• বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৫৫ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
সৈয়দপুরে মাকে মারপিটের দায়ে মাদকসেবি পুত্রের কারাদন্ড সৈয়দপুরে জাতীয় শোক দিবসে দুস্থ মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ স্ত্রী শাহিদা পেলেন রুবেলের মরদেহ বিরামপুরে লিচু বাগান থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার সৈয়দপুরে পূর্ব শক্রতার জেরে যুবককে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ পরিস্থিতি অস্বাভাবিক হবে, এটা ভেবেই মাঠে নামতে হবে- আইজিপি প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্যে ‘জান্নাত’ ‘জাহান্নাম’ বিভ্রাট: ছাত্রলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ বরগুনায় কর্মীদের পুলিশের মারধর তদন্ত করবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সৈয়দপুরে মাদ্রাসা ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার বিআরটি প্রকল্পের গার্ডার পড়ে প্রাইভেটকারের ৫ আরোহী নিহত

তিস্তার বন্যায় বানভাসী মানুষের দূর্ভোগ চরমে

Nilphamari Tista Flood-01সিসিনিউজ: চরম দুর্ভোগে দিন কাটছে তিস্তায় বানভাসী মানুষের। বন্যার পানি নেমে গেলেও দূর্ভোগ কাটেনি এসব মানুষের। বানভাসী মানুষের তালিকা করে ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার বন্যাকবলিত মানুষের জন্য ২০ মেট্রিক টন চাল ও ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হলেও রোববার পর্যন্ত ত্রাণ পৌছায়নি এসব মানুষের কাছে। রোববার নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি কিছুটা কমে সকাল ছয়টা থেকে বিপদসীমার (৫২.৪০ মিটার) ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে পানি আরো কমে বিকাল তিনটায় তা বিপদসীমা বরাবর প্রবাহিত হয়েছে।
এদিকে উজানের ঢলের সাথে ভারী বর্ষনের যেন আরো অসহায় করেছে তিস্তাপাড়ের মানুষকে। গত চার দিন থেকে তিস্তা পাড়ের হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দী থাকার পর পানি নেমে গেলেও তারা আছেন চরম দুর্ভোগে। এসব মানুষের খাদ্য সংকটের সঙ্গে দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানীয় জলের অভাব। তাই অনাহার-অর্ধাহারে দিন যাপন করছে এসব বানবাসী মানুষ। দূর্গতদের মাঝে বিশেষ করে শুকনা খাবার ওবিশুদ্ধ পানির সরবরাহ করা জরুরী হয়ে পড়েছে।
জনপ্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, এখনও তারা বন্যা কবলিতদের জন্য সরকারি ভাবে তালিকা পাঠানো হলেও এখন পর্যন্ত কোন কোন ত্রান সহায়তা হাতে পায়নি বলে জানান তারা।
নীলফামারীর জেলা প্রশাসক জাকীর হোসেন জানান, বন্যা কবলিত ডিমলা উপজেলার জন্য ১৫ মেট্রিক চাল ও ৩০ হাজার টাকা এবং জলঢাকা উপজেলায় পাঁচ মেট্রিকটন চাল ও ১০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা নিজ নিজ এলাকায় এসব বিতরণ করবেন।
ডালিয়া ডিভিশনের পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান জানান, গত বৃহস্পতিবার বিকাল তিনটায় তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার (৫২.৪০ মিটারের) পাঁচ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে এবং শুক্রবার সন্ধ্যা ছয়টায় বিপদসীমার ২৭ সেন্টিমিটার ওপড় দিয়ে প্রবাহিত হয়। সবশেষ শুক্রবার রাত ১২ টায় পানি বিপদসীমার ৩৮ সেন্টিমিটার (৫২.৭৮ মিটার) ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। এসময় ব্যারেজ রক্ষার্থে ফ্লাড ফিউজের আশপাশে বসতবাড়ির লোকজনদের মাইকিং করে নিরাপদ স্থানে সরে যেতে বলা হয়। তবে শনিবার সকাল থেকে তিস্তার পানি আবার কমতে শুরু করে। রোববার সকাল থেকে পানি বিপদসীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হলেও বিকাল তিনটায় তা আরো কমে বিপদসীমা বরাবর প্রবাহিত হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ