• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:৪৩ অপরাহ্ন |

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আজ মাঠে নামছে টাইগাররা

Criখেলাধুলা ডেস্ক: দেশের বাহিরে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল কোন দেশে সবচেয়ে বেশি সফল, এমন প্রশ্ন আসলে উত্তরে অবশ্যই এক নম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের নামটি আসবে। এই সেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ, যেখানে প্রথমবারের মতো টেস্টে ইনিংস ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশী কোন অধিনায়ক। বিশ্বকাপের সেরা সাফল্য এসেছিলো এই ওয়েস্ট ইন্ডিজেই।

প্রথম বারের মতো প্রতিপক্ষকে হোয়াইটওয়াশ করার স্বাদ পেয়েছিলো বাংলাদেশ। তাই আজ স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে নামার আগে এইসব সুখস্মৃতি নিয়েই মাঠে নামবে টাইগাররা।

শুরুটা ২০০৪ সালে। বাংলাদেশ যখন টেস্ট ক্রিকেটে হাঁটি হাঁটি পা পা করছিল। তখন পর্যন্ত ২৮টি টেস্ট খেলে বাংলাদেশের ‘অর্জন’ বলতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুটি বৃষ্টি বিঘ্নিত টেস্ট ড্র। কিন্তু সেই অবস্থাতেই তারকা খচিত ওয়েস্ট ইন্ডিজকে রুখে দিলো টাইগাররা। টিনো বেস্ট, পেড্রো কলিন্স, জার্মেইন লসন, ফিদেল অডওয়ার্ডদের ভয়ঙ্কর পেস আক্রমণের বিপক্ষে চারশ’র বেশি রান করে দেশের ইতিহাসে প্রথম বারের মতো ইনিংস ঘোষণা করলেন অধিনায়ক হাবিবুল বাশার।

প্রথম ইনিংসে সেঞ্চুরি তুলে নিলেন হাবিবুল বাশার ও মোহাম্মদ রফিক। দ্বিতীয় ইনিংসে ক্যারিয়ারের একমাত্র সেঞ্চুরি তুলে নিলেন খালেদ মাসুদ পাইলট। এরপর ব্রায়ান লারা, শিবনারায়ণ চন্দনপল, ক্রিস গেইল, সাওয়ানদের নিয়ে গড়া ভারসাম্যপূর্ণ ব্যাটিং লাইনাপের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে গেলেন মোহাম্মদ রফিকরা। ফলাফল দেশের বাহিরে প্রথম বারের মতো টেস্ট ড্র।

এর তিন বছর পর আবারো ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর। ২০০৭ সালে বিশ্বকাপ আসর বসলো ক্যারিবিয়ান দ্বীপে। সে সময়ের সাফল্যের পাল্লা ২০০৪ সালের চেয়ে অনেক ভারি ছিলো। বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসে বিশ্বকাপ আসরের সেরা সাফল্য এসেছিলো ওই ক্যারিবিয়ান বিশ্বকাপেই। গ্রুপ পর্বে ভারতকে হারিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করলো টাইগাররা। দ্বিতীয় রাউন্ডে তখনকার এক নম্বর দল দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে মহাকাব্যিক জয় নিয়ে টাইগাররা প্রমাণ করে দিয়েছিলো বাংলাদেশ এখন থেকে আর ‘মিনোস’ দল নয়। সেই বিশ্বকাপের মধ্যদিয়েই ক্রিকেট বিশ্ব চিনেছিলো সাকিব, তামিম ও মুশফিকদেরকে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজে সর্বশেষ সফর ২০০৯ সালে। পূর্নাঙ্গ সিরিজ খেলতে ক্যারিবিয়ান দ্বীপের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় মাশরাফিরা। সেই সফরেই এসেছিলো এখন পর্যন্ত বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের সেরা সাফল্য। টাইগাররা প্রথম বারের মতো প্রতিপক্ষকে হোয়াইটওয়াশ করার গৌরব অর্জন করে এই সফরে। ওই সিরিজে অধিনায়কের দায়িত্বে মাশরাফি বিন মুর্তজা থাকলেও প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ইনজুরির কারণে সিরিজ থেকে ছিটকে যান তিনি। হঠাৎ করেই অধিনায়কের দায়িত্ব নিলেন তরুণ সাকিব আল-হাসান। তখই শুরু হলো মহাকব্যিক সাফল্য গাঁথা এক সিরিজের গল্প।

পরপর তিন ওয়ানডে ও দুই টেস্টে স্বাগতিকদের দাঁড়ানোরই সুযোগ দিলেন না সাকিবরা। ওয়ানডে ও টেস্ট দুই সিরিজেই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করলো টাইগাররা । ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত পারফর্ম করে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন অধিনায়ক সাকিব। টেস্টে সিরিজে ব্যাট হাতে ১৫৯ রান, বল হাতে সর্বোচ্চ ১৩টি উইকেট নিয়ে হলেন ম্যাচ সেরা ও সিরিজ সেরা। সেই ধারাবাহিকতা বজায় থাকে ওয়ানডে সিরিজেও।

তবে ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা সাফল্যময় সেই সিরিজের হিরো সাকিব এবার দলে নেই। নিষেধাজ্ঞার কারণে এবার ওয়েস্ট ইন্ডিজগামী বিমানে উঠতে পারেননি সাকিব। তবে দুই বছর আগে দেশের মাটিতে দলের সেরা এই খেলোয়াড়কে ছাড়াই গেইল-স্যামিদের ওয়ানডে সিরিজে ৩-২ ব্যবধানে হারিয়েছিলো টাইগাররা। সেই হিসাবে ভালো কিছুর স্বপ্ন দেখতেই পারে মুশফিকরা। অতীতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ মানেই বাংলাদেশ ক্রিকেটর ইতিহাস। সে ইতিহাসটা দীর্ঘায়িত করার দায়িত্ব এখন টাইগারদের।

সিরিজকে সামনে রেখে গত দেড় মাস কঠোর অনুশীলন করেছে টাইগাররা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়ার আগে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে তারা। প্রস্তুতি ম্যাচে দারুণ খেলেছে ব্যাটসম্যানরা। এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজে গিয়ে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচেও দারুণ পারফরম্যান্স দেখিয়েছে দলের ব্যাটসম্যানরা। প্রস্তুতি ম্যাচগুলোর প্রতিটিতেই রানের দেখা পেয়েছেন অফ ফর্মে থাকা দেশ সেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। নিজের চেনা রুপেই খেলতে দেখা গেছে তামিমকে। মাঠে নামার আগে সম্ভবত এটিই কোচের জন্য সবচেয়ে ভালো খবর। কারণ একাই ম্যাচের চিত্র পাল্টে দেওয়ার ক্ষমতা যে তামিমের আছে তা অনেক আগেই প্রমাণিত।

এছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজে খেলার অভিজ্ঞতা আছে দলের প্রায় সব খেলোয়াড়েরই। তরুণ পেসার তাসকিন আহম্মেদ, ওপেনার এনামুল হক ছাড়া সবাই অতীতে ওয়েস্ট ইন্ডিজে খেলেছে। এটা অবশ্যই দলে প্রভাব ফেলবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ