• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন |

ফুলবাড়ী ট্রাজেডি দিবস: ৬ দফা চুক্তি দাবী বাস্তবায়ন করুন

Fulbari Tragedi Rally Picদিনাজপুর প্রতিনিধি: বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্যদিয়ে দিনাজপুরের ফুলবাড়ী ট্রাজেডি দিবস পালিত হয়েছে। কর্মসূচীর মধ্যে ছিল কালো পতাকা উত্তোলন ও কালো ব্যাচ ধারন, শোক র‌্যালী, শহীদ স্মৃতি স্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পন, স্মরন সভা ইত্যাদি। এ সব কর্মসূচী থেকে বক্তারা অতিদ্রুত ফুলবাড়ী ৬ দফা চুক্তি বাস্তবায়নের দাবী জানিয়েছেন।
মঙ্গলবার তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি ফুলবাড়ীতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচী পালন করে। সকাল সাড়ে ৬টায় কালো পতাকা উত্তোলন ও কালো ব্যাচ ধারন করে। ৯টায় জাতীয় কমিটিসহ বিভিন্ন বাম সংগঠন ও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন শোক র‌্যালী ফুলবাড়ী শহর প্রদক্ষিণ শেষে কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দসহ কর্মী সমর্থকরা সাড়ে ১০টায় শহীদ স্মৃতি স্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পন করে।
পরে ফুলবাড়ী পৌর শহরের নিমতলা মোড়ে তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ফুলবাড়ী শাখার আহবায়ক সৈয়দ সাইফুল ইসলাম জুয়েলের সভাপতিত্বে স্মরন সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্মরণ সভায় জাতীয় কমিটির আহবায়ক প্রকৌশলী শেখ শহীদুল্লাহ বলেন, সম্পদ রক্ষার আন্দোলন কখনো ব্যর্থ হয়না। বহুজাতিক কোম্পানী এবং তাদের দোসররা জনগণের স্বার্থের আন্দোলনকে গুলি করে দমানোর চেষ্টা করে। আমরা ফুলবাড়ীতে প্রাণের বিনিময়ে পেয়েছি চিরঞ্জিব প্রেরণা। আমরা কয়লা উত্তোলনে বিরোধীতা করি না। তবে এমন পদ্ধতিতে কয়লা উত্তোলন করতে হবে যাতে প্রাণ প্রকৃতি এবং পরিবেশের কোন ক্ষতি না হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ বলেন, পুঁজিবাদ ও সাম্রাজ্যবাদকে পরাজিত ও দেশকে রক্ষা করতে গিয়ে যারা জীবন দিয়েছেন সেই স্মৃতি মুছে দিয়ে এই অপশক্তির দোসররা আধিপত্যবাদ কায়েম করতে চায়। এখানকার পানি সম্পদ ও আবাদী জমি ধ্বংস করে বহুজাতিক কোম্পানীগুলো মানুষের জীবনের বিনিময়ে টাকার পাহাড় গড়তে চায়। সেইসব দানবীয় শক্তিকে মোকাবেলা করে জীবন দিয়ে ফুলবাড়ীকে রক্ষা করেছেন, তারা সারা দেশকে রক্ষা করেছেন। যদি মানুষ ঐক্যবদ্ধ থাকে তাহলে আমাদের কেউ পরাজিত করতে পারবে না। তিনি আরো বলেন, চুক্তি অনুযায়ি এশিয়া এনার্জিকে সারাদেশ থেকে বহিস্কার করতে হবে। তারা চোরের মত সাইনবোর্ড ছাড়া এখনো খনি এলাকায় ঘোরা ফেরা করে। দালাল তৈরীর চেষ্টা এখনো চলছে। ফুলবাড়ীর মানুষই ঠিক করবে ফুলবাড়ী কয়লা খনির ভবিষ্যৎ। আনু মোহাম্মদ বলেন, উন্মুক্ত পদ্ধতির কয়লা খনি হলে উত্তরবঙ্গে পানির জন্য হাহাকার হবে। এই সরকারের আমলেই ফুলবাড়ী চুক্তির বাস্তবায়ন করতে হবে এবং প্রমাণ করতে হবে তারা কথা রেখেছেন। খনিজ সম্পদ আন্দোলনে সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহবান জানান তিনি। সভায় আরো বক্তব্য রাখেন ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাতীয় সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা, কমিউনিস্ট পার্টির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কমরেড শাহ্ আলম, গণ সংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, অধ্যাপক ইলিয়াস আলী এমপি, কেন্দ্রীয় সদস্য ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের নজরুল ইসলাম, জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা বজলুর রশীদ ফিরোজ, বাসদ’র কেন্দ্রীয় নেতা শুধাংশু চক্রবতী, গণফ্রন্টের সমন্বয়ক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আমিনুল ইসলাম বাবলু, তেল গ্যাস রক্ষা কমিটি দিনাজপুর জেলা শাখার আহবায়ক কমরেড আলতাফ হোসেন, সদস্য সচিব রবিউল আউয়াল খোকা, জেলা শাখার নেতা মোসাদ্দেক হোসেন লাবু, তেল গ্যাস রক্ষা কমিটি ফুলবাড়ী শাখার সদস্য সচিব পৌর কাউন্সিলর জয় প্রকাশ নারায়ণ, ফুলবাড়ী শাখার তেল গ্যাস রক্ষা কমিটির সাবেক সদস্য সচিব এসএম নুরুজ্জামান, কমিউনিষ্ট লীগ নেতা মোশারফ হোসেন নান্নু প্রমুখ।
অপরদিকে ফুলবাড়ী পৌর মেয়র মুর্তুজা সরকার মানিকের নেতৃত্বে ফুলবাড়ীর অরাজনৈতিক পেশাজীবি সংগঠন পৃথকভাবে সকালে শোক র‌্যালী এবং শহীদ স্তম্ভে পুষ্পমাল্য অর্পন শেষে স্থানীয় উর্ব্বশী হল চত্ত্বরে সমাবেশ করেন। নওশাদ আলী মুন্নার সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন পৌর মেয়র মুর্তুজা সরকার মানিক, গোফফার হোসেন, প্রভাষক শেখ সাবির আলী। পরে নেতৃবৃন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।
এছাড়া ফুলবাড়ীতে বিভিন্ন সংগঠনের র‌্যালী, আলোচনা সভা চলাকালে দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে দূরপাল্লার যাত্রীরা দূর্ভোগে পড়েন। এ উপলক্ষে ফুলবাড়ী শহরের অধিকাংশ দোকান-পাট, হোটেল-রেস্তোরাসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, স্কুল, কলেজসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রায় বন্ধ ছিল। তবে ব্যাংক-বীমা খোলা থাকলেও কোন লেন-দেন হয়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ