• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৮:১৯ পূর্বাহ্ন |

চাঁদপুর লঞ্চঘাটে দুর্ঘটনা বাড়ছে, দায়-দায়িত্ব কার?

DSC02478শরীফুল ইসলাম, চাঁদপুর: প্রশাসনের সতর্কতামূলক পদক্ষেপ থাকা সত্ত্বেও চাঁদপুর মাদ্রাসা ঘাটস্থ বিকল্প লঞ্চঘাটে দুর্ঘটনা বাড়ছে। ঘটছে প্রাণহানি, অনেকে পঙ্গু হচ্ছে। এর দায়-দায়িত্ব কার? প্রশাসনই বা কী জবাব দেবে। ঈদে যাত্রীদের বাড়ি ফেরা অনেকটাই নির্বিঘ্নে হওয়া সত্ত্বেও ঈদের পরের দিনগুলোতে কর্মস্থলে ফেরা চাঁদপুরের নৌ যাত্রীদের চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে পৃথক দুটি দুর্ঘটনায় প্রাণ গেছে ফাহিমা বেগম (২৫) নামের এক যাত্রীর। পঙ্গু হয়েছে মানিক (২৫) নামে আরেক যাত্রী। আহত আরো ১০ জন। বিশাল আকৃতির লঞ্চগুলো ঘাটে ভিড়তে সমস্যা হচ্ছে। যাত্রী ওঠানামার সিঁড়িও বসানো যাচ্ছে না। তার উপর ট্রলারযোগে যাত্রী লঞ্চে ওঠানামার প্রবণতা তো রয়েছেই। ঘাটে ভিড়ানো লঞ্চগুলোর আনসার সদস্যরা কী দায়িত্ব পালন করছে। লঞ্চের মাস্টার, সুকানি, ঘাট কর্তৃপক্ষ কেউ দুর্ঘটনার জন্য তারা তাদের দায় এড়াতে পারেন না। এমন দাবি সচেতন মহলের। অসাবধানতাই অনাকাক্সিক্ষত দুর্ঘটনার মূল কারণ। এ ক্ষেত্রে লঞ্চঘাট সংশ্লিষ্ট প্রশাসনও ব্যর্থ হয়েছে।
প্রতি বছরই চাঁদপুর লঞ্চঘাটে দুর্ঘটনা ঘটছে এবং হতাহতও হচ্ছে। গত ২ আগস্ট শনিবার বেলা ১২টায় লঞ্চে উঠতে গিয়ে এমভি আবে জমজম ও রফরফ লঞ্চের চাপা পড়ে মানিক (২৫) নামে যুবকের এক পা থেতলে যায়। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তার অবস্থার অবনতি দেখে ডাক্তার ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করেন। আহত মানিকের বাবার নাম আঃ মান্নান। সদর উপজেলার বহরিয়া শ্রীরামপুর গ্রামে বাড়ি। অকালে পঙ্গুত্ব বরণ করতে হয়েছে মানিককে। এ দুর্ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই গত ১০ আগস্ট রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় লঞ্চঘাটের একই টার্মিনালে ভিড়ানো এমভি প্রিন্স অব রাসেল ও রফরফ লঞ্চের মাঝখানে নৌকা চাপায় ফাহিমা বেগম (২৫) নামে এক যাত্রীর ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়। স্বামী, ২ সন্তান সহ ট্রলারযোগে ঘাটে এসেছেন ঢাকা যাবার জন্য। তাদের বহনকারী নৌকাটি দুই লঞ্চের চাপার মধ্যে পড়ে মর্মান্তিক দুর্ঘটনার শিকার হয়। নিজের সন্তানকে লঞ্চ চাপা থেকে বাঁচাতে গিয়ে ফাহিমা নিজেই চাপা পড়ে নিহত হন। নৌকায় থাকা আরো ৫ যাত্রী কম-বেশি আহত হন। শরীয়তপুর জেলার কোদালপুর থেকে ঢাকা যাবার জন্য দেলোয়ার হোসেন স্ত্রী, দুই শিশু সন্তান নিয়ে ট্রলারে করে চাঁদপুর বিকল্প লঞ্চঘাটে এসেছিলেন। লঞ্চে উঠতে গিয়ে তাদের নৌকাটি দুই লঞ্চের চাপায় পড়ে। প্রশাসন এবং লঞ্চ কর্তৃপক্ষ আগেভাগেই নৌকা কিংবা ট্রলারে লঞ্চে যাত্রী ওঠানামা নিষিদ্ধ করে। তারপরও নৌকাযোগে যাত্রী লঞ্চে ওঠানামা হচ্ছে। এজন্যেই এ দুর্ঘটনা। এ ঘটনার জন্য দায়ী যারা তাদের চিহ্নিত করে শাস্তির ব্যবস্থা না করা হলে প্রাণহানি ও হতাহতের ঘটনা ঘটতেই থাকবে। এ ব্যাপারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠনও অপরিহার্য।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ