• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১২:৪৭ অপরাহ্ন |

দিনাজপুরে র‌্যাবের চার সদস্যের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা

Adalotমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুরে জঙ্গি সংগঠন-জেএমবির বিরুদ্ধে সন্ত্রাসদমন আইনের দায়েরকৃত মামলার সাক্ষী দিতে না আসায় র‌্যাবের ৪ সদস্যের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেছেন আদালাত।
মঙ্গলবার বিকেলে দিনাজপুর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মাহমুদুল করিম মামলার সাক্ষী ৪ র‌্যাব সদস্যের বিরুদ্ধে এই গ্রেফতারী পারোয়ানা জারী করেন। র‌্যাবের এই ৪ সদস্যকে আদালতে হাজির করে সাক্ষ্য দেয়ার জন্য র‌্যাব সদর দপ্তরের মাধ্যমে গ্রেফতারী পরোয়ানা আদেশ প্রদান করেন তিনি।
দিনাজপুর জেলা ও দায়রা জজ ২ আদালতে মঙ্গলবার এই চাঞ্চল্যকর মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য ছিল। নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠন-জেএমবির উত্তরাঞ্চলের সামরিক কমান্ডার রফিকুল ইসলাম ওরফে  জোবায়ের ওরফে রাসেল ওরফে জসিম (৩০), এহসার সদস্য শহিদুল ইসলাম (৫৮), শাহিন হোসেন (২৯) ও সোহেল মাহফুজ ওরফে তুহিরের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস ও অস্ত্র আইনে দায়েরকৃত মামলার ধার্য তারিখ ছিল। হাজতে আটক ৩ আসামীর মধ্যে রফিকুল ইসলাম ও শহিদুল ইসলামকে দুপুর ২ টায় আদালতে হাজির করা হয়। আসামী শাহিন অপর মামলায় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আটক থাকায় তাকে আদালতে হাজির করা হয়নি। পলাতক আসামী জেএমবির এহসার সদস্য ও বর্তমান জেএমবির ভারপ্রাপ্ত আমীর  সোহেল মাহফুজ ওরফে তুহিরকে গ্রেফতার করতে পুলিশ সদর দপ্তরের মাধ্যমে দেশের সকল থানায় হুলিয়া গ্রেফতারী পরওয়ানা জারী করা হয়েছে। পলাতক আসামী তুহিরের অনুপস্থিতিতে বিচার কার্য চলছে।
মামলার এজাহারকারী জয়পুরহাট র‌্যাব-৫ এর এসআই আশরাফুল আলম, এএসআই নজরুল, সিপাহী আরিফ ও শাহিনের সাক্ষ্য গ্রহণ হয়েছে। তবে মামলার অন্যান্য সাক্ষীদের বিরুদ্ধে সমন ও গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করার পরেও সাক্ষীগণ আদালতে সাক্ষী দিতে না আসায় বিচারক মামলার ৫ হতে ৮নং সাক্ষী ৪ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষী দিতে তাদের আদালতে হাজির করতে র‌্যাব সদর দপ্তরের মাধ্যমে  গ্রেফতারী পরোয়ানা জারীর আদেশ প্রদান করেন। আগামী ১২ অক্টোবর পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহনের তারিখ নির্ধারন করা হয়েছে। বিকেলে আটক ২ জন আসামীকে কড়া পুলিশ পাহাড়ায় দিনাজপুর জেল কারাগারে পাঠানো হয়।
উল্লেখ্য, গত ২০০৮ সালের ৩ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জয়পুরহাট র‌্যাব ক্যাম্প-৫ এর অভিযানে দিনাজপুরের  ঘোড়াঘাট উপজেলার কশিগাড়ী গ্রামের কোরবান আলীর পুত্র জেএমবির এহসার সদস্য শহিদুল ইসলাম (৫৫) এর বাড়ী তল্লাশী করে বিপুল পরিমান বোমা তৈরীর উপকরণ, জেহাদী বই, লিফলেট, গামবুটসহ তাকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় ঘোড়াঘাট থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা দায়ের করা হয়।  গ্রেফতারকৃত শহিদুলের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী রাজশাহী বিভাগের জেএমবির সামরিক কমান্ডার নীলফামারী সদর উপজেলার সুখধনডাঙ্গা গ্রামের মোর্তুজা আলীর পুত্র রফিকুল ইসলাম ও সহযোগী শাহিন ও মাহাফুজ উদ্ধারকৃত আলামতগুলো গ্রেফতারকৃত শহিদুলের বাড়ীতে রেখে গেছে। পরবর্তীতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ থানা পুলিশের হাতে রফিকুল এবং ২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসে ঢাকা সাভারে র‌্যাব সদস্যদের হাতে এহসার সদস্য শাহিন হোসেন গ্রেফতার হলে পুলিশ তাকে এই মামলায় গ্রেফতার করে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ