য ও বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের (বিএনএফ) প্রধান সমন্বয়কারী আবুল কালাম আজাদ  বলেন, ‘আমরা চাই শিক্ষা কার্যকম স্বাভাবিক থাকুক। বিএনপির বিগত সময়ের আন্দোলনের অভিজ্ঞতা নিয়ে এমন কোনো কর্মসূচি দেবে না বলে আমি মনে করি। কারণ জনগণের বিরুদ্ধে গিয়ে, শিক্ষার ক্ষতি করে আন্দোলন করে তারা সুফল পাবে না। তারাও এখন ক্ষমতায় এলে নিশ্চয়ই শিক্ষাকার্যক্রম বন্ধ করে দেবেন না।’

তবে আশ্বস্ত হতে পারছে না শিক্ষার্থীরা। অষ্টম শ্রেণির ছাত্র নাইমুল আহমেদ বলেন, ‘পরীক্ষার আগে সিলেবাস শেষ না করতে পারলে ভালো ফল করা সম্ভব না। এজন্য আমাদের নিয়মিত ক্লাস প্রয়োজন। কিন্তু হরতাল-অবরোধ থাকলে ক্লাস হয় না। এছাড়াও এ সময়ে ঘর থেকে বের হতে ভয় লাগে। আমরা গতবছর টিভিতে দেখেছি কত ছাত্র-ছাত্রী ককটেলে আহত হয়েছে।’

উৎসঃ   বাংলামেইল২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ