• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১০:২৭ অপরাহ্ন |

দিনাজপুরে সক্রিয় ৩০ জঙ্গিকে গ্রেফতারে তৎপর পুলিশ

JMBদিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ-জেএমবি’র ৩০ সক্রিয় সদস্যকে  গ্রেফতারে তৎপর রয়েছে পুলিশ। গ্রেফতারের পর এ সব সদস্য জামিনে মুক্তি পেয়ে পুনরায় জঙ্গি তৎপরতায় লিপ্ত হচ্ছে। ফলে তাদের ধরতে জেলার স্পর্শকাতর স্থান ও জনবহুল এলাকায় নজরদারি বাড়িয়েছে পুলিশ।
পুলিশ জানায়, নিষিদ্ধ ঘোষিত জেএমবি এবং নানা ছদ্দ নামে পরিচালিত জঙ্গি সংগঠনের সক্রিয় বেশ কিছু সদস্যকে পুলিশ গ্রেফতার করলেও জামিনে বের হয়ে তারা এখন পলাতক রয়েছে। জঙ্গিরা আদালতে নিয়মিত হাজিরাও দিচ্ছে না। কিন্তু নামে বে-নামে তারা তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। ওইসব পলাতক জঙ্গি সদস্যদের গ্রেফতারের জন্য খুঁজছে পুলিশ।
দিনাজপুর পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন জানান, দেশের বিভিন্ন স্থানে পুনরায় বিভিন্ন নামে জঙ্গি সদস্যরা সক্রিয় হয়ে নাশকতামূলক কর্মকন্ড চালানোর চেষ্টা করছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর হাতে আটক সক্রিয় জঙ্গি সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদে চাঞ্চল্যকর এ তথ্য পাওয়া গেছে। সেই লক্ষ্যে সারা দেশে জঙ্গি সদস্যদের নাশকতামূলক কার্যক্রম ঠেকাতে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। তিনি জানান, রেলওয়ে স্টেশন, মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, পার্বতীপুর উপজেলার বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও কয়লা খনি এবং মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্প, হিলি স্থল বন্দরসহ জেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। এছাড়াও শহরে পুলিশ, র‌্যাব সদস্যদের টহল জোরদার করা হয়েছে।
পুলিশ জানায়, ২০০৫ সালের ১৭ আগষ্ট বেলা ১১টায় সারা দেশের মতো দিনাজপুর শহরে জঙ্গি সংগঠনের সদস্যরা একযোগে ১১টি স্থানে ১২টি বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছিল। ওই মামলায় পুলিশ তদন্ত করে ৮ জন সক্রিয় জঙ্গি সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। মামলাটি দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-৩ এর আদালতে দীর্ঘ সময় বিচার কার্যক্রম পরিচালিত হয়। সবশেষ ২০১২ সালের ৩১ অক্টোবর ওই আদালতের বিচারক মোঃ গাজী রহমান ৮ জন আসামির মধ্যে কারাগারে আটক ৭ জনকে খালাসের রায় দিয়ে পলাতক আসামি আফজাল আবেদিনকে ১০ বছর সশ্রম কারাদন্ড এবং ১ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১ বছরের কারাদন্ডে রায় দেন। এই চাঞ্চল্যকর মামলার দন্ডপ্রাপ্ত আসামি আফজাল আবেদিন শহরের ক্ষেত্রিপাড়া মহল্লার জয়নাল আবেদিন মধুর ছেলে। ঘটনার পর থেকেই সে পুলিশের গ্রেফতার এড়াতে পলাতক রয়েছে।
এছাড়া এ মামলায় কারাগারে আটক ছিল এবং পরবর্তীতে বিচারে খালাস পেয়েছে এই ৭ জনসহ জেলায় গ্রেফতার হওয়া প্রায় ৩০ জন জঙ্গি সদস্য জেল হাজত থেকে মুক্তি পাওয়ার পর পুলিশ  তাদের আর খোঁজে পাচ্ছে না।
এই চাঞ্চল্যকর মামলার খালাসপ্রাপ্ত ৭ জন হলেন, বোচাগঞ্জ উপজেলার ছাতইল গ্রামের হাজী আব্দুল মজিদের ছেলে রায়হানুর রহমান ওরফে রেহান (৩৪), সদর উপজেলার রামনগর মহল্লার এহসান আলীর ছেলে আমিনুল ইসলাম ওরফে বিজি (৪৭), শিকদারহাট গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে আব্দুর রশিদ বিন মকবুল (৩৩), খানপুর গ্রামের আফতাব উদ্দীনের ছেলে নজরুল ইসলাম (৩৪), বড়বন্দর এলাকার জয়েন উদ্দীনের ছেলে আবু রাজিন মোঃ আব্দুল মতিন (৫০), মহব্বতপুর গ্রামের হাজী জসিম উদ্দীনের ছেলে  মোজাম্মেল হোসেন ওরফে তোজা (৪৪) এবং বড়গুনা জেলার বামনা থানার আমতলী গ্রামের ইয়ারত আলীর ছেলে রাজু মিয়া (৩০)।
এ সাত জন ২০১২ সালে ৩১ অক্টোবর আদালতের রায়ে খালাস পেয়ে জেল হাজত থেকে মুক্তি পান। ২০০৩ সাল  থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত জঙ্গী সংগঠনের সাথে জড়িত এ ধরণের আরো ২৩ জন সদস্য জেলার বিভিন্ন থানা থেকে আটক করে সন্ত্রাস দমন আইনে জেল হাজতে আটক ছিল। সকলেই জেল হাজত থেকে মুক্তি পেয়ে পুনরায় গাঁ ঢাকা দিয়েছে। এদেরকে গ্রেফতারের জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তৎপরতা চালালেও এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ