• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫২ পূর্বাহ্ন |

সমুদ্র সম্পদ আহরণে মহাপরিকল্পনা

87930_1সিসি ডেস্ক: গভীর সমুদ্রে বাংলাদেশের সীমানা নির্ধারণের পর এখন সমুদ্র সম্পদ আহরণের জন্য মহাপরিকল্পনা প্রণয়নের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে একটি কমিটি গঠন করার জন্য ২০ আগস্ট ১৯টি মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও সংস্থার অংশগ্রহণে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে একটি বৈঠক আহ্বান করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোকে চিঠি দিয়ে কৌশলগত দিকগুলো তুলে ধরে মতামত চেয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে পরিকল্পনা তৈরির পাশাপাশি অ্যাকশন প্ল্যান তৈরিরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বৈঠকের বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবদুস সোবহান সিকদার বলেছেন, সীমা নির্ধারণের পর সমুদ্র নিয়ে এটাই প্রথম বৈঠক। বৈঠকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগসহ সবাই ভবিষ্যতে এর কর্মপরিকল্পনা এবং সমুদ্র সম্পদ আহরণ ও ব্যবহারের বিভিন্ন সুপারিশ করবে। এর পরিপ্রেক্ষিতে বৈঠকে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত আসতে পারে। আর এসব কাজ সমন্বয়ের জন্য একটি কমিটি হতে পারে। জানা গেছে, বঙ্গোপসাগরের সমুদ্র সম্পদ আহরণ, ব্যবস্থাপনা ও সুসমন্বয়ের লক্ষ্যে মহাপরিকল্পনা প্রণয়নের অংশ হিসেবে ২০ আগস্ট তেজগাঁওয়ের প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের চামেলী হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে থাকবে পররাষ্ট্র, স্বরাষ্ট্র, প্রতিরক্ষা, আইন ও বিচার, পানিসম্পদ, শিল্প, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন, কৃষি, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ, পেট্রোবাংলা, আণবিক শক্তি কমিশন, ভূতত্ত্ব ও জরিপ অধিদফতর, আবহাওয়া অধিদফতরসহ প্রভৃতি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ। বৈঠকে এসব মন্ত্রণালয় ও বিভাগ তাদের নিজ নিজ পরিকল্পনা ও প্রস্তাবনা উত্থাপন করবে। প্রস্তাবিত এসব পরিকল্পনা ও প্রস্তাবনা সমন্বয় করে তৈরি করা হবে মহাপরিকল্পনা। এই মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া শুরুর জন্য একটি কমিটি গঠন করা হবে। এর সার্বিক তত্ত্বাবধান করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অন্যদিকে বাংলাদেশের সমুদ্র সম্পদ নিয়ে মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন সমন্বয়ের জন্য একটি বোর্ড বা কমিশন গঠনের চিন্তাও করা হচ্ছে। কারণ বাংলাদেশের সমুদ্র সম্পদের বিষয়াবলির সঙ্গে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ জড়িত থাকলেও কোনো সুনির্দিষ্ট সংস্থা নেই। সে কারণে একটি বোর্ড বা কমিশন হলে তার আওতায় সমুদ্র সম্পদের সদ্ব্যবহার করা সম্ভব হবে। এ বিষয়েও বৈঠকে আলোচনা হবে। আসন্ন বৈঠক উপলক্ষে প্রতিটি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের পক্ষ থেকে প্রস্তাবনা প্রণয়নের কাজ চলছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বৈঠকে প্রতিবেশী দুই দেশের সঙ্গে সমুদ্র মামলা জয়লাভের পর বাংলাদেশের সমুদ্র অঞ্চলের মানচিত্র তুলে ধরা হবে। এ ছাড়া সমুদ্র অঞ্চলের নিরাপত্তা জোরদারের বিষয়েও প্রস্তাব দেওয়া হবে। জানতে চাইলে সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, বিরোধ নিষ্পত্তির পর প্রায় এক লাখ ১৯ হাজার বর্গকিলোমিটার সাগর, ২০০ নটিক্যাল মাইল একচ্ছত্র অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং চট্টগ্রাম উপকূল থেকে ৩৫৪ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত মহীসোপানের তলদেশে সব ধরনের প্রাণিজ ও অপ্রাণিজ সম্পদের ওপর বাংলাদেশের সার্বভৌম অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়েছে। বিশাল এই অঞ্চলের সম্পদ কাজে লাগাতে নানামুখী উদ্যোগের প্রয়োজন আছে। কারণ বঙ্গোপসাগরের সমুদ্রসীমায় শুধু বিশাল মৎস্য ভাণ্ডার নয়, রয়েছে অফুরন্ত প্রাকৃতিক ও খনিজ সম্পদ। আবার বর্তমান বিশ্বে সমুদ্র সম্পদ আহরণের জন্য প্রতিটি দেশ সমুদ্রসীমায় সম্পদের জরিপ, গবেষণা, অনুসন্ধান ও সম্পদ আহরণে ব্যাপক তৎপরতা চালাচ্ছে। প্রাকৃতিক ও খনিজ সম্পদের যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমে অর্থনৈতিক উন্নয়নে নতুন দিগন্ত উন্মোচনও করে চলেছে বিভিন্ন দেশ। বাংলাদেশও তার বিশাল সম্পদ রাশির সঠিক ব্যবহার চাইছে। বাংলাদেশের মতো একটি উপকূলীয় দেশের জন্য সমুদ্র পরিবহন ও বন্দর সহযোগিতা বৃদ্ধি, মৎস্য আহরণ, মৎস্য রপ্তানি, পর্যটন, নবায়নযোগ্য জ্বালানি, সামুদ্রিক সম্পদ আহরণ, কৃত্রিম দ্বীপ নির্মাণ; সর্বোপরি জীববিজ্ঞান ও সমুদ্রবিজ্ঞান প্রভৃতি ক্ষেত্রে উন্নয়নের নতুন দ্বার উন্মোচিত হওয়ার প্রভূত সম্ভাবনা আছে। এ কারণেই সমুদ্রের মৎস্য সম্পদ আহরণ ও তেল-গ্যাস উত্তোলন ছাড়াও নানামুখী উদ্যোগ নিতে চায় সরকার। সেই লক্ষ্যে সরকার এখন মহাপরিকল্পনা করার জন্য কার্যক্রম শুরু করেছে। সূত্রমতে, ব্লু ইকোনমির ধারণা বাস্তবায়নে চীন ও জাপানের সহযোগিতা কাঠামো প্রস্তুত করছে সরকার। সমুদ্রের তলদেশে কী রয়েছে তা এখনো অজানা বাংলাদেশের। ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার জন্য এর বিস্তারিত জানা জরুরি। ফলে কমিটি গঠনের পর প্রথমেই জরিপ কাজের জন্য জনবল এবং সামুদ্রিক জলযান ক্রয়ের পরিকল্পনা রয়েছে। আর সামুদ্রিক সম্পদ কীভাবে কাজে লাগানো হবে, সে বিষয়ে অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য আগামী ১ ও ২ সেপ্টেম্বর ঢাকায় একটি আন্তর্জাতিক কর্মশালারও আয়োজন করা হচ্ছে। অন্যদিকে সমুদ্র নিয়ে মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন কার্যক্রমে দেশ-বিদেশের বিশেষজ্ঞদেরও যুক্ত করা হবে। কাজে লাগানো হবে বাংলাদেশের সমুদ্র বিশেষজ্ঞদেরও। এ ছাড়া বাংলাদেশের বাইরে যেসব প্রবাসী বাংলাদেশি সমুদ্রবিশেষজ্ঞ রয়েছেন, তাদের এই মহাপরিকল্পনার সঙ্গে যুক্ত করার পরিকল্পনাও রয়েছে সরকারের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ