• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১১:১৬ অপরাহ্ন |

ফের বিএনপিতে ভিড়ছেন নাজমুল হুদা !

87589_1সিসি ডেস্ক: ফের বিএনপিতে ফিরবেন না কি ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে সরকার বিরোধী আন্দোলন করবেন তা চূড়ান্ত করতে বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা এখন লন্ডনে অবস্থান করছেন। বিএনপির সঙ্গে নতুন করে সম্পর্ক তৈরি হলে তা যেন সহসা ভেঙে না যায় সেজন্য এবার বুঝে শুনে এগুচ্ছেন নাজমুল হুদা। লন্ডনে বসে তারেক রহমানের সঙ্গে একান্তে আলাপ আলোচনা করে তিনি ভবিষ্যৎ করণীয় ঠিক করবেন।

দর কষাকষির পর ব্যাটে বলে মিললেই তিনি আবারো আপর ঘরে ফিরবেন এমন আভাসই পাওয়া যাচ্ছে তার ঘনিষ্টজনদের কাছ থেকে। তবে বিএনপির পক্ষ থেকে নাজমুল হুদার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে বলেও একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র শীর্ষ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।

বিএনএ-এর একটি সূত্র জানিয়েছে বিএনপির সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা লন্ডনে তারেক রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছেন। যেহেতু এখন বিএনপির অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ই সিদ্ধান্ত দিয়ে থাকেন তারেক রহমান। তাই বিএনপির সঙ্গে বিশেষ কোনো রাজনৈতিক আলাপ-আলোচনা তার সঙ্গেই করা যথার্থ। আর সেই বিবেচনা থেকেই নাজমুল হুদা লন্ডন যাওয়াই যথার্থ মনে করেছেন।

একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, গত ৭ আগস্ট লন্ডনে পৌঁছেছেন তিনি। এর আগে ৩ আগস্ট তিনি দুবাইয়ের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন। দুবাই ছিলেন ৬ আগস্ট পর্যন্ত। তিনদিন অবস্থানকালে তিনি দুবাইতে বাংলাদেশ ন্যাশনাল অ্যালায়েন্স (বিএনএ) এর ৫১ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করেছেন।

সূত্র জানায়, নাজমুল হুদার সফরের মূল উদ্দেশ্য তারেক রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করা। তার প্রায় একমাস লন্ডনে থাকার কথা রয়েছে।

এ সময় তারেক রহমানের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে। বিএনএ বিলুপ্ত করে বিএনপিতে আসবেন কী না তা ঠিক করতে সম্ভাব্য এ সাক্ষাতের পরই তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন। ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা‘র একটি ঘনিষ্ট সূত্র শীর্ষ নিউজকে জানিয়েছে, বিএনপিতে ফিরবেন, না কী বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন করবেন, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার পরই তিনি দলীয় ফোরামে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ ন্যাশনাল অ্যালায়েন্সের (বিএনএ) সভাপতি ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা বিএনপির সঙ্গে যুক্ত হয়ে বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। বিএনপি’র সিনিয়র নেতাদের সঙ্গেও তিনি একাধিকবার যোগাযোগ করেছেন। তার যোগাযোগ ও ইচ্ছার কথা বিবেচনায় এনে কিছুটা অগ্রসরও হয়েছে বিএনপি।

সূত্র জানায়, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা‘র মধ্যে গত মাসে একটি বিশেষ বৈঠক হয়েছে। গত ২২ জুলাই রাজধানীর একটি বাড়িতে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা‘র মধ্যে এ বিশেষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

গণমাধ্যমকে এড়াতে ওই বৈঠকটির ক্ষেত্রে উভয় পক্ষ থেকেই বেশ গোপনীয়তা রক্ষা করা হয়। প্রায় এক ঘণ্টা এ দুই নেতার মধ্যে আলাপ-আলোচনা হয়। বৈঠকের মূল বিষয়বস্তু ছিল এক সঙ্গে বর্তমান সরকার বিরোধী আন্দোলন করা। ওই বৈঠকে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার পর নাজমুল হুদা বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে কথা বলার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। কিন্তু ওই সময় বেগম খালেদা জিয়া পবিত্র ওমরাহ পালনের জন্য সৌদি আরবে থাকায় তার সঙ্গে বৈঠকের বিষয়টি অস্পষ্টই থেকে যায়।

বিএনপির একজন দায়িত্বশীল নেতা জানিয়েছেন, আন্দোলন সংগ্রামকে ত্বরান্বিত করতে শক্তি বাড়াতে চায় তার দল। কিন্তু, বিগত দিনে যারা দলের আস্থা হারিয়েছে, দলের বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়ে দলকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে তাদের বিষয়ে বুঝে শুনেই পা বাড়াবে বিএনপি। তিনি বলেন, যারা দলের সঙ্গে বারবার প্রতারণা করেছে তাদের ব্যাপারে বিএনপি এখন অনেকটাই সতর্ক।

উল্লেখ্য, দলের বিরুদ্ধে সমালোচনা করে বহিষ্কার হয়েছেন বিএনপির সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। বহিষ্কারের পর বিএনপির সমালোচনায় গণমাধ্যমে সব সময় সরব ছিলেন তিনি। এরপর জিয়াউর রহমানকে সামনে রেখে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) নামে একটি বিতর্কিত দল গঠন করেন তিনি। ওই দলের টিকেটে গত ৫ জানুয়ারি’র বিতর্কিত নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় একজন সংসদ সদস্যও নির্বাচিত হয়েছেন। বিএনএফ’র সঙ্গে বিভিন্ন কারণে মতবিরোধ দেখা দিলে তিনি চলতি বছরের ৭ মে গঠন করেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল অ্যালায়েন্স (বিএনএ)। ওই দিনও সংবাদ সম্মেলন করে দুর্বল বিএনপিতে আর ফিরবেন না বলেও ঘোষণা দেন ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। উৎসঃ   শীর্ষনিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ