• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৩:১৪ অপরাহ্ন |

আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য লেনিনের পিএইচডি লাভ

index_48806ঢাকা : আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, বিশিষ্ট গবেষক, কবি ও প্রাবন্ধিক নূহ-উল-আলম লেনিন পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেছেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় তাকে এই ডিগ্রি প্রদান করে। তার গবেষণা অভিসন্দর্ভের শিরোনাম ছিল ‘বাঙালি সমাজ ও বাংলা সাহিত্যে সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদ : মূল প্রবণতা, পুনঃপাঠ ও পুনর্মূল্যায়ন’।

আওয়ামী লীগের মুখপাত্র উত্তরণের বার্তা সম্পাদক আনিস আহামেদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, জাবির নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের অধীনে প্রফেসর ড. আফসার আহমেদের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত এই গবেষণার বহিঃস্থ পরীক্ষক হিসেবে ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক ড. মুস্তাফা নূর উল ইসলাম এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম।

জানা যায়, নূহ-উল-আলম লেনিন ১৯৪৭ সালের ১৭ এপ্রিল বিক্রমপুরের রাণীগাঁও গ্রামের এক রাজনৈতিক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা স্কুল শিক্ষক আবদুর রহমান মাস্টার ছিলেন ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন, কৃষক আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক। মা মোমেনা খাতুনও ছিলেন কৃষক আন্দোলনের কর্মী।

প্রগতিশীল রাজনৈতিক কর্মী লেনিন লেখালেখিতেও সিদ্ধহস্ত। তার লেখার প্রধান উপজীব্য রাজনীতি। কিন্তু সৃজনশীল গল্প, কবিতা ও সাহিত্য চর্চায়ও তার অনায়াস বিচরণ। তার রচিত উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে ‘আগামীর অন্বেষা’, ‘ব্রাত্যজন কথা’, ‘সমুখে শান্তি পারাবার’, ‘স্বাধীনতার সন্ধানে’, ‘নির্বাচিত কলাম’, ‘নির্বাচিত প্রবন্ধ’ এবং কাব্যগ্রন্থ ‘স্বপ্ন করপুটে’, ‘অনেক দূর যেতে হবে’, ‘ভালোবাসা হিসেব জানে না’, ‘আকাশের সিঁড়ি’, ‘অরণ্যের আগুন-ভরা রাতে’ এবং ‘কবিতা সমগ্র’।

তিনি প্রায় দুই ডজন গ্রন্থ সম্পাদনা করেছেন। এর মধ্যে বিশেষভাবে উল্লেখ্য হচ্ছে- ‘তেভাগা সংগ্রাম’, ‘আওয়ামী লীগের গৌরবের ৫৫ বছর’,  ‘তেভাগার কথা ও বাংলার কৃষক আন্দোলন’, ‘নারী : পরিপ্রেক্ষিত বাংলাদেশ’, ‘সমকালের চোখে চিরকালের রবীন্দ্রনাথ’, ‘ইতিহাসের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু’ এবং ‘চিত্রকলা ও স্থাপত্য : ঐতিহ্য আধুনিকতা ও শিল্প জিজ্ঞাসা’ প্রভৃতি। গত দেড় দশকেরও অধিককাল তার সম্পাদনায় গবেষণাধর্মী মননশীল সাময়িকী পথরেখা প্রকাশিত হচ্ছে। আওয়ামী লীগের মুখপত্র ‘উত্তরণ’-এর প্রকাশক ও সম্পাদকও তিনি।

রাজনীতির পাশাপাশি লেনিন বহুমুখী সামাজিক-সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। ইতোমধ্যে তার নেতৃত্বে পরিচালিত প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণা ও উৎখননের ফলে বিক্রমপুরে নবম-দশম শতাব্দীর বৌদ্ধ বিহার, বৌদ্ধ মন্দির কমপ্লেক্সসহ বেশ কিছু প্রত্নবস্তু আবিষ্কৃত হয়েছে। অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সভাপতি হিসাবে তিনি মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলায় ‘বিক্রমপুর জাদুঘর’ এবং বাংলাদেশের প্রথম ‘নৌকা জাদুঘর’, লৌহজং-এ ‘মুক্তিযুদ্ধ গ্রন্থ জাদুঘর’ এবং মুন্সিগঞ্জ শহরে ‘জ্ঞানপীঠ’ নামে একটি স্বদেশ গবেষণা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছেন।

দুই কন্যা সন্তানের জনক লেনিনের স্ত্রী অধ্যাপিকা কাজী রোকেয়া সুলতানা রাকা একজন মুক্তিযোদ্ধা ও নারী নেত্রী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ