• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৪:২৮ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

নীলফামারীতে গৃহপরিচারিকাকে হত্যা করে শিশু অপহরণ

সিসিনিউজ: নীলফামারীতে গৃহপরিচারিকাকে হত্যা করে মীর্জা জুনায়েদ হাসান নামের ১৫ মাসের এক শিশুকে অপহরণ করেছে দূবৃত্তরা। মঙ্গলবার বিকেলে শহরের থানা পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত গৃহপরিচারিকা সুমি (১৫) জেলার জলঢাকা উপজেলার খুটামারা ইউনিয়নের আরাজী বালাপাড়া গ্রামের আব্দুল্লাহর মেয়ে।
পুলিশ জানায়, জুনায়েদের বাবা মীর্জা নুর মোহাম্মদ বেগ একটি ফেমা ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি প্রাইভেট কোম্পানীতে এবং মা শিরিন জাহান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। জুনায়েদের বাবা বাড়িতে না থাকায় মঙ্গলবার সকালে জুনায়েদের মা জুনায়েদ ও বাড়ির গৃহপরিচারিকা সুমি বেগমকে বাড়িতে রেখে স্কুলে যান। বিকেল সোয়া পাঁচটার দিকে শিরিন বেগম বাড়িতে এসে মূল ফটকের দরজা খোলা পান। পরে তারা বাড়ির ভেতরে ঢুকে বাথরুমের ভেতর গৃহপরিচারিকা সুমির মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখেন। তবে তাদের ছেলে জুনায়েদকে কোথাও খুজে পাওয়া যায়নি।
জুনায়েদের মা শিরিন জাহান বলেন, আমার স্বামী রাতে অফিসের কাজে নীলফামারীর বাহিরে ছিলেন। সকাল সাড়ে আটটার দিকে জুনায়েদ ও কাজের মেয়ে সুমিকে বাড়িতে রেখে স্কুলে যাই। সোয়া পাঁচটার দিকে বাড়িতে ফিরে বাড়ির মুল দরজা খোলা দেখতে পাই। পরে ভেতরে গিয়ে সব কক্ষে খুজে সুমি ও জুনায়েদকে কোথাও খুজে পাইনি। খুজতে খুজতে বাথরুমের ভেতর সুমির মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখি।
জুনায়েদের বাবা মীর্জা নুর মোহাম্মদ বেগ বলেন, আমাদের কোন সন্তান নাই তাই এক বছর আগে আমার ছোট ভাই মীর্জা জাকারিয়া বেগের তিন মাসের ছেলে জুনায়েদকে দত্তক নিয়ে লালনপালন করছি।
এদিকে ঘটনার পর নীলফামারীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাতেম আলী, সহকারী পুলিশ সুপার শফিউল ইসলাম, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহজাহান পাশা ও বাবুল আকতার ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন। শিশু জুনায়েদকে দূবৃত্তরা অপহরণ করার সময় সুমি তাদের দেখতে পেলে তাকে হত্যা করা হতে পারে বলে ধারণা  করছে পুলিশ। নীলফামারী থানার ওসি শাহজাহান পাশা বলেন, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে আসি। তবে ধারণা করা হচ্ছে সুমিকে অপহরণ করার সময় গৃহপরিচারিকা সুমি হয়তো অপহরণকারীদের দেখে বা চিনে ফেলায় তাকে হত্যা করা হতে পারে। সুমীর পরনের কাপড়-চোপড় খোলা অবস্থায় ছিলো বলে জানান তিনি।
সহকারী পুলিশ সুপার শফিউল ইসলাম বলেন, আমিসহ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছি। শিশুটি উদ্ধারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে এবং বিষয়টি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ