• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৫১ অপরাহ্ন |

জলঢাকায় পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক কমিটি গঠিত

awami-leagueজলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি: নীলফামারীর জলঢাকায় আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ পৌর শাখার উদ্যোগে কার্যনির্বাহী কমিটির এক জরুরী কর্মী সভা শনিবার সকাল ১০টায় দলীয় কার্যালয়ে পৌর শাখার সভাপতি রোস্তম আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সালাউদ্দিন কাদের, প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মশিউর রহমান বাবু, বিশেষ অতিথি উপজেলা সাংগঠনিক সম্পাদক হাসানুজ্জামান সিদ্দিকী। বক্তব্য রাখেন জাহিনুর ইসলাম জীবন, নিমাই চন্দ্র রায়, ওহাব মিয়া, জেনারুল ইসলাম, মমিনুর রহমান, মানিক ইসলাম, হাসানুর রহমান, জিকরুল ইসলাম, জহুরুল ইসলাম, পরিমল প্রমূখ। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগের কার্যনির্বাহী কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে ১৬ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়। এতে পৌর শাখার সভাপতি রোস্তম আলীকে আহবায়ক করা হয়। এ কমিটিকে আগামী ৩ মাসের মধ্যে প্রতিটি ওয়ার্ড কমিটি গঠন করে পৌর শাখার সম্মেলন করার জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়।

শ্বশুর-শ্বাশুড়ীর নির্যাতনে গৃহবধু হাসপাতালে
নীলফামারীর জলঢাকায় স্ত্রীর স্বীকৃতি চাইতে গিয়ে শ্বশুর-শ্বাশুড়ীসহ বরের আত্মীয় স্বজনের নির্যাতনের শিকার হয়ে গোলাপী এখন হাসপাতালে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে। জানা যায়, মীরগঞ্জ ইউনিয়নের পাঠানপাড়া হাজীপাড়া এলাকার গোলাপ খানের মেয়ে জেসমিন খানম গোলাপীর (১৮) সাথে সম্পর্ক করে ২৯ জুলাই কোর্টের মাধ্যমে বিয়ে এফিডেভিট করে এবং পরদিন কাজী দিয়ে বিয়ে রেজিঃ করেন একই ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের পাটোয়ারীপাড়া গ্রামের ছাইদুল ইসলাম বসুনিয়ার ছেলে হাবিবুল্লাহ বাশারের (২২) সাথে। কিন্তু ছেলের বাবা-মা বিয়ে মেনে না নেওয়ায় তাদের ঘর সংসার হয় বাহিরে। গত ৬ই আগষ্ট বুধবার মোবাইল ফোনে মেয়েকে ছেলের বাপের বাড়ীতে আসতে বলে ছেলে উধাও হয়। সরেজমিনে বুধবার ছেলের বাড়ীতে গিয়ে দেখা গেছে, ছেলের বাড়ীর কাছে মেয়েটি কাঁদছে। জানতে চাইলে গোলাপী কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, “গত ২৯ জুলাই আমরা কোর্টে বিয়ে রেজিঃ করি এবং পরদিন কাজী ও মৌলভী দিয়ে বিয়ে করি। আমাকে আজ মোবাইল ফোনে এখানে আসতে বলে। আমি এসে দেখি আমার স্বামী (বাশার) বাসায় নেই। শ্বশুর-শ্বাশুড়ীর বাসায় ঢুকতে চাইলে আমাকে মারধর করে। উপায়ন্তর না দেখে স্ত্রীর অধিকার আদায়ের জন্য এখানেই বসে আছি।” এসময় সংবাদকর্মীদের উপস্থিতিতে মেয়েটি আবার তার শ্বশুর-শ্বাশুরীর বাসায় ঢুকতে গেলে তাকে মারধর করে। নির্যাতনের ছবি তুলতে গেলে সাংবাদিকদের সাথেও অসৌজন্যমূলক আচরণ করে ছেলের পরিবার। এদিকে শুক্রবার সকালে উপজেলা মানবাধিকার কর্মী ও সাংবাদিকরা মেয়েটির খোঁজ পুনরায় নিতে গেলে জানতে পারেন মেয়েটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। পরক্ষণেই নীলফামারী সদর হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, অক্সিজেনরত অবস্থায় নির্যাতিতা মেয়েটি কাতরাচ্ছে। পাশে বসে থাকা নির্যাতিতা মেয়েটির নানী জামিলা বেগম জানান, আমার নাতিনীকে তারা এমনভাবে নির্যাতন করেছে সে অজ্ঞান হয়ে যায়। একপর্যায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য নীলফামারী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ বিষয়ে মেয়েটির স্বামী হাবিবুল্লা বাসারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাকে না পেয়ে কথা হয় তার বাবা ছাইদুল ইসলাম বসুনিয়ার সাথে তিনি বলেন, আমার ছেলেকে জোর করে নিয়ে এমনটি করা হয়েছে আমি এ বিয়ে মানিনা। মেয়েটির অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে নীলফামারী সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ফজলুল হক তানসেন জানান, আমি ছুটিতে আছি। বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের জলঢাকা উপজেলা সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হামিদুর রহমান বলেন, এমন নির্যাতন যারা করে তাদেরকে আইনের হাতে তুলে দিয়ে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া উচিৎ। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নির্যাতিতা পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছিল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ