• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫৫ পূর্বাহ্ন |

বৃটিশ দুই মন্ত্রী ও ইইউ চেয়ারম্যানের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন তারেক

Tareqসিসি ডেস্ক: বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান বাংলাদেশে আগাম নির্বাচন ও নিজ দলের সঙ্গে সরকারের সংলাপ করানোর জন্য নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন বৃটিশ দুই মন্ত্রীর সঙ্গে। সেই সঙ্গে ইউরোপীয় ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সঙ্গেও নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করছেন। তারা যাতে বাংলাদেশের সরকারের দেয়া তথ্যের প্রেক্ষিতে মত পরিবর্তন না করে সংলাপ ও নির্বাচনের ব্যাপারে আগের অবস্থানেই থাকেন সেই ব্যাপারেও সহায়তা চাইছেন।

তারেক রহমানের ঘনিষ্ট সূত্র জানায়, সরকার যখন যে বিষয়ে বিএনপি, বিএনপির নেতাদের, বিএনপি চেয়ারপারসন ও তার বিরুদ্ধে কাজ করছে, কোন হয়রানী করছে সেটা সঙ্গে সঙ্গে তাদেরকে অবহিত করছেন। গত মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লন্ডন সফর নিয়ে সরকারের তরফ থেকে যে ইতিবাচক প্রচারনা চালানো হয়। ইংল্যান্ড সরকার শেখ হাসিনার সরকারকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এমন কথা প্রচার হওয়ার পর পর তারেক রহমান বৃটিশ পার্লামেন্টের দুইজন প্রভাবশালী মন্ত্রীকে বিষয়টি জানান এবং মূল বিষয়টি তুলে ধরে ও তার সরকার যে অবস্থান পরিবর্তন করেনি এই ব্যাপারে তার সরকার যাতে করে একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিও দেয় সেই ব্যাপারেও অনুরোধ করেন।

এনিয়ে তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সঙ্গেও কথা বলেন, যে বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইংল্যান্ড সফর করার পর সরকারের তরফ থেকে বলা হয়েছে ইংল্যান্ড সরকার ৫ জানুয়ারীর নির্বাচন মেনে নিয়েছে। ওই নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত সরকারকেও মেনে নিয়েছে। দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সফল বৈঠক হয়েছে বলে যে প্রচারনা চালানো হচ্ছে এটা সত্য নয়। কারণ বৃটিশ সরকার আগের অবস্থান পরিবর্তন করেনি। তাই তারা যাতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রীর বৈঠককে এটা মনে না করেন যে বৃটিশ সরকার তাদের অবস্থান পরিবর্তন করেছেন। বরং বৃটিশ সরকারের তার ঘনিষ্ট মন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে তারা তাকে জানিয়েছেন বৃটিশ সরকারের মনোভাব আগে যা ছিল এখনই তাই আছে। তারা এখনও চান বাংলাদেশে রাজনৈতিক সংকটের সমাধানের জন্য আলোচনা হবে। বিএনপির সঙ্গে সরকার সংলাপ করবে। আলোচনা করে সমঝোতা করে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের ব্যবস্থা করবেন। বাংলাদেশে সরকারের প্রচারনায় তারা যেন তাদের সিদ্ধান্ত না পরিবর্তন করেন। তারাও যাতে আগের অবস্থানেই থাকেন। বিএনপির সঙ্গে সংলাপ করার ও আলোচনা করে সমাধানের উদ্যোগ নেয়ার জন্য যে চাপ দিয়ে আসছিলেন তা অব্যাহত রাখেন। সেই হিসাবে কাজ করেন।

তারেক রহমানের ঘনিষ্ট সূত্র লন্ডন থেকে জানান, বাংলাদেশের সরকার ও তাদের নীতি নির্ধারকরা নানা ভাবে চেষ্টা করছে যাতে করে ইংল্যান্ড ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন ৫ জানুয়ারীর নির্বাচন মেনে নিয়ে বর্তমান সরকারকে স্বীকৃতি দেয়। পাশাপাশি তারা বিএনপির সঙ্গে সংলাপে বসার জন্য যে চাপ দিচ্ছে তা না দেয়। পাশাপাশি তারা যাতে করে আগাম নির্বাচনের জন্য সরকারকে চাপ না দেয়। সরকারের তরফ থেকে এই সব দেশের সমর্থন আদায়েরও চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু এখনও সরকার সফল হতে পারেনি। তারেক রহমানের বৃটিশ পার্লামেন্টের কয়েকজন মন্ত্রীর সঙ্গে তার ঘনিষ্টতা রয়েছে। বিশেষ করে দুই জন মন্ত্রীর সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা রয়েছে খুব বেশি। তিনি টাইম টু টাইম সব খবর তাদেরকে জানাতে পারছেন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখছেন। যাতে করে সরকারের কথায় তারা সিদ্ধান্ত পরিনর্তন না করেন।

বরং উল্টো তিনি বৃটিশ মন্ত্রীদের মাধ্যমে ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের মাধ্যমে চেষ্টা করছেন তারা যাতে সরকারের উপর বিএনপির সঙ্গে সংলাপ করার ও চাপ অব্যহত রাখেন। চলতি বছরের শেষ নাগাদ বিএনপি সংলাপ করে হোক কিংবা সরকার সংলাপ করে সমঝোতা করে নির্বাচন করতে না চাইলে আন্দোলনের মাধ্যমে বিএনপি তাদের কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছুতে পারে। এই জন্য তিনি বৃটিশ সরকার ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যভুক্ত দেশগুলোর সহায়তা ও সমর্থনও চাইছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ