• বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৩৯ অপরাহ্ন |

উত্তরাঞ্চলে ট্রেনগুলিতে মাদক ব্যবসা জমজমাট

Trainমোঃ আফজাল হোসেন, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর): দেশের উত্তরাঞ্চলে ট্রেনগুলিতে যাত্রীরা ভ্রমনে হরানি হচ্ছে। ট্রেনে এখন মাদক ব্যবসার জমজমাট। চোরাচালানীদের নিরাপত্তা রুট হিসাবে চোরাচালান ব্যবসায় চালিয়ে যাচ্ছে। নিরাপত্তা কর্মীরা ট্রেনে যাত্রীদের নিরাপত্তা দিবে কি, তারা চোরাকারবারীদের কাছে টাকা তোলার জন্য তাদের নিয়োগকৃত অঘোষিত লাইনম্যান দ্বারা চোরাকারবারীদের নিকট থেকে টাকা তুলছে। প্রতিদিন রাজশাহী থেকে ছেড়ে আসা তিতুমীর, বরেন্দ্র, উত্তরা, খুলনা থেকে ছেড়ে আসা সীমান্ত, রুপসা, খুলনা মেইল, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা নীলসাগর, দ্রুতযান, তিস্তা, ট্রেনগুলিতে চোরাকারবারীরা পার্বতীপুর-জয়পুর হাট থেকে ছাড়া আসা হিলিতে পৌছা মাত্র ট্রেনের হুজপাইপ খুলে দিয়ে হিলি থেকে কোটি কোটি টাকার মাদক সামগ্রী ট্রেনে তোলা হচ্ছে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কর্তা ব্যক্তিরা চোরাকারবারী ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা নিচ্ছে না।  হিলি থেকে বিরামপুর, ফুলবাড়ী, পার্বতীপুর, সৈয়দপুর, রংপুর, বিরামপুর থেকে জয়পুরহাট সান্তহার, নাটোর, ঈশ্বর্দী, হিলি থেকে আন্তনগর ও লোকাল এবং মেইল ট্রেনগুলিতে ভারর্তী বিভিন্ন পণ্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। বিভিন্ন সংস্থার নামে টাকা তোলা হচ্ছে। এরা কারা জিজ্ঞাসা  করা হলে তারা বলে চুপ করে থাকেন। এর উত্তর আপনাকে দেওয়া যাবে না।
অভিযোগ উঠছে সীমান্তের ওপার থেকে এক শ্রেণী চোরাকারবারীর গড ফাদারেরা এপারে এজেন্ট নিয়োগ করে তাদের মাধ্যমে ট্রেনে অস্ত্র পাচার করছে। অপরদিকে চোরা পথে আসা ভারতে বিভিন্ন পণ্য ও মাদক নিয়ে যাচ্ছে। ইদানিং ট্রেনে নিরাপত্তা কর্মীরা ৪০ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি ফুলবাড়ী ও জয়পুর হাট বিজিবির সদস্যরা গোপন সংবাদের ভিক্তিতে তথ্য পেয়ে ট্রেনগুলিতে অভিযান চালাতে গেলে রেলওয়ে নিরাপত্তা কর্মীরা তাদেরকে তল্লাশী চালাতে বাধা প্রদান করছে। এমনি ঘটনা ঘটছে গত ১৬ই আগস্ট শনিবার রাত্রী সাড়ে ১২টায় ফুলবাড়ী রেলওয়ে ষ্টেশনে। সেদিন ঐ ট্রেনে চোরাকারবারীর ব্যবসায়ীরা শুধু ভারতীয় মালামাল নিয়ে যাচ্ছিল না, নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল ভারতীয় অস্ত্র। রেলওয়ের কতিপয় নিরাপত্তা কর্মীরা এই ব্যবসার সাথে জড়িত আছে বলে নাম প্রকাশে অনুচ্ছুক কয়েক জন চোরাকারবারীর ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন। ট্রেনের বিভিন্ন ছিট, টয়লেট ও ছাদের স্ক্রু খুলে সেখানে অবৈধ মাল ও অস্ত্র লুকিয়ে রাখছে। এতে ট্রেনে ক্ষতি সাধন হচ্ছে।
বর্তমান রেলওয়ে ভ্রমনে যাত্রীরা নিরাপত্তা পাচ্ছে না। কারণ যাত্রীরা নিরাপত্তা কর্মীদেরকে চোরাকারবারী ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ করলে তারা যাত্রীদেরকে বিভিন্ন ভাবে ভয় ভীতি দেখান। এমনকি রেলওয়ে গার্ড থেকে শুরু করে কেউ কথা বলতে ভয় পান। পার্বতীপুর থেকে জয়পুরহাট পর্যন্ত টিকিট পরিদর্শকরা কোন টিকিট আছে কি না তা যাত্রীদের কাছে ও চোরাকারবারীদের কাছে দেখেন না। ট্রেনগুলিতে এ অবস্থা চলতে থাকলে সরকার একদিকে যেমন রাজস্ব হারাবেন অন্যদিকে ট্রেনগুলিতে যাত্রী সংখ্যা উল্লেখযোগ্য ভাবে কমে যাবে। বিজিবি কে  কেন ট্রেন তল্লাশী করতে দেওয়া হবে না এটা কি ধরনের রহস্য? তাহলে কি রেলওয়ে নিরাপত্তা কর্মীরা এই অবৈধ ব্যবসায় সাথে জড়িত নয়? এখনি তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় আইনগত ব্যবস্থা না নেওয়া হলে দিনের পর দিন তারা এই ভাবে চোরাকারবারী ব্যবসায়ীদের সাথে জড়িয়ে পড়বে এবং বিজিবি সাথে রেলওয়ে নিরাপত্তা কর্মীদের সঙ্গে বিবাদের সৃষ্টি হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ