• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩৮ অপরাহ্ন |

২০১৯ সালের অনেক আগেই নির্বাচন হবে: ফখরুল

Fokrulঢাকা: ২০১৯ সালের আগে কোনো নির্বাচন নয়, আওয়ামী লীগ নেতাদের সাম্প্রতিক এমন বক্তব্যের জবাবে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, “২০১৯ সালের অনেক আগেই নির্বাচন হবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। কোনো অন্যায় জনগণ মানবে না, অতীতেও মানেনি।”

বুধবার বেলা ১২টায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) আয়োজনে মিট দ্য রিপোর্টার্স অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। এবারের এ অনুষ্ঠানে অতিথি করা হয়েছে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবকে। সাগর-রুনি মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠানে ডিআরইউ সভাপতি শাহেদ চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন মির্জা ফখরুল। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “সুনির্দিষ্ট দিন তারিখতো বলা যায় না। দেশের মানুষ যত দ্রুত রাস্তায় নেমে আসবে তত দ্রুত আওয়ামী লীগ সরকারের পতন হবে।”

তিনি বলেন, “গণতন্ত্রের মূল বিষয় হলো পরমত সহিষ্ণুতা। আওয়ামী লীগ সে জায়গা থেকে সরে এসেছে।”

ফখরুল বলেন, “জাতিসংঘের রাজনীতি বিষয়ক সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকোর সঙ্গে বৈঠক করে আওয়ামী লীগ বলেছিল- এই মুহূর্তে নতুন করে নির্বাচন শিডিউলের সুযোগ নেই। নিয়ম রক্ষার জন্য ৫ জানুয়ারির নির্বাচন হবে। এরপর সব দলের অংশগ্রহণে আরেকটি নির্বাচন হবে। কিন্তু এখন আওয়ামী লীগ ওই বিষয়টি অস্বীকার করছে।”

সরকার ও বিরোধী দলের মধ্যে সংলাপের বিষয়ে তিনি বলেন, “সংলাপের প্রস্তাব আনুষ্ঠানিক অথবা অনানুষ্ঠানিকভাবে দেয়ার চেয়ে জনগণের জন্য সংলাপের প্রয়োজনীয়তা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু আওয়ামী লীগ সংলাপ চায় না। তারা এভাবেই চালিয়ে যেতে চাচ্ছে। সংকট তৈরি হলে আলোচনার বিকল্প থাকেনা। এটিই গণতন্ত্রের নিয়ম। সময়মতো সংলাপ হবেই।”

আওয়ামী লীগের প্রতি জনগণের নৈতিক সমর্থন নেই মন্তব্য করে তিনি বলেন, “সরকারি দল চোরাবালির ওপর দাঁড়িয়ে আছে। তাদের অবস্থান অনেক দুর্বল। তারা বুঝতে পারছেন না যে নিজেদের পায়ের নিচে মাটি নেই। এজন্য বিরোধী দলকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে আওয়ামী লীগ নেতারা বক্তব্য দিচ্ছেন।”

বিএনপির মহাসচিব বলেন, “গণতন্ত্র রুদ্ধ করে, মানুষের অধিকার হরণ করে দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়।”

তিনি বলেন, “গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন দেশ-বিদেশে গ্রহণযোগ্য হয়নি। এজন্য বিশ্বে যারা সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে কথা বলে, তাদের সমর্থন পেতে বিএনপির বিরুদ্ধে জঙ্গিবাদের মদদের অপবাদ দিচ্ছে আওয়ামী লীগ। এটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। বরং বিএনপি জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জনমত তৈরি করেছে। তাদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় নিয়েছে।”

বিএনপির এই শীর্ষনেতা বলেন, “আমরা সহিংসতায় বিশ্বাস করি না। আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে গুলি বর্ষণ করা হয়েছে। গত নভেম্বর-জানুয়ারি তিন মাসে ৩১০ জন নেতাকর্মী নিহত হয়েছে। ৬৫ জনকে গুম করা হয়েছে, এর মধ্যে ২৪ জন তরুণ ঢাকার।”

বিএনপি ক্ষমতায় গেলে বিতর্কিত সম্প্রচার নীতিমালা পরিবর্তন ও মুক্ত গণমাধ্যমের জন্য প্রয়োজনীয় সব করা হবে বলে জানান মির্জা ফখরুল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ