• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন |

ইজি ক্যাশের নামে ২৫ কোটি টাকা আত্মসাৎ

Mobile-2525-300x157সিসিনিউজ: প্রাইম ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং ইজি ক্যাশের নামে সারাদেশ থেকে ২৫ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে ব্যাংকটির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ প্রতিষ্ঠান এসএমজি ইনফোকম লিমিটেডের বিরুদ্ধে। এর মধ্যে পাবনার ১০৫ জন এজেন্ট ও কর্মীর কাছ থেকে ৭০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

ইতিমধ্যে গ্রাহকের টাকা নিয়ে দুর্নীতির কারণে বাংলাদেশ ব্যাংক ৫ আগস্ট প্রাইম ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং লাইসেন্স স্থগিত করেছে। এ খবরে হতাশ হয়ে পড়েছে পাবনার শতাধিক এজেন্ট ও কর্মী।

এদিকে, বিষয়টি নিয়ে এসএমজি ইনফোকম প্রাইম ব্যাংকের ওপর দায় চাপালেও ব্যাংক বলছে, এসএমজি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার পরপরই ব্যাংকের পক্ষ থেকে পত্রিকায় দৃষ্টি আকর্ষণ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে লেনদেনের দায়-দায়িত্ব ওই কোম্পানির এবং ব্যাংকের কোনো দায়-দায়িত্ব নেই বলে জানানো হয়েছে।

ভুক্তভোগীরা জানান, ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরের প্রথম দিকে দেশের বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় প্রাইম ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম ‘ইজিক্যাশ’ পরিচালনা করার লক্ষ্যে এজেন্ট ও কর্মী নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে এসএমজি ইনফোকম লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এরপর সারা দেশের ন্যায় পাবনা থেকে বিভিন্ন পদে বিপুল সংখ্যক প্রার্থী আবেদন করেন। লোক নিয়োগের প্রধান শর্ত ছিল অফিসার পদে এক লাখ টাকা ও দোকানীদের নিকট ৫০ হাজার টাকা ফেরৎযোগ্য জামানত দিতে হবে। কিন্তু জামানতের টাকার সঙ্গে অতিরিক্ত ২০ থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত রশিদবিহীন নেয় ঢাকাস্থ এসএমজির অফিস স্টাফরা। চাকরি লাভের আশায় রশিদবিহীন টাকাও দেন প্রার্থীরা।

তারা আরো জানান, মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম প্রক্রিয়া শুরুর থেকে চুক্তি অনুযায়ী বেতন-ভাতা প্রদান করার কথা থাকলেও দুই এক মাস বেতন দিয়ে তা বন্ধ করে দেয় এসএমজি ইনফোকম লিমিটেড। এমন পরিস্থিতিতে পাবনাসহ সারা দেশের এজেন্ট ও বিভিন্ন পদে নিয়োগপ্রাপ্তরা দিশেহারা হয়ে পড়েন। মাসের পর বছর পার হলেও নেই কোনো বেতন ভাতা। এসএমজি প্রধান কার্যালয় গুলশানে গিয়ে টাকা ফেরত চাইলে তারা টাকা দিতে গড়িমসি শুরু করে।

অবশেষ গত ৫ আগস্ট প্রাইম ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান এসএমজি গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের বিষয়টি তদন্ত করে ব্যাংকটির মোবাইল ব্যাংকিং লাইসেন্স স্থগিত করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ অবস্থায় গ্রাহকের জামানতের টাকা কিভাবে ফেরত পাবে তা নিয়ে পাবনার এজেন্ট ও কর্মীরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

এসএমজিতে নিয়োগ পাওয়া পাবনা জেলার ডিএসআর শাহেদ ফেরদৌস ও সদর উপজেলা টিএসআর আব্দুস সামি জানান, আমারা চাকরি নেয়ার আগে প্রাইম ব্যাংক থেকে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করে নিশ্চিত হয়েই জামানতের টাকা দিয়েছিলাম। কিন্তু এখন ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং লাইসেন্স স্থগিত হওয়ার খবরে আমরা হতাশ। কিভাবে টাকা ফেরত পাবো তা ভাবতে পারছি না। এসএমজির সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না। চাকরি না হোক, এসএমজি আমাদের টাকা ফেরত দিলেই হয়। তা না হলে এসএমজির বিরুদ্ধে আমরা আদালতের শরণাপন্ন হব।

এ বিষয়ে এসএমজি ইনফোকম লিমিটেডের ঢাকা কার্যালয়ের ডিএমডি জসিম উদ্দিন জানান, প্রাইম ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং লাইসেন্স স্থগিত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে এ ব্যাপারে প্রাইম ব্যাংক আমাদের কিছু জানায়নি। আমাদের লেনদেন বা চুক্তি তো প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে। এ বিষয়টি নিয়ে প্রাইম ব্যাংক আমাদের সঙ্গে এখনো কোনো সিদ্ধান্তে আসেনি। প্রাইম ব্যাংকের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করছে পরবর্তীতে আমরা কি করবো।

তিনি জানান, দুই বছর আমাদের ঝুলিয়ে রেখেছে প্রাইম ব্যাংক। তাদের সার্ভিস দেয়ার জন্যই তো আমরা লোক নিয়োগ দিয়েছি। গ্রাহক তৈরি করেছি। অনেক টাকা খরচ হয়ে গেছে আমাদের। এখন প্রাইম ব্যাংক যদি আমাদের সঙ্গে সঠিক পন্থায় চুক্তি বাতিল করে তাহলে গ্রাহক বা আমাদের প্রতিনিধিদের জামানতের টাকা ফেরত দেয়া হবে। তবে এতে কিছু সময় লাগবে।

এ ব্যাপারে প্রাইম ব্যাংকের ঢাকাস্থ প্রধান কার্যালয়ের হেড অব পাবলিক রিলেশন্স অফিসার জানান, এসএসমজির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ও বিশেষ বিজ্ঞপ্তি নামে দু’টি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হওয়ার পরপরই ২০১২ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর প্রথম আলোতে প্রাইম ব্যাংকের পক্ষ থেকে ‘দৃষ্টি আকর্ষণ বিজ্ঞপ্তি’ প্রকাশ করে বলা হয়, বিজ্ঞপ্তি দু’টির সঙ্গে প্রাইম ব্যাংকের সম্পর্ক নেই। তার সব দায়-দায়িত্ব এসএমজি ইনফোকম লিমিটেডের। তারপরও যদি কেউ এসএমজির সঙ্গে আর্থিক লেনদেন করে থাকে তাহলে ওই কোম্পানির সঙ্গে কথা বলতে হবে। এখানে আমাদের কিছু করার নেই।

প্রাইম ব্যাংকের দৃষ্টি আকর্ষণ বিজ্ঞপ্তিতে
২০১২ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর প্রথম আলো পত্রিকার ২১ পৃষ্ঠায় প্রকাশিত ওই দৃষ্টি আকর্ষণ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি কয়েকটি দৈনিক পত্রিকায় প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড ও এসএমজি ইনফোকম লিমিটেডের লোগো সম্বলিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি’ ও বিশেষ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের মোবাইল ব্যাংকিং ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস ইজিক্যাশ এর জন্য এজেন্ট এবং কর্মী নিয়োগ চলছে। আগ্রহীদের প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের গ্রাহক সেবা (কাস্টমার সার্ভিস) অথবা এসএমজি ইনফোকম লিমিটেডের সাতটি বিভাগীয় শাখায় যোগাযোগের অনুরোধ জানানো হয়। উৎস: বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ