• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০২:৫৬ পূর্বাহ্ন |
শিরোনাম :

পড়ুন আর হাসুন (রম্য গল্প)

Gopalসাহিত্য ডেস্ক: মহারাজের ক্ষৌরকারের মনে আপক্ষেপ ছিল গোপালও যে জাতি আমিও সেই জাতি কিন’ গোপাল যে ভাবে মহারাজাকে পর্যন- চাতুরীতে হারিয়ে দেয় এবং পরিবর্তে অনেক পুরষ্কার পায় আমিই বা তা পাব না কেন? গোপাল এবং মহারাজকে বুঝিয়ে দিতে হবে যে আমিও গোপালের চেয়ে কম চতুর এবং বুদ্ধিমান নই। গোপালকে কি করে জব্দ করা যায় এই চিন্তা সব সময় তার মাথার মধ্যে ঘুরতে লাগলো।

একদিন ক্ষৌরকার রাস্তা দিয়ে যেতে যেতে দেখলো গোপাল বেশ বড় একটা রুই মাছ হাতে ঝুলিয়ে বাড়ির দিকে যাচ্ছে। সে তাড়াতাড়ি অন্য রাস্তা দিয়ে যেয়ে গোপালের মুখোমুখি হলো যেন গোপালের বাড়ি থেকেই সে আসছে।

সামনাসামনি হতেই মুখে শোকের ভাব এনে ক্ষৌরকার বললো, গোপাল, এখনই আমি তোমার বাড়ির থেকে আসছি, তোমার বড় বিপদ, এই মাত্র তোমার মা পরলোকগমন করলেন। তুমি তোমার বাড়ি যাও। এই লোকটির সঙ্গে গোপালের তেমন কোন সর্ম্পক ছিল না এমন কি বাক্যলাপও ছিল না। সেই জন্য তার কথা অবিশ্বাস করতে পারলোনা। এই দুঃসংবাদ শুনে গোপাল শোকে দিশেহারা হয়ে পড়লো। সে সঙ্গে সঙ্গে মাছটি তাকে দিয়ে বললো, এই সংবাদের পর মাছটি নিয়ে বাড়ি ঢোকা উচিৎ হবে না,তুমি এটি তোমার বাড়ি নিয়ে যাও। মাছটি বাড়িতে রেখে তাড়াতাড়ি আমার বাড়িতে চলে এসো। তুমি আমার স্বজাতি, এই বিপদের সময় তোমাকে আমার প্রয়োজন হবে। ’ ক্ষৌরকার মুখে দুঃখের ভাব প্রকাশ করে মাছটি হাতে নিয়ে মনের আনন্দে বাড়ির পথ ধরলো। গোপালও আর বিলম্ব না করে দ্রুত বাড়ির পথ ধরলো।

ক্ষৌরকারটি গোপালের মত বুদ্ধিমান লোককে ঠকাতে পেরে মনে মনে খুব আত্মপ্রসাদ লাভ করলো এবং নিজেকে খুব বুদ্ধিমান ভেবে রাসতায় যেতে যেতে যার সঙ্গে দেখা হলো তাকেই ঘটনাটা বললো।

গোপালের বাড়িতে যেয়ে অবাক! সে সবই বুঝতে পারলো, কাউকে কোন কথা না বলে গুম হয়ে রইলো।

ক্ষৌরকার ভেবেছিল এ ব্যাপারে গোপাল তার সঙ্গে ঝগড়া করবে এবং মহারাজের কাছে নালিশও করতে পারে। কিন’ যেন কিছুই হয়নি গোপাল এমনি ভাব দেখাতে লাগলো। ক্ষৌরকার ভাবলো গোপাল সব ভুলে গিয়েছে।

এই ঘটনার বেশ কিছুদিন পর গোপাল পরপর কয়েকদিন রাজসভায় উপসি’ত না হওয়ায় মহারাজ খুব চিনি-ত হয়ে গোপালের খোঁজ নিতে লোক পাঠালেন। গোপাল দূর থেকে মহারাজের লোককে আসতে দেখে বিছানায় শুয়ে এমনভাবে ছটফট করতে লাগলো যা দেখে মহারাজের লোক ভাবলো গোপাল খুবই অসুস’।

এই সংবাদ মহারাজ পাওয়া মাত্র সঙ্গে সঙ্গে গোপালের বাড়ি পাল্কী পাঠিয়ে দিলেন। মহারাজ প্রাসাদের সদর দরজাতেই অপেক্ষা করছিলেন। পাল্কী এসে পৌছাতেই সামনে এগিয়ে এলেন। গোপাল অতি কষ্টে লাঠিতে ভর দিয়ে পাল্কী থেকে নামলো।

মহারাজ জিজ্ঞেস করলেন, এখন কেমন বোধ করছ গোপাল? মনে হচ্ছে ফোঁড়াটি তোমাকে খুবই কষ্ট দিচ্ছে।
-হ্যাঁ মহারাজ, বড় বাজে জায়গায় ফোঁড়াটি হওয়ায় অসুবিধা বোধ করছি।
– তা পেকেছে ?
-মনে হয় পেকেছে মহারাজ,বেশ দপদপ করছে।
-তবে তো কাটাবার ব্যবস্থা করতে হয়।
-কাটাকাটিকে আমার বড় ভয় হয় মহারাজ।
-না, না কোন ভয় নেই। আমার ক্ষৌরকার এ ব্যপারে খুবই ওস্তাদ, ডাক্তারকেও সে হার মানিয়ে দেবে। তাকে দিয়ে কাটিয়ে নাও।

ক্ষৌরকার সেখানেই উপসি’ত ছিল। মহারাজের মুখে তার প্রশংসা শুনে সে খুব আহ্লাদিত হলো দেখে গোপাল মনে মনে হাসলো।

গোপাল বিনীতভাবে বললো, আজ্ঞে মহারাজ, আমিও শুনেছি, আপনি যখন আশ্বাস দিচ্ছেন তখন কালই ফোঁড়াটি কাটিয়ে নেব। আপনি ডেকে পাঠিয়েছেন তাই আসা,
আপনার আদেশ তো অমান্য করতে পারি না। তাছাড়া একটা নালিশ হুজুরের কাছে আছে তাই অনেক কষ্ট করে এসেছি।
-তুমি অকপটে সব কথা বল, আমি নিশ্চই বিচার করব, তোমার নালিশ বলে কথা।
-মহারাজ,আমি একজনকে খতের বিনিময়ে কিছু টাকা ধার দিয়েছিলাম কিন’ অসাবধানতাবশত সেই খতখানা আমি হারিয়ে ফেলেছি। তার কাছে এখন টাকা চাইতে সে আমাকে আমলই দিচ্ছে না, কেবল পালিয়ে বেড়াচ্ছে। দেখা হলে বলছে সে টাকা শোধ করে দিয়েছে। আমি রসিদ দেখাতে বলায় সে আগামীকাল সকালে রসিদ দেখাবে বলেছে আমার মনে হচ্ছে মহারাজ, সে আমাকে জাল রসিদ দেখাবে। আমার অবস্থা তো দেখছেন, এঅবস্থায় আমি কিছুই করতে পারবো না।

-তা গোপাল, তুমি আমাকে কি করতে বল ?
-আপনি যদি সকালেই দুজন পাইক আমার কাছে পাঠিয়ে দেন তবে আমি তাকে জাল রসিদসহ ধরে আপনার সামনে বিচারের জন্য উপসি’ত করতে পারি।
-এ আর এমন কি শক্ত কাজ। তুমি নিশ্চিনে- মনে বাড়ি ফিরে যাও, আগামীকাল সকালেই আমার দুজন তাগড়াই চেহারার পাইক তোমার বাড়িতে উপসি’ত থাকবে।
-মহারাজ, বলে দেবেন তারা যেন আমার হুকুম অমান্য না করে, আমি যা আদেশ করব সেইমত যেন কাজ করে,তারপর আপনার বিচারে আমার যে শাসি- হবে তা আমি নতমস-কে মেনে নেব।
-তাই হবে গোপাল, তুমি এখন বাড়ি যাও।
পাল্কীতে উঠে বাড়ি ফিরে এসে গোপালের ছেলেকে দিয়ে ক্ষৌরকারকে খবর দিল সে যেন আগামীকাল সকালে এসে গোপালের ফোঁড়াটি কেটে দিয়ে যায়, ফোঁড়াটি পেকে যাওয়ায় বরই কষ্ট দিচ্ছে।

ছেলেকে বলে রাখলো রাজবাড়ি থেকে সকালেই দুজন পাইক আসবে, তাদের যেন একটি ঘরে লুকিয়ে রেখে ক্ষৌরকার যেন কোনমতেই জানতে না পারে যে মহারাজের দুজন পাইক আমার বাড়িতে উপসি’ত আছে। গোপালের ছেলে গোপালের খুবই বংশবদ-গোপাল যখন যা আদেশ করে তখন সে বিনা দ্বিধায় পালন করে,কখনো কোন প্রশ্ন করে না। সে খুব ভালভাবেই জানে যে তার বাবা উদ্দেশ্য ছাড়া কোন কিছু করে না।

এদিকে সে রাত্রে গোপাল তার বৌকে বেশ গুরুপাক আহার প্রস-ত করতে বললো।

গোপালের বৌ হাসিমুখেই সব ব্যবস্থা করলো। মনে মনে বুঝলো তার স্বামীর নিশ্চই কোন মতলব আছে, একটা কিছু না করে ছাড়বে না।

পরদিন সকালেই কথামত দুজন ষন্ডার্মাকা পাইক এসে উপসি’ত হলে গোপলের ছেলে তাদের একটা ঘরের মধ্যে আটকে রেখে বলে রাখলো ডাকলেই তারা যেন বেড়িয়ে আসে এবং যাকে ধরতে বলবে তাকে সঙ্গে সঙ্গে ধরে।

এই কথা বলে গোপালের ছেলে ছুটলো ক্ষৌরকারের বাড়ি। ক্ষৌরকারকে সঙ্গে নিয়ে ফিরে এলো। ছেলে এসে বললো, বাবা, ক্ষৌরকারমশায়কে নিয়ে এসেছি।
গোপাল কোকাতে কোকাতে বাইরে এসে ক্ষৌরকারকে উদ্দেশ্য করে বললো, তাড়াতাড়ি ফোঁড়াটি কাটার ব্যবস্থা কর। এ কষ্ট আর সহ্য হচ্ছে না, তবে একটু দেখেশুনে কেটো, আমার আবার কাটাকাটিতে বড় ভয় । ক্ষৌরকার দাওয়ায় একটা বিছানা করে তাকে শুতে বললো। গোপাল তাতে আপত্তি জানিয়ে বললো, নানা, তাতে খুবই অসুবিধা হবে। আমি দাওয়ার ধারে বসছি, তুমি দাওয়ার নীচ থেকে ফোঁড়া কাটার ব্যবস্থা কর। তুমি নরুনের সাহায্যে ফোঁড়ার উপরের প্রলেপ আসে- আসে- তুলে ফেল,দেথযেন ফোঁড়ায় টান না পড়ে।

ক্ষৌরকার গোপালের মালদ্বারের কাছে মুখ নিয়ে যত্নসহকারে প্রলেপ তুলতে লাগলো, প্রলেপ তোলা শেষ হতেই গোপাল কয়েকবার উঁ আঁ করে ভড়ভড় করে তার হাঁ-করা মুখে পায়খানা করে দিল। গোপালের বৌ গোপালকে এমন সব খাবার খাইয়েছিল যে একবারেই সব মিলে বেরিয়ে গিয়ে কোষ্ঠ পরিষ্কার হয়ে গেল। কিন’ এদিকে ক্ষৌরকারের অবস্থা তখন শোচনীয়-সে দৃশ্য চোখে দেখা যায় না। তার সারা মুখ এবং গায়ে বিষ্ঠার মাখামাখি।

গোপালের চিৎকার করে পাইক দুজনকে ডাকতেই তারা সেখানে এসে উপসি’ত হয়ে ঐ দৃশ্য দেখে হতভম্ব হয়ে গেল।

গোপাল তাদের আদেশ করলো, এই ক্ষৌরকার গঙ্গা থেকে ভাল করে ৱান করে পরিষ্কার হয়ে রাজদরবারে ফিরে এলো।

মহারাজ বললেন, তুমি গোপালের সঙ্গে লাগতে গিয়ে তোমাকে কি নাকাল হতে না।

ক্ষৌরকার বললো, হুজুর, অনেক শাসি- পেয়েছি, আপনি আর আমাকে শাসি- দেবেন না-এই আমি নাক মুলছি, কান মুলছি।

মহারাজ তাকে কিছু অর্থ দিয়ে বিদায় করলেন আর গোপালকে বললেন,তোমাকে নিয়ে আর পারি না গোপাল, লোকটা দোষ করছে ঠিকই কিন’ তাকে লঘু পাপে গুরু দন্ড দিয়েছ। এতটা করা উচিৎ হয়নি। গোপাল মুচকি হাসতে হাসতে বাড়ি ফিরে গেল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ