• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৫৪ পূর্বাহ্ন |

কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি: দেড় লাখ মানুষ পানি বন্দী

Kurigram Flood photo-(1) 20.08শাহ আলম, কুড়িগ্রাম: কুড়িগ্রামের বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ১৩ সেন্টি মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। উলিপুর উপজেলার হাতিয়া বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ তলিয়ে যাওয়ায় নতুন করে ১৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এছাড়াও ভাঙনের মুখে পড়েছে বজরা বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ। বালির বস্তা ফেলে এলাকাবাসী ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা করছে। পানি বাড়তে থাকায় বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে আরও নতুন নতুন এলাকা। প্লাবিত হয়েছে ৯ উপজেলার ৫০ ইউনিয়নের নদীতীরবর্তী গ্রাম, চর ও দ্বীপ চরের ২শত ৩০ গ্রাম। পানি বন্দী হয়ে পড়েছে অন্তত দেড় লাখ মানুষ। বানভাসি মানুষগুলো কলা গাছের ভেলা ও বাশের মাচা ও উচু স্থানে আশ্রয় নিয়েছে। অনেক পরিবার গবাদি পশুর সাথে গাদাগাদি করে বাস করছে। দেখা দিয়েছে বন্যা দুর্গত এলাকার বিশুদ্ধ খাবার পানি, ওষুধ ও খাদ্য সংকট। দেড় শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তলিয়ে যাওয়ায় শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।
কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার বজরা ইউনিয়নের মফিজল ইসলাম জানান, ৪ দিন থেকে ঘর-বাড়ী ছেড়ে বাঁধে আশ্রয় নিয়ে আছি। ছেলে-মেয়ে নিয়ে বিপদে আছি। খাবার নাই। ইউনিয়নের মেম্বার চেয়ারম্যানরাও খোঁজ খবর নেয় না।
চিলমারী উপজেলার অষ্টমীর চরের মোতালেব জানান, বন্যায় হাস-মুরগী, ছাগল সবকিছু ভেসে গেছে। বউ বাচাদের উচু জায়গায় পাঠিয়ে নিজে বাড়িটি পাহারা দিচ্ছি। দিনে মাত্র একবেলা খেয়ে দিন কাটছে আমাদের।
উলিপুর উপজেলার বজরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রেজাউল করিম আমিন জানান, বজরা বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধটি ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে। এটি নিজ উদ্যোগে বালির বস্তা ফেলে ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা চলছে। বাধটি ভেঙ্গে গেলে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়ে পড়বে।
জেলা প্রশাসক এ বি এম আজাদ জানান, বন্যা দুর্গতের জন্য এক লাখ টাকা ও ১০৮ মেট্রিক টন চাউল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। যা বিতরন করা হচ্ছে।
বন্যা দুর্গতদের জন্য জেলা প্রশাসন থেকে ত্রাণ সামগ্রী বরাদ্দের কথা জানালেও গত ৪দিনেও বানভাসিদের মাঝে ত্রাণ পৌছায়নি।
পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় গত ২৪ ঘন্টায় চিলমারী পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি ৪ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ১৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নুনখাওয়া পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি ৪ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। কুড়িগ্রাম সেতু পয়েন্টে ধরলা নদীর পানি ও কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি অপরিবর্তিত রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ