• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫৬ পূর্বাহ্ন |

সাংবাদিকরা বদমাইশ-চরিত্রহীন ও লম্পট : সমাজকল্যাণমন্ত্রী

Ministerসিলেট : সাংবাদিকদের বদমাইশ, চরিত্রহীন ও লম্পট বলে মন্তব্য করেছেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী।

শনিবার সন্ধ্যায় বিশ্ব আদিবাসী দিবস উপলক্ষে সিলেট বিভাগীয় আদিবাসী দিবস উদযাপন কমিটির উদ্যোগে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি সাংবাদিকদের সম্পর্কে এমন অশালীন মন্তব্য করেন।

তিনি অনুষ্ঠানের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সাংবাদিকদের সম্পর্কে বিষোদগার করেন। মঞ্চে ওঠে মাইক হাতে নিয়েই তিনি সাংবাদিকদের অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগের নির্দেশ দেন। কিন্তু পেশাগত দায়িত্ব পালনের কারণে সাংবাদিকরা স্থান ত্যাগ না করায় মন্ত্রী তার বক্তৃতায় সাংবাদিকদের অকথ্য ভাষায় বিষোদগার করেন।

এ সময় সমাজকল্যাণমন্ত্রী বলেন, ‘সাংবাদিকদের ঠিক করতে নীতিমালা হয়েছে। ওই দিন কেবিনেট মিটিংয়ে আমি থাকলে সাংবাদিকদের …… (অশালীন শব্দ) দিয়ে বাঁশ ঢুকাতাম। সাংবাদিকদের এখন এমনভাবে ঠিক করা হবে যাতে নিজের স্ত্রীকে পাশে নিয়েও শান্তিতে ঘুমাতে পারবে না। সাংবাদিকরা বদমাইশ, চরিত্রহীন, লম্পট।’

বক্তব্য চলাকালে সমাজকল্যাণমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের প্রতিবাদ করেন উপস্থিত সাংবাদিকরা।

এসময় অনুষ্ঠানস্থলে হট্টগোল শুরু হলে মহিলা সাংসদ কেয়া চৌধুরী ও সাবেক সাংসদ শফিকুর রহমান চৌধুরী সাংবাদিকদের কাছে হাত জোড় করে মাফ চান। কিন্তু সমাজকল্যানমন্ত্রী তার অশ্লীল বক্তব্য চালিয়ে গেলে সাংবাদিকরা অনুষ্ঠান বয়কট করে চলে আসেন।

মন্ত্রীত্বের পরোয়া করেন না এমন দম্ভোক্তি করে মহসিন আলী বলেন, মন্ত্রীত্ব থাকলেই কী, আর না থাকলে কী? জনগণ আমাকে ভালোবাসে, আমিও জনগণের ভালোবাসা নিয়ে বাঁচতে চাই।

সাংবাদিকরা অল্পশিক্ষিত বলে মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, আমার মেয়ে সাংবাদিকতায় মাস্টার্স পাস। আর যারা পত্রিকায় আমার বিরুদ্ধে লেখালেখি করে তারা দু’এক কলম পড়ালেখা করেছে। আমি বলি একটা, তারা লেখে আরেকটা। দুই টাকা খেয়ে তারা আমার … (অশালীন শব্দ) দিয়ে বাঁশ ঢুকাতে চায়। আমার শ্বশুর বাড়ি সিলেটে। সাংবাদিকদের পেছনে সিলেটের মানুষ লেলিয়ে দিতে আমার সময় লাগবে না। সাংবাদিকরা আমার … (অশালীন শব্দ) ছিঁড়তে পারবে না।

আদিবাসী নেতা গৌরাঙ্গ পাত্রের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, নারী সাংসদ কেয়া চৌধুরী, সিলেট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ ও আদিবাসী নেতা একে শেরাম প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ