• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন |

বিরামপুরে বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পেল শামিমা

Ballo Bibahoএকলাছুর রহমান, বিরামপুর (দিনাজপুর) : দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলা প্রশাসন, থানা পুলিশ প্রশাসন, খানপুর ইউনিয়ন পরিষদ, ডেভেলপ দ্যা ভিলেজ (ডিভি) এবং সহযোগী আরেকটি এনজিও’র তৎপরতায় বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পেল শামিমা (১৪)। সে রতনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী ও রতনপুর আদর্শ গুচ্ছগ্রামের খতিবরের মেয়ে। শামিমার পরিবার বাল্য বিয়ে বন্ধে এনজিওদের অনুরোধ উপেক্ষা করে ১৫ আগস্ট রাতে বাল্য বিয়ে দেয়ার সকল প্রস্ততি সম্পন্ন করেছিল।  শিশু সুরক্ষায় বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে জিও-এনজিওদের তৎপরতাকে সাধুবাদ জানিয়েছে সচেতন জনগন।
শিশু সুরক্ষায় বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে গনসচেতনতা কার্যক্রমে নিয়োজিত ডেভেলপ দ্যা ভিলেজ (ডিভি)’র নির্বাহী  পরিচালক এ্যাডভোকেট মোরশেদ মানিক বাল্য বিয়ের আগাম সংবাদ পেয়ে ১২ আগস্ট রাতে সহযোগী আরেকটি এনজিও’র প্রতিনিধিকে সাথে নিয়ে কন্যা শিশুটির পরিবারকে বাল্য বিয়ের আয়োজন থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানান। বিষয়টি তারা পাশেই ইউপি ভবনে গিয়ে চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলীকে অবগত করেন।
১৫ আগস্ট বিয়ে আয়োজনের খবর পেয়ে তারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসএম মনিরুজ্জামান আল মাসউদ অবগক করলে তিনি থানা পুলিশকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেন। ওসি মমিনুল ইসলাম পরিস্থিতির নজরদারীসহ ইউপি চেয়ারম্যানকে হস্তক্ষেপ নিতে অনুরোধ করেন। অবশেষে চেয়ারম্যান ইয়াকুব আলী  শিশুটির পরিবারকে বিয়ে বন্ধ না করলে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুত এমন কথা বলার পর শামিমার পিতা খতিবর তার কন্যার বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে না দেওয়ার অঙ্গিকার করেন।
এ বিষয়ে ডেভেলপ দ্যা ভিলেজ (ডিভি)’র নির্বাহী পরিচালক এ্যাডভোকেট মোরশেদ মানিক বলেন,  আমরা শিশু সুরক্ষায় বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে গনসচেতনতা কার্যক্রমে নিয়োজিত। বাল্য বিয়ের আগাম সংবাদ পেয়ে তারা এর কুফল সম্পর্কে অবগত করে বিয়ে বন্ধের অনুরোধ করেন। অনুরোধে প্রত্যাখান হলে তারা বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনকে অবগত করেন। গত ১ সপ্তাহে প্রশাসনের বলিস্ট পদক্ষেপের কারনে ৩টি বাল্য বিয়ে বন্ধ করা সম্ভব হয়েছে। তিনি বাল্য বিয়ের আগাম সংবাদ ০১৯১৫০৫০৩৫৮ এই মুঠোফোনে জানাতে অনুরোধ করেছেন।
বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসএম মনিরুজ্জামান আল মাসউদ বলেন, বাল্য বিয়ে প্রস্ততির আগাম সংবাদ পাওয়ায় দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে বিয়ে বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছে। বাল্য বিয়ে বন্ধে গনসচেতনার পরও আয়োজন কারী অনড় থাকলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়ে থাকে। এতে জেল-জরিমানা উভয় বিধান রয়েছে। এ উপজেলাকে বাল্য বিয়ে মুক্ত করতে জিও-এনজিওদের তৎপরতা অব্যাহত থাকবে।
বিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মমিনূল ইসলাম বলেন, বাল্য বিয়ে বন্ধে পুলিশ প্রশাসন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নিয়ে থাকে।
জিও-এনজিওদের তৎপরতার কারনে বিরামপুর উপজেলায় বাল্য বিয়ে শতভাগ বন্ধ হবে, এমনটায় প্রত্যাশা সচেতন জনগনের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ