• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১১:০২ অপরাহ্ন |

প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণের পর হত্যা : আটক ৩

Dorsonশরীয়তপুর : শরীয়তপুরে পরকীয়ার জের ধরে এক প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। পরে লাশ ইট বেঁধে পানিতে কচুরিপানার নিচে লুকিয়ে রেখেছে প্রেমিক।

নিখোঁজ হওয়ার ৬ দিন পর শুক্রবার ভোরে অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় খুনের মূল হোতাসহ ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

বালুচরা গ্রামের আবুল কাসেম মোল্যা জানান, শরীয়তপুর সদর উপজেলার বালুচরা গ্রামের প্রবাসী ইছহাক মোল্যার স্ত্রী সামছুন্নাহার (তানু) (২২) গত ১৭ আগস্ট বিকেল সাড়ে ৪টায় তার শ্বশুর বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন। বহু খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাওয়া যায়নি। পরে তার ভাসুর পালং থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। জিডির সূত্র ধরে পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে মোবাইল ট্রাকিং করে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সন্দেহজনকভাবে ভেদরগঞ্জ উপজেলার ছয়গাও এলাকা থেকে মধ্য চরোসুন্দি গ্রামের তিন সন্তানের জনক রেজাউল করিম সুজনকে আটক করে। তার স্বীকারোক্তি মতে পুলিশ ৬ দিন পর শুক্রবার ভোরে সদর উপজেলার ধানুকা বিলের ডোবা থেকে অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে। নিহতের যৌনাঙ্গসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

নিহত তানুকে গণধর্ষণের পর নৃশংসভাবে হত্যা করে গায়ে ১০টি ইট বেঁধে একই উপজেলার ধানুকা বিলের একটি ডোবায় কচুরি পানার নিচে পানিতে লুকিয়ে রাখে প্রেমিক। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ সাইফুল ইসলাম ও দুলাল নামে আরো ২ জনকে আটক করেছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেফতারকৃত প্রেমিক রেজাউল করিম সুজন লোমহর্ষক খুনের কথা স্বীকার করে বলেন, সামসুন্নাহার তানু’র সঙ্গে বিয়ের আগে থেকেই তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তানুর মা-বাবা সুজনের কাছে বিয়ে না দিয়ে ৩ বছর পূর্বে ২০১২ সালে একই উপজেলার বালুচরা গ্রামের দুবাই প্রবাসী ইছহাক মোল্যার কাছে বিয়ে দেন। বিয়ে হওয়ার কয়েক দিন পর তার স্বামী ইছহাক মোল্যা দুবাই চলে যায়। এরপর থেকে সুজনের সঙ্গে তানুর মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পুনরায় পরকীয়া প্রেম শুরু হয়। এক পর্যায়ে তাদের দু’জনের মধ্যে দৈহিক মিলন হয়। এ ঘটনা সুজন মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে। ভিডিওটি প্রবাসী স্বামীর কাছে বলে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে সুজন তানুর কাছে ১ লাখ টাকা দাবি করে।

বাধ্য হয়ে তানু তার নিজের স্বর্ণের গহনা সুজনের হাতে তুলে দেয়। সুজন ওই স্বর্ণ ৭২ হাজার টাকায় বিক্রি করে সম্পূর্ণ টাকা নিয়ে নেয়। ঘটনার দিন গত ১৭ আগস্ট বিকেল সাড়ে ৪টায় তানুকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে রেজাউল করিম সুজন, সাইফুল ইসলাম ও দুলাল পূর্ব পরিকল্পিতভাবে শ্বশুর বাড়ি থেকে নিয়ে মনোহর বাজারে সিনেমা দেখে। এর পূর্বে ধানুকা এলাকায় সুজন একটি বাসা ভাড়া করে রাখে। এরপর ওই বাসায় রাতে তানুকে নিয়ে উঠে।

ওই দিন রাত ২টায় সুজন তানুকে বলে তোমার শ্বশুর বাড়ির লোকজন জেনে গেছে। তারা এখানে খুঁজতে আসবে । চলো আমরা এখান থেকে অন্যত্র সরে যাই। এই অজুহাতে ঘর থেকে বের করে নিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করে লাশের গায়ে ১০টি ইট বেঁধে ধানুকা বিলের একটি ডোবায় কচুরিপানার নিচে লুকিয়ে রাখা হয়। এরপূর্বে সুজন ও তার বন্ধুরা তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

নিহত সামসুন্নাহার তানুর বাবা হাফিজ উদ্দিন পাটোয়ারী বলেন, আমার মেয়েকে যারা নৃশংসভাবে হত্যা করেছে আমি তাদের বিচার চাই।

পালং মডেল থানার ওসি (তদন্ত) খন্দকার ফরিদুল হক বলেন, নিখোঁজ হওয়ার পর সাধারণ ডায়েরির ভিত্তিতে নিহতের মোবাইল ট্র্যাকিং করে রেজাউল করিম সুজনকে আটক করি। তার স্বীকারোক্তি মতে আরো ২ জনকে আটক করা হয়। পরে তাদের তথ্যানুযায়ী ধানুকা বিলের একটি ডোবা থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিলো। উৎস: শীর্ষনিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ