• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৫:২৭ অপরাহ্ন |

সংগঠিত হচ্ছে জেএমবি

JMBসিসি ডেস্ক: নতুন করে সংগঠিত হচ্ছে জামাআতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি)। ময়মনসিংহের ত্রিশালে পুলিশ হত্যা করে প্রিজন ভ্যান থেকে ছিনতাই হওয়া এই সংগঠনের নেতা সালাউদ্দিন ওরফে সালেহীন এবং জাহিদুল ইসলাম ওরফে বোমারু মিজান আত্মগোপন অবস্থায় সংগঠন গোছানোর কাজ শুরু করছেন। এমনই কয়েকটি এলাকায় তারা নাশকতা চালাতে পারেন বলেও গোয়েন্দারা আশঙ্কা করছেন। এক্ষেত্রে তারা বোমা হামলার পরিবর্তে ক্ষুদ্র অস্ত্র ব্যবহার করতে পারেন বলে র‌্যাবের নিজস্ব গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে। এদিকে ঘটনার ৯ বছর পার হলেও এখনো শেষ হয়নি জেএমবির সিরিজ বোমা হামলার বিচারকাজ। ৪ দলীয় জোট সরকারের আমলে ২০০৫ সালের ১৭ আগষ্ট দেশের ৬৩ জেলার ৫শ স্পটে একযোগে ৫শতাধিক বোমা ফাটানোর ঘটনায় ২জনের মূত্য হয় এবং ৪ শতাধিক লোক আহত হন। এ ঘটনায় সারাদেশে দায়ের হওয়া ৩২২ মামলার মধ্যে ২৮৯টির চাজর্শীট আদালতে দাখিল করা হয়েছে। এরমধ্যে ১০২টি মামলার বিচারে ৩৫ জঙ্গিকে মৃত্যুদন্ড, ১৩১ জনকে যাবজ্জীবন ও ১৮৪ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে। এছাড়া বিচারাধীন রয়েছে আরো ১৭৪টি মামলা। চূড়ান্ত রিপোর্ট দেয়া হয়েছে ২৫টির। বাকি মামলাগুলো এখনো তদন্তনাধীন রয়েছে।

এ বিষয়ে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ যায়যায়দিনকে বলেন, দেশের কয়েকটি এলাকায় জেএমবির সদস্যরা নাশকতা চালাতে পারে বলে র‌্যাবের নিজস্ব গোয়েন্দারা আশঙ্কা করছে। বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলের কয়েকটি জেলায় এই আশঙ্কা বেশি। এজন্য ওইসব এলাকায় র‌্যাবের নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। তবে বড় ধরনের নাশকতা চালানো মতো ক্ষমতা তাদের নেই। আশা করা যাচ্ছে, খুব শিগগির এসব সংগঠনের সদস্যদের আইনের আওতায় আনা যাবে।

তিনি বলেন, ময়মনসিংহের ত্রিশাল থেকে পুলিশ হত্যা করে ছিনিয়ে নেয়া জঙ্গি নেতা সালাউদ্দিন ওরফে সালেহীন এবং জাহিদুল ইসলাম ওরফে বোমারু মিজান আত্মগোপন অবস্থায় সংগঠন গোছানোর কাজ করছেন। তাদের গ্রেপ্তারে র‌্যাব তৎপর রয়েছে। তবে তাদের অবস্থান র‌্যাবের কাছে স্পষ্ট নয়।

র‌্যাব সূত্র জানায়, বিভিন্ন সময় গ্রেপ্তার হওয়া জঙ্গিদের মধ্যে এ পর্যন্ত তিন শতাধিক জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। এর মধ্যে জেএমবির সদস্য ১৯২ এবং হুজির ৭২জন। এদের মধ্যে ৯১ জনের অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারছেন না গোয়েন্দারা। গা-ঢাকা দেয়া জঙ্গিদের মধ্যে ২০ জনেরও বেশি দুর্ধর্ষ প্রকৃতির। তাদের মধ্যে ফারুক, শফিক, মিলন, সবুজ, সাজেদুর, মানিক, মাজিদ, কফিল উদ্দিন ওরফে রব মুন্সী, আজিবুল ইসলাম ওরফে আজিজুল, শাহান শাহ, হামিদুর রহমান, বজলুর রহমান, বাবর, শরিফ, খাইরুল ইসলাম, নাদিম, ময়েজ উদ্দিন, মহব্বত ওরফে তিতুমীর ওরফে নাহিদ এবং ওয়ালিউল্লাহ ওরফে হামিদ অন্যতম। তবে ছিনিয়ে নেয়া দুই জঙ্গির মধ্যে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর বোমা মিজান। তিনি জেএমবির সামরিক বিভাগের কমান্ডার ছিলেন। তার তৈরি করা বেশির ভাগ বোমা দিয়েই ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলা চালানো হয়েছিল। শায়খ আবদুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের অন্যতম বোমা মিজান তেজগাঁও পলিটেকনিকের ছাত্র থাকাবস্থায়ই ২০০০ সালে জেএমবিতে যোগ দেন। দেশ-বিদেশে তিনি বোমা ও আগ্নেয়াস্ত্র তৈরির প্রশিক্ষণ নিয়ে বোমা মিজান নামেই খ্যাতি পান জেএমবিসহ অন্যান্য জঙ্গি সংগঠনগুলোতে। কেবল বোমা ও গ্রেনেড নয়, ল্যান্ডমাইন তৈরিতেও বোমা মিজান দক্ষ বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। ২০০৯ সালের ১৪ মে আগারগাঁও তালতলা মার্কেট এলাকা থেকে বোমা মিজান ও পরদিন উত্তর পীরেরবাগের ৬১/৩ নাম্বার বাসা থেকে স্ত্রী শারমীন আক্তার লতাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। তবে গ্রেপ্তারের আগে লতা র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে একটি গ্রেনেড ছুড়ে মারার চেষ্টা করলে গ্রেনেডটি তার হাতেই বিস্ফোরিত হয়। এতে তার ডান হাতের কব্জি উড়ে যায়। পরে মিজানের দেয়া তথ্য মতে, মনিপুরের ৬৭৬/২ নাম্বার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে একটি পিস্তল, ১১টি তৈরি বোমা, বিপুল পরিমাণ রাসায়নিক দ্রব্য, বোমা তৈরির সরঞ্জাম, ৫ হাজার ৬০০টি ডেটোনেটর, মাইন তৈরির সরঞ্জাম এবং বোমা তৈরি সংক্রান্ত পুস্তক উদ্ধার করে। এ অবস্থায় পলাতক এসব জঙ্গি আবার সংগঠিত হয়ে নাশকতা চালাতে পারে জানা গেছে।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের জয়েন্ট কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, ত্রিশালে জঙ্গি ছিনতাই ঘটনার পর গ্রেপ্তার হওয়া জেএমবির সদস্যদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে নতুন করে জেএমবি সংগঠিত হওয়ার তথ্য পাওয়া যায়। তাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী সতর্ক রয়েছে পুলিশ। আগে জেএমবি সদস্যরা বোমা ব্যবহার করলেও তাদের হামলার ধরন পরিবর্তন হয়েছে। বোমা ছেড়ে তারা ক্ষুদ্র আগ্নেয়াস্ত্রের দিকে ঝুঁকেছে বলে জানা গেছে। সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে তারা অস্ত্র সংগ্রহ করছে বলে গোয়েন্দা পুলিশের কাছে তথ্য রয়েছে। সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

শেষ হয়নি বিচার কাজ

এদিকে ৯ বছরেও শেষ হয়নি সিরিজ বোমা হামলার বিচার কাজ। জানা গেছে, ১৯৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় জেএমবি। ২০০৫ সালের ১৭ আগস্টের পর থেকেই সক্রিয় হয়ে ওঠে জেএমবির আত্মঘাতী জঙ্গি স্কোয়ার্ড। জঙ্গিদের প্রধান টার্গেটে পরিণত হয় দেশের বিচার বিভাগ। জেএমবি তখন একে একে ৩৮টি অপারেশন চালায়। আদালত অঙ্গনসহ একের পর এক হামলায় বিচারক, আইনজীবী, পুলিশ ও সাধারণ মানুষসহ ৩৩ জন নিহত হয়। এসব ঘটনায় গুরুতর আহত হন ৪ শতাধিক নিরীহ মানুষ। ভুক্তভোগীরা এখনো বিচারের আশায় দিন গুনছেন। কিন্তু টানা ৯ বছরেও এই ঘটনার সব মামলার নিষ্পত্তি না হওয়ায় তারা হতাশ। শীর্ষ ৬ জঙ্গি নেতার ফাঁসি কার্যকর হওয়ার পরে আর কারো ফাঁসি কার্যকর হয়নি। ২০০৫ সালের ১৪ নভেম্বর ঝালকাঠিতে বিচারক সোহেল আহমেদ চৌধুরী ও জগন্নাথ পাঁড়ে হত্যার ঘটনাটি সবচেয়ে বেশি আলোড়ন তোলে। ওইসময় বোমা হামলাকারী জেএমবি সদস্য ইফতেখার হাসান আল মামুন হাতে-নাতে ধরা পড়ে। এ দুই বিচারক হত্যা মামলায় জেএমবি প্রধান শায়খ আবদুর রহমান ও সিদ্দিকুল ইসলাম ওরফে বাংলা ভাইসহ ৭ জনের ফাঁসির আদেশ দেয় আদালত। ২০০৭ সালের ২৯ মার্চ রাতে আল-মামুন ছাড়া বাকি ৬ জনের মৃত্যুদ-াদেশ কার্যকর করা হয়।

জানা গেছে, দ- কার্যকর হওয়া ৬ জনের মধ্যে শায়খ আব্দুর রহমানের ছেলে নাবিল রহমান কুমিল্লা কারাগারে বন্দি রয়েছেন। সিদ্দিকুল ইসলাম বাংলা ভাইয়ের স্ত্রী ফাহিমা খাতুন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে রাজশাহীর নওদাপাড়ায় অবস্থান করছেন। বাংলা ভাইয়ের তিন বছরের ছেলে সাদকে আদালতের নির্দেশে তার নানির হেফাজতে দেয়া হয়েছে। শায়খ আব্দুর রহমানের স্ত্রী নূরজাহান বেগম জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর রাজশাহীর নওদাপাড়ায় চলে গেছেন। আব্দুল আউয়ালের স্ত্রী আফিফা বেগম তার শ্বশুরবাড়িতে থাকছেন। আফিফা শায়খ আব্দুর রহমানের মেয়ে। তার তালহা নামে তিন বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। শায়খ আব্দুর রহমানের দুই ছেলে মাহমুদ রহমান (১৭) ও ফুয়াদ রহমান (১৩) ময়মনসিংহ আকুয়া দাখিল মাদ্রাসায় পড়াশোনা করছে। তার আরেক ছেলে আহম্মদ রহমান (৬) মায়ের সঙ্গে রাজশাহীতে থাকে। উত্তরায় কুশল সেন্টারে নিচতলায় শায়খ আব্দুর রহমানের নামে দুটি দোকান কেনা আছে। এই দুই দোকানের মাসিক ভাড়া সাড়ে ৫ হাজার টাকা তার পরিবার পায়। এছাড়া শায়খ আব্দুর রহমানের জামালপুরে গ্রামের বাড়িতে কয়েক বিঘা ফসলি জমি আছে। এ থেকে যা আসে তা দিয়ে তাদের সংসার চলে। ফাঁসি কার্যকর হওয়া শায়খ আব্দুর রহমানের ছোট ভাই আতাউর রহমান সানি ছিলেন অবিবাহিত। জেএমবি নেতা ফারুক হোসেন ওরফে খালেদ সাইফুল্লাহর স্ত্রী থাকলেও তার ফাঁসি কার্যকর হওয়ার পর স্ত্রীর খোঁজখবর কেউ রাখেননি। তবে পিরোজপুরের কাউখালীর গোয়ালতা গ্রামের তফাজ্জেবান মঞ্জিলে খালেদ সাইফুল্লাহর দুই ভাই বেলায়েত খান ও এনায়েত খান থাকেন। তারা কৃষিকাজ করে সংসার চালান। এদের আরেক ভাই জাকির খান ঢাকায় একটি বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত। ফাঁসি কার্যকর হওয়া ইফতেখার হাসান আল-মামুনের বাড়ি রাজশাহীর মতিহারের দাশমারিতে। তার পিতা কামরুজ্জামান একজন দিনমজুর। বর্তমানে মামুনের বাবা ও মা তাদের অপর তিন সন্তানকে নিয়ে দিনমজুরি করে জীবিকা নির্বাহ করছেন।

সূত্র মতে, ফাঁসির দ- থেকে বাঁচতে হাইকোর্টে আপিল করেছেন জেএমবির ৩৫ জঙ্গি। তারা হচ্ছেন_ হাফেজ মাহমুদ ওরফে রাকিব হাসান ওরফে হায়দার, নারায়ণগঞ্জের সালাউদ্দিন ওরফে সালেহীন ওরফে সজিব, নওগাঁর নিয়ামতপুরের আবদুল কাইউম, বগুড়ার শেরপুরের হাফেজ মিনহাজুল ইসলাম ওরফে সোহেল রানা ওরফে সানোয়ার হোসেন, জামালপুরের মো. আক্তারুজ্জামান, খুলনার তরিকুল ইসলাম ওরফে রিংকু, ঝিনাইদহের মনিরুল ইসলাম ওরফে মোকলেছ, নাসরুল্লাহ ওরফে শান্ত, রোকনুজ্জামান ওরফে সিবুন, গাইবান্ধার আবু তালেব আনছারী ওরফে বাবুল আনছারী, ঝিনাইদহের মোহন, মামুনুর রশিদ, মুহিদ আহম্মদ, মোজাম্মেল হক ওরফে মোজাম, তুহিন রেজা, সবুজ আলী, শৈলকূপার ফারুক হুসাইন, গাইবান্ধার মতিন মেহেদী ওরফে মতিনুর ইসলাম, ঝিনাইদহের মহিরুল আল মামুন ওরফে চাঁদ, ঝিনাইদহের বিল্লাল হোসেন, সাবউদ্দিন, শৈলকূপার রবজেল হোসেন এবং আজিজুর রহমানসহ আরো ৬জন। এরমধ্যে চলতি বছরের শুরুতে রাকিবুল হাসান ওরফে হাফেজ মাহমুদ, সালেহীনকে ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশালের সাইনবোর্ড এলাকা থেকে পুলিশের প্রিজন ভ্যান থেকে ছিনিয়ে নেয় জেএমবির ক্যাডাররা। তাদের সঙ্গে যাবজ্জীবন দ- পাওয়া বোমারু মিজানও ছিল। ওই ঘটনার পরেরদিন রাকিবুল হাসান ওরফে হাফেজ মাহমুদ পুলিশের বন্দুকযুদ্ধ নিহত হয়। এখনো পলাতক রয়েছে সালেহীন ও বোমারু মিজান।

উৎসঃ   যায়যায়দিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ