• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:৫৫ অপরাহ্ন |

দিনাজপুরে ইয়াসমিন ট্রাজেডি’র ১৯তম বার্ষিকী পালিত

Yasmin-0001-SM-120130824024621মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুরে নানা আয়োজনে বহুল আলোচিত ইয়াসমিন ট্রাজেডির ১৯তম বার্ষিকী ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস পালিত হয়েছে। এসব আয়োজনের মধ্যে ছিল কবর জিয়ারত, আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ইত্যাদি।
এ উপলক্ষে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ জেলা কমিটি শহরের অদূরে দশমাইল মোড়ে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জশীল গোপাল। কমিটির সভাপতি মজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, রবিউল আউয়াল খোকা, হবিবর রহমানদয়ারাম রায় প্রমূখ।
এদিকে ইয়াসমিনের মা শরিফা বেগমের গোলাপবাগের বাড়ীতে কুরআনখানি ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া মহিলা পরিষদ, বালুবাড়ী মহিলা উন্নয়ন সংস্থা, পল্ল¬ীশ্রীসহ দিনাজপুরের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে ইয়াসমিনের কবর জিয়ারত, দিনব্যাপী দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
উল্লেখ্য, ১৯৯৫ সালের এই দিনে দিনাজপুরে কয়েকজন পুলিশ সদস্যের হাতে ধর্ষন ও নির্মম হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছিল কিশোরী ইয়াসমিন। এর প্রতিবাদে বিক্ষোভে ফেটে পড়েছিল দিনাজপুরের সর্বস্তরের মানুষ। প্রতিবাদী জনতার উপর পুলিশ নির্বিচারে গুলি চালায়। নিহত হয়েছিল সামু, সিরাজ, কাদেরসহ ৭ জন। আহত হয় ৩ শতাধিক। তখন থেকেই দিনাজপুরসহ দেশব্যাপী দিবসটি নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। কিন্তু দীর্ঘ ১৯ বছরে ইয়াসমিন, সামু, সিরাজ, কাদেরসহ নিহতদের পরিবারগুলো সরকারীভাবে তেমন সুযোগ-সুবিধা পায়নি। নিহত  সামু, সিরাজ, কাদের এর স্ত্রীদের তৎকালীন বিএনপি সরকার চাকুরীর প্রতিশ্রতি দিলেও আজও তা বাস্তবায়িত হয়নি।
১৯৯৫ সালের ২৪ আগষ্ট। দীর্ঘ দিন পর মা’কে দেখার জন্য আকুল হয়ে ঢাকা থেকে দিনাজপুরে বাড়ী ফিরছিলো কিশোরী ইয়াসমিন। কিন্তু দিনাজপুরের কোচে না উঠতে পেরে সে পঞ্চগড়গামী একটি কোচে উঠায় কোচের লোকজন তাকে দিনাজপুর-ঠাকুরগাঁও সড়কের দশমাইল নামক স্থানে নামিয়ে দিয়ে সেখানকার এক চায়ের দোকানদারের জিম্মায় দেয়। দশমাইলের লোকজন নিরাপদ ও রক্ষক ভেবে ইয়াসমিনকে দিনাজপুর শহরে মায়ের কাছে পৌছে দেয়ার জন্য কাক ডাকা ভোরে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।
কিন্তু রক্ষক হয়ে পুলিশ ভক্ষক সেজে পথিমধ্যে কিশোরী ইয়াসমিনকে উপর্যুপরি ধর্ষণ করে হত্যা করে। পুলিশ ইয়াসমিনের লাশ দিনাজপুর শহর থেকে ৫ কিলোমিটার দুরে ব্র্যাক অফিসের পাশে রাস্তায় ফেলে চলে যায়। পরের দিন পুলিশের এই পৈশাচিক ঘটনা জানাজানি হলে হাজার হাজার বিক্ষুব্ধ জনতা শহরে প্রতিবাদ মিছিল বের করে দোষিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান। কিন্তু তৎকালীন পুলিশ প্রশাসন ঘটনাকে ধামাচাপা দিতে উল্টো নিস্পাপ কিশোরী ইয়াসমিনকে পতিতা হিসেবে চালিয়ে দেয়ার অপচেষ্টা করে। পুলিশ প্রশাসন কয়েকটি পত্রিকায় ইয়াসমিনকে পতিতা হিসেবে পরিচিত করতে খবর প্রকাশ করায়। এতে দিনাজপুরের শান্ত জনতা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। বিক্ষোভে ফেটে পড়ে দিনাজপুরের সর্বস্তরের মানুষ। বিক্ষুব্ধ জনতার উপর লাঠিচার্জ করে। ফলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে যায়।
২৬ আগষ্ট রাতে বিক্ষুব্ধ জনতা কোতয়ালী থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করতে থাকলে পুলিশ আবারও তাদের উপর লাঠিচার্জ করে। এসময় হাজার হাজার জনতা কোতয়ালী থানার সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে ফেলে। ২৭ আগষ্ট বিক্ষুব্ধ জনতা একে একে রাজপথে নেমে এসে সকল প্রশাসনিক কর্মকর্তার বদলি এবং দোষী পুলিশ কর্মকর্তাদের শাস্তির দাবীতে জনতার বিশাল মিছিল বের হলে মারমূখী পুলিশ শহরের বিভিন্ন স্থানে নির্বিচারে গুলি চালায়। পুলিশের গুলিতে সামু, কাদের ও সিরাজসহ নাম না জানা ৭ জন নিহত হয়। আহত হয় ৩ শতাধিক। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিরাপত্তাজনিত কারনে ইয়াসমিন হত্যা মামলাটি দিনাজপুর থেকে স্থানান্তর করা হয় রংপুরে। রংপুর বিশেষ আদালতে ইয়াসমিন হত্যা মামলার স্বাক্ষ্য প্রমান শেষে দোষী প্রমানিত ৩ পুলিশ সদস্যকে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ